আজ ২৭শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১০ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

উচ্ছেদের পর ফের দখল, আদায় হচ্ছে মোটা অঙ্কের জামানত আদায়ের অভিযোগ 

নিজস্ব প্রতিবেদক  

সাভারে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ের উভয় পাশে গড়ে তোলা প্রভাবশালীদের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের কয়েকদিনের মাথায় সেগুলো পুনরায় নির্মানের কাজ শুরু হয়েছে। এসব অবৈধ স্থাপনা বরাদ্দের জন্য নিন্ম আয়ের সাধারন মানুষের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের জামানত নেয়ার পাশাপাশি নিয়মিত চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। প্রশাসনের নাকের ডগায় সবকিছু ঘটলেও কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছেনা। অভিযোগ রয়েছে প্রশাসনের অসাধু কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজসে অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মান করে সেখান থেকে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, সাভারের গেন্ডা বাসষ্ট্যান্ডে সড়কের জমি এবং সরকারের দাবিকৃত জমিতে বাঁশ-কাঠ দিয়ে ছোট ছোট দোকান ঘর নির্মানের পাশাপাশি লোহার পাইপ ও এ্যাঙ্গেল দিয়ে পাকা স্থাপনা গড়ে তোলা হচ্ছে। এসব স্থাপনার জন্য নিন্ম আয়ের সাধারন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের জামানতের পাশাপাশি আদায় করা হচ্ছে নিয়মিত চাঁদা। উত্তোলনকৃত এসব চাঁদার টাকা ভাগ করে নেন অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মানকারী প্রভাবশালীরা।
ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীরা জানায়, সড়ক প্রশস্তকরনসহ দূর্ঘটনা রোধে মহাসড়কের উভয় পাশের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে সম্প্রতি সাভারে অভিযান চালায় সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর। এসময় গেন্ডা কাঁচাবাজার ও ফলের আড়তের শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হলে বেশ কিছুদিন জায়গাগুলো ফাঁকা পড়ে থাকে। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে দুটি বাজারেই পুনরায় অবৈধভাবে পাকা স্থাপনা নির্মান করে ভাড়া আদায় করছে প্রভাবশালীরা।
গেন্ডা কাঁচাবাজারের ব্যবসায়ী সোহরাব হোসেন বলেন, চল্লিশ হাজার টাকা অগ্রীম দিয়ে তিনি প্রায় একবছর ধরে মুরগীর দোকান করে আসছেন। সম্প্রতি উচ্ছেদ অভিযানের আবারও নতুন করে বিশ হাজার টাকা নেয়া হয়েছে তার থেকে। এছাড়া নিয়মিত পাঁচশ টাকা করে চাঁদা দিতে হয় লিটন ভান্ডারিকে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গেন্ডা ফলের আড়তের এক ব্যবসায়ী বলেন, গত কয়েক বছর আগে সরকারী জমি দাবি করে এখানে থাকা ইসমাইল সুপার মার্কেটটি উচ্ছেদ করে জেলা প্রশাসন। এরপর স্থানীয় ব্যাংক কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন, জজ মিয়া, কুদ্দুস মিয়া, জালাল উদ্দিন, আজাহার উদ্দিন পিচ্চি ও জাহিদুল হক নামে কয়েকজন ব্যক্তি জমিটি লীজ নিয়ে ফলের আড়ত ভাড়া দেন। তখন থেকেই আমি এখানে ব্যবসা করে আসছি। কিন্তু কয়েকদিন আগে উচ্ছেদ অভিযানের সময় পুরো বাজারটি ভেঙ্গে দেয়া হলে আমিসহ অনেকেই বেকার হয়ে যাই। বর্তমানে আবারও উচ্ছেদ হওয়া যায়গাতে স্থায়ীভাবে স্থাপনা নির্মান করা হচ্ছে এবং সেজন্য আগের তুলানায় জামানত ও ভাড়া হিসেবে বাড়টি টাকা চাওয়া হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে বেঁচাকেনার যে অবস্থা তাতে কোন রকমে চলতে কষ্ট হচ্ছে তারপরে নতুন করে দাবিকৃত টাকা দেয়া যেন মরার উপর খাড়ার ঘাঁ।
এদিকে ফলেড় আড়তের জমিটি নিয়ে আদালতে মামলা চলমান রয়েছে এবং আদালত ওই সম্পতিতে নিষেধাজ্ঞাও জারি করেছে বলে জানান প্রায় তিন যুগ জমিটির দখলে থাকা এ্যাডভোকেট ইসমাইল হোসেন। তিনি বলেন, আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ভূমিদস্যু একটি চক্র নালীসি সম্পত্তিতে স্থায়ী স্থাপনা নির্মান করছে।
সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রকৌশলী মোঃ আরিফ জানান, উচ্ছেদ করা জমিতে পুনরায় অবৈধ স্থাপনা নির্মানকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
সাভার উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ বলেন, সরকারী জমি দখল এবং স্থায়ী স্থাপনা নির্মানের বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য সার্ভেয়ারকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অবিলম্বে আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ