আজ ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৮ই মে, ২০২১ ইং

১৭ই রমজান পবিত্র বদর যুদ্ধ দিবস

 

ইব্রাহীম খলীল সবুজ – ইসলাম ডেস্কঃ

ইসলামে বদর যুদ্ধে বিজয় ও মহানবীর প্রতি অকৃত্রিম আনুগত্যের ও ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ

আজ ১৭ই রমজান ঐতিহাসিক বদর দিবস। ইসলামের প্রথম বৃহত্তর যুদ্ধ হচ্ছে এই বদর যুদ্ধ। দ্বিতীয় হিজরীর পবিত্র রমজান মাসের ১৭ই রমজান এই যুদ্ধ সংঘটিত হয়।
দিনটি ছিলো শুক্রবার।
এটাই ছিলো প্রথম ‘গাযওয়া’ অর্থাৎ রাসূল (স.) এর প্রত্যক্ষ পরিচালনায় সবচেয়ে বড় যুদ্ধ। এ যুদ্ধে মুসলমানদের যুগান্তকারী বিজয় হয়েছিলো। পবিত্র কোরআনের আল্লাহ তায়ালা ‘সূরায়ে আনফাল’ এ এর বিস্তারিত এবং অন্যান্য জায়গায়ও সংক্ষেপে এ যুদ্ধের বিবরণ দিয়ে আয়াত নাযিল করছেন।
এ যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে প্রতিপক্ষের তুলনায় মুসলমানদের যোদ্ধাসংখ্যা ও হাতিয়ারের স্বল্পতা ইত্যাদি থাকা সত্ত্বেও তাঁদের এমন মহাবিজয়ের কারণ খুঁজতে গেলে একথা সুস্পষ্ট হয় যে, এ মহাবিজয়ের মূল কারণ হচ্ছে মহানবী ও আল্লাহর প্রতি সাহাবায়ে কেরামের অকৃত্রিম আনুগত্য ও বিশ্বাস, এমনকি মহানবীর ইঙ্গিতে নিজেদের প্রাণ উসর্গের প্রতিফলন।
সর্বোপরি এ যুদ্ধে আল্লাহর রাসূলের অসাধারণ জ্ঞান, নির্ভুল ইলমে (অদৃশ্য জ্ঞান) এবং তাঁর সর্ববিষয়ে একেবারে অব্যর্থ দিক-নির্দেশনার সমুজ্জ্বল প্রমাণ মিলে।

বদর যুদ্ধ সংঘটিত হবার পূর্বে বাসূল (স.) যুদ্ধের ময়দান পরিদর্শন করেন। আর তখন তিনি কাফিরদের বড় নেতাদের নিহত হবার ভবিষ্যদ্বাণী করেন। তৎসঙ্গে মাটিতে নিশান লাগিয়ে বলেছেন এখানে ওমুক কাফির মরবে, এখানে ওমুক কাফির মরবে, ওখানে অমুক ইত্যাদি। এ যুদ্ধ জয়ের পর দেখা গেছে, মহানবীর লাগানো চিহ্নাদি অনুসারে ওইসব কাফিরকে ওখানেই নিহত অবস্থায় পাওয়া গেছে।
রাসূল (স.) যুদ্ধের সূচনাকালেই মুসলমানদের এমন মহান বিজয়ের সুসংবাদ দিয়েছিলেন। বদর যুদ্ধের এসব ঘটনাবলি রাসূল (স.) যে জ্ঞানের অধিকারী তার প্রকৃষ্ট প্রমাণ বহন করে।

প্রসঙ্গ থাকে যে এ যুদ্ধে ৩১০জন সাহাবী ১০ হাজার কাফেরের সাথে যুদ্ধে মোকাবিলা করে ছিল।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ