আজ ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরাইলের ইউএনও ফেরত দিলেন ৪০ টন নিম্নমানের চাল তদবির খাদ্য কর্মকর্তার

 

হাসনাত কাইয়ূম,সরাইল প্রতিনিধি :

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলায় সরকারিভাবে চাল সংগ্রহ কার্যক্রমের শুরুতেই গলদ ধরা পড়েছে।

আজ বুধবার (১৩ মে) উপজেলা খাদ্য গুদামে আনুষ্ঠানিক চাল সংগ্রহ কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়। এতে স্থানীয় একাধিক মিল মালিক ট্রাক ভর্তি করে গুদামে চাল নিয়ে আসেন। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত মহিলা আসন-৩১২ এর সংসদ সদস্য উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম (শিউলি আজাদ) ও সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু সালেহ মো. মোসা, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান আবু হানিফ মিয়াসহ অন্যরা।

এসময় স্থানীয় পপুলার অটো রাইছ মিল মালিক সাব্বির মিয়ার আনা চালের মান নিয়ে শুরু হয় নানা আলোচনা-সমালোচনা। গুদামে তার আনা ৯৪ শতাংশ চাল ছিল হাইব্রিড এবং অপেক্ষাকৃত মোটা ও নিম্নমানের চাল। মেশিনের পরিমাপেও ধরা পড়ে এসব নিম্নমানের চাল।
কিন্তু এই মিল মালিকের আনা দুই ট্রাক ভর্তিসহ ৪০ মেট্টিক টন চাল গুদামে ঢুকাতে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক নুর আলী ও খাদ্য গুদাম ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাফছা হাই নানা কূটকৌশল শুরু করেন। এতে বাধ সাধেন উপস্থিত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

ইউএনও’র সাফ কথা মেশিনে ধরা পড়েছে এসব চাল নিম্নমানের, এছাড়াও এ চাল যে নিম্নমানের তা চোখেই দেখা যাচ্ছে।

এসময় গুদাম কর্মকর্তা হাফছা হাই অস্থির হয়ে ওঠেন। তিনি চাল পরিমাপের যন্ত্রটি হাতে নিয়ে কয়েক দফা চেষ্টার পর এই চালের মান আসে ১৪ পয়েন্ট। তখন অধির আগ্রহে মেশিনটি এগিয়ে দিয়ে তিনি এ চালের পরিমাপের ফলাফল ইউএনওকে দেখান; কিন্তু ইউএনও’র আবারও সাফ কথা ‘খালি চোখেই দেখা যাচ্ছে এ চাল মানসম্মত নয়, তাছাড়া এরআগে বার বার মেশিনেও ধরা পড়েছে চাল নিম্নমানের। তাই এ নিম্নমানের চাল গুদামে ঢুকবে না’।

সঙ্গে সঙ্গে খাদ্য নিয়ন্ত্রক নুর আলী ইউএনওকে উদ্দেশ্য করে বলে উঠেন, স্যার আমাদের চাল পরিমাপের এই যন্ত্রটি (মেশিন) ‘নতুন’ তাই মাঝেমধ্যে ফলাফল ঠিক থাকেনা! খাদ্য নিয়ন্ত্রকের এই কথায় উচ্ছ্বসিত হয়ে গুদাম কর্মকর্তা হাফছা হাই এগিয়ে এসে একেই কথা জানালেন ইউএনওকে স্যার মেশিনটি নতুন মাঝেমধ্যে এ সমস্যা দেখা দেয়।

অবশেষে তাদের ওকালতি আমলে নেননি ইউএনও। তিনি এই ৪০ মেট্টিক টন নিম্নমানের চাল ফিরিয়ে দেন এবং এসব চাল গুদাম এলাকার বাইরে নিয়ে যেতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন। এসময় নারী সাংসদ পুরো ঘটনাটি দাঁড়িয়ে থেকে অবলোকন করেন। এই পুরো ঘটনা ভিডিও করা সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লাইভ দেখান গুদাম এলাকায় উপস্থিত স্থানীয় সাংবাদিক কয়েকজন।

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিগত মৌসুমের ন্যায় এইবারও সরকারিভাবে চাল সংগ্রহে স্থানীয় কিছু অসাধু মিল মালিকের সঙ্গে অবৈধ চুক্তি করেছেন খাদ্য গুদাম ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাফছা হাই। এই জেলায় তার বাড়ি হওয়ায় স্থানীয় ধান ও চাল ব্যবসায়ীসহ সরাইলের স্বার্থান্বেষী কিছু নেতা ও জনপ্রতিনিধির সঙ্গে তার রয়েছে সখ্যতা। তিনি এখানে যোগদানের পর থেকেই প্রতি মৌসুমে সরকারিভাবে ধান ও চাল সংগ্রহ কার্যক্রমে বড় ধরনের অনিয়-দুর্নীতি করলেও উপর মহলে লোক থাকায়, তিনি এসবের দায় থেকে থাকছেন ধরাছোঁয়ার বাইরে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক খাদ্য গুদামের একাধিক কর্মচারী সাংবাদিকদের জানান, ইউএনও স্যার এই চাল এখন ফিরিয়ে দিয়েছেন ঠিকই; কিন্তু এই চাল-ই ক’দিন পর গুদামে ঢুকাবেন খাদ্য কর্মকর্তারা। কারণ চাল ক্রয়ে অনেক নেতার তদবির থাকে এবং মিল মালিকরা খাদ্য গুদাম কর্মকর্তার সঙ্গে চুক্তিও করে থাকেন প্রতিবছরই।

সরাইল উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা আবু সালেহ মো. মোসা জানান, উপজেলায় বোরো মৌসুমে ২ হাজার ৯০১ মেট্টিক টন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। যার প্রতি কেজি সিদ্ধ চালের মূল্য ৩৬ টাকা এবং আতব চালের মূল্য ৩৫ টাকা নির্ধারন করা হয়েছে। উপজেলার ৩৯ টি মিল মালিক থেকে ৩১ আগষ্ট পযর্ন্ত চাল সংগ্রহ অভিযান চলবে।

ইউএনও জানান, মান সঠিক না থাকায় আজ (বুধবার) দুই গাড়ি চাল গুদাম থেকে ফেরত দেওয়া হয়েছে। চাল সংগ্রহে কোনো ধরনের অনিয়ম সহ্য করা হবে না। ফিরিয়ে দেওয়া চাল গুদামে ফের ঢুকতে পারে এমন আশঙ্কার জবাবে ইউএনও জানান, তারা (খাদ্য কর্মকর্তারা) চাল যাচাই-বাছাই করে সংগ্রহ করবেন। তারা যদি সতর্ক না থাকেন, তাহলে আমিতো সবসময় চাল সংগ্রহে গুদামে এসে বসে থাকা সম্ভব নয়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ