আজ ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জানুয়ারি, ২০২১ ইং

আশুলিয়ায় নদী ও খালের মাটি বিক্রির অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি : অনুসন্ধানী প্রতিবেদন

ঢাকার সাভার উপজেলায় নদী-খাল-বিল ও কৃষিজমির মাটি নির্বিচারে কিছু অসাধু চক্র স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে নিয়ে ভেকু (খনন যন্ত্র) দিয়ে ইটভাটায় বিক্রী করার অভিযোগ উঠেছে। উজার হচ্ছে টপ সয়েল অথচ প্রশাসনের নজরদারীর অভাবে উজাড় হচ্ছে মাটি। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন স্থানীয় কৃষকেরা, পাশাপাশি জলাশয়ের পাড় ভেঙ্গে যাচ্ছে এবং বর্ষা মওসুমে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে স্রোতধারা।

বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) সরেজমিন আশুলিয়া থানাধীন শিমুলিয়া ইউনিয়নের রাঙ্গামাটি এলাকায় গেলে সরজমিনে চিত্র দেখা যায়।

শিমুলিয়া ইউনিয়নের রাঙ্গামাটি খালের মাটি কেটে নিচ্ছেন আবুল হোসেন নামের এক প্রভাবশালী ব্যক্তি। ব্রিজের নিচ দিয়ে প্রবাহিত জলধারা শীতকাল বিধায় শুকিয়ে যাওয়ায় তিনি ভেকু ব্যবহার করে গভীরভাবে মাটি কেটে ট্রাকে করে স্থানীয় ইটভাটাগুলিতে বিক্রী করছেন।
আবুল হোসেনের মুঠোফোনে মাটি বিক্রির করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার জায়গার মাটি আমি বিক্রী করছি, তাতে আপনাদের কি? পারলে সামনে এসে কথা বলেন। এভাবে নির্বিচারে মাটি কাটতে পারেন কিনা জিজ্ঞেস করলে পরে তিনি জানান, আপনারা বলছেন যখন এখন আর কাটবো না।

শিমুলিয়া ইউনিয়নের ইউপি সদস্য খলিল এবং সামছু নামের দুই ব্যক্তি রাঙ্গামাটি খালের সংলগ্ন কৃষিজমি থেকে দুইটি ভেকু ব্যবহার করে মাটি কেটে ভাটায় বিক্রী করছেন। এই প্রতিনিধি ঘটনাস্থলে গেলে ভেকু দুইটির চালক সহ অন্যরা কথা না বলেই পালিয়ে যায়। শিমুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে ইউপি সদস্য খলিলের নিকট বিষয়টি জানতে চাইলে তিনিও জানান তার নিজের জমি থেকে তিনি মাটি কাটছেন। তবে ইট ভাটায় বিক্রীর জন্য কৃষি জমির উপরিভাগ থেকে মাটি কাটতে পারেন কিনা জানতে চাইলে তিনি কোনো উত্তর দেন নাই।

শিমুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুরুজ আলী উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে এই প্রতিবেদককে জানান, ‘যারা মাটি কাটছে তারা একাত্তুরের রাজাকার, তারা এখনও দেশের ক্ষতি করে চলছে। আপনারা সাংবাদিকেরা তাদের বিরুদ্ধে লেখেন। অথচ তার পরিষদের ইউপি সদস্য খলিল যার বিরুদ্ধেও মাটি কাটার অভিযোগ তিনি তখন সেখানেই উপস্থিত ছিলেন।

সাভার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার মুঠোফোনে এবিষয়ে জানতে চেয়ে কল করা হলেও ব্যস্ততার কারণে তিনি কল রিসিভ করেন নাই।

আশুলিয়া রাজস্ব সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ এর মুঠোফোনে কল করা হলে ব্যস্ততার কারণে তিনি কল রিসিভ না করায় তার বক্তব্য পাওয়া যায় নাই।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ