আজ ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

গোদাগাড়ী উপজেলায় ধান কাটা ও মাড়ার কাজ শেষের পর্যায়ে

 

গোদাগাড়ী (রাজশাহী) উপজেলা প্রতিনিধিঃ

 

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলায় ধান কাটা ও মাড়ার কাজ প্রায় ৮৫ ভাগ শেষ হয়েছে। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় অবশিষ্ট জমিতে থাকা ধান কাটা, মাড়া ও শুকানো কাজ সমান গতিতে চলতে দেখা যায়।

গোদাগাড়ী উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এবছর ১৩ হাজার ৪৭৫ হেক্টর জমিতে বোর ধান আবাদ হয়েছে। এবছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় গত বছরের তুলনায় এবার ফলন ভালো হয়েছে।

সরমংলা এলাকার মাসুদ রানা নামে এক কৃষক জানান, আমার আঁধিতে নেওয়া ১৫ বিঘা জমিতে ধান কাটার কাজ শুরু করলে তিন দিনের মাথায় ঝড়-বৃষ্টিতে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হলে জমিতে ধান (পালা) এক জায়গায় জড়ো করে রেখে দেই। এখন আবহাওয়া ভালো থাকায় ধান মাড়াই ও শুকানোর কাজ চলছে।

নাম না জানা আরে কৃষক জানান, গত বছরের তুলনায় এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় বোর ধানের ফলন দুই থেকে তিন মন বিঘাই বেশি হয়েছে। ঠিকমতো শ্রমিক পাওয়া গেলে হয়তো আরো ভালো ধান পাওয়া যেত।

গোদাগাড়ীর ধানের আড়ৎ গুলোতে ঘুরে দেখা গেছে, দেশে চলমান খাদ্য চাহিদা পূরণে বোরো ধানের দাম কিছুটা হলেও কৃষকরা অন্যান্য বারের তুলনায় এবছর ৯২৫ থেকে ৯৫০ টাকা মন দরে কেনাবেচা করতে পারছেন ।

গোদাগাড়ী উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে বিভিন্ন জেলা থেকে শ্রমিক না আসতে পারাই গোদাগাড়ী উপজেলার কৃষক কিছুটা শঙ্কিত হলেও এবছর প্রযুক্তির ছোঁয়ায় হারভেস্টার মেশিনের সাহায্যে ধান কাটা ও মাড়াই কাজে কৃষককে অনেক সহজলভ্য করে দিয়েছে।যা আগামীতে কৃষকের জন্য আরও সহজলভ্য হলে প্রযুক্তির মাধ্যমে আগামীতে কৃষিতে বিপ্লব ঘটানো সম্ভব বলে জানান।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ