আজ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ ইং

আত্রাই উপজেলার ইতিহাসের ইতিকথা

মোঃ ফিরোজ আহমেদ, নওগাঁ প্রতিনিধিঃ

নওগাঁ জেলার ১১টি উপজেলার মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা হচ্ছে আত্রাই। বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা, সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মহাত্মা গান্ধী, বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায়সহ বহু মনিষীর পদস্পর্শ ঘটেছে আত্রাই এর মাটিতে।

আত্রাই নদী, আহসানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন, সুস্বাদু মাছ, পতিসর এর খ্যাতি জগৎ জোড়া।

আত্রাই উপজেলার আয়তন ২৮৪.৪১ বর্গ কিমি। এর উত্তরে রানীনগর ও মান্দা উপজেলা, দক্ষিণে নাটোর জেলার নলডাঙ্গা উপজেলা, পূর্বে নাটোর জেলার সিংড়া উপজেলা এবং পশ্চিমে রাজশাহী জেলার বাগমারা উপজেলা।

২০১১ সালের আদমশুমারী অনুযায়ী আত্রাই উপজেলার মোট জনসংখ্যা ২০০৬৩৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৯৯৭৯৯ জন এবং মহিলা ১০০৮৩৫ জন।

তৎকালীন রাজশাহী জেলার উত্তর প্রান্তের মান্দা, নওগাঁ ও পাঁচুপুর- এই তিনটি মাত্র থানা নিয়ে ১৮৭৭ খ্রিস্টাব্দে নওগাঁ মহকুমা প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৮৮১ সালের পর বেঙ্গল সেন্সাস রিপোর্ট অনুযায়ী এর আয়তন ছিল ৬০৩ বর্গমাইল এবং লোকসংখ্যা ২,৬৮,৫৭৯ জন মাত্র।

যতদূর জানা যায়, ১৮৭৫ খ্রিস্টাব্দেও নওগাঁ বান্দাইখাড়া থানাধীন একটি ছোট নদী বন্দর ছিল মাত্র। সম্ভবত মহকুমা সদর নির্বাচিত হওয়ায় তার অব্যবহিত পূর্বে থানা বান্দাইখাড়া থেকে নওগাঁয় স্থানান্তরিত হয়। এর আগে বান্দাইখাড়া এবং মান্দা থানা রাজশাহী সদর মহকুমার অধীনে ছিল।

১৮৭৫ পর্যন্ত পাঁচুপুর বলে পৃথক কোন থানার নাম পাওয়া যায়না। নওগাঁ মহকুমা গঠন কল্পে প্রধানত নাটোর মহকুমাধীন বিশালাকার সিংড়া থানার অংশ বিশেষ এবং সন্নিহিত অন্যান্য এলাকা থেকে কিছু অংশ নিয়ে ১৬৫ বর্গমাইল আয়তন বিশিষ্ট পাঁচুপুর থানা গঠিত হয়। তখন এর লোক সংখা দাঁড়ায় ৭৯,৪৩১ জন মাত্র।

নওগাঁ মহকুমা গঠনের আগে থেকে থানা সদর বান্দাইখাড়াতে একটি মুন্সেফ চৌকি প্রতিষ্ঠিত ছিল।

নওগাঁ মহকুমা সদর হবার পরেও বেশ কিছুকাল মুন্সেফকোর্ট বান্দাইখাড়াতে ছিল বলে জানা যায়। সম্ভবত সে কারণেও থানা নওগাঁয় স্থানান্তরিত হলেও সেখানে একটি পুলিশ আউটপোস্ট থেকে যায়।

পরে পার্শ্ববর্তী নন্দনালী গ্রামে স্বতন্ত্র থানা হয়। ১৯৪৭ এর দু এক বছর পূর্বে এটিও আউটপোস্টে পরিণত হয় এবং ১৯৭১ এর স্বাধীনতার পরে সম্পূর্ণ উঠে যায়।

নওগাঁ মহকুমা গঠনের আগে থেকেই আত্রাই একটি নদী বন্দর ছিল। ১৯২৯ এর মধ্যে পাট ব্যবসায়ে আত্রাই বেশ সমৃদ্ধ হয়ে ওঠে। সেখানকার পাট ব্যবসায়ী আহসান মোল্লা প্রভূত অর্থ ও প্রতিপত্তির অধিকারী হন।

তাঁরই প্রভাবে পাঁচুপুর থানা সদর ১৯২৬ সালে আত্রাই ঘাটে স্থানান্তরিত হয়, নামও বদলে আত্রাই হয়ে যায়। উক্ত থানা উপজেলায় রূপান্তরিত হয় ১৯৮৩ সালের ১ আগস্ট।

তথ্যসুত্রঃ বাংলাপিডিয়া, উইকিপিডিয়া, নওগাঁ মহকুমার ইতিহাস- খান সাহেব মোহাম্মদ আফজল

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ