আজ ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ই মে, ২০২১ ইং

বিশ্ব মা দিবস

 

মতিউর রহমান,
পিরোজপুরজেলাপ্রতিনিধি:

ত্রিভুবনের সবচেয়ে মধুরতম শব্দ ‘মা’। সবচেয়ে প্রিয়, পবিত্র, সর্বজনীন শব্দ মা। মা শব্দটি উচ্চারণের সঙ্গে সঙ্গে অন্যরকম এক আবেগ-অনুভূতির জন্ম হয় হৃদয়ের অতল গহিনে। অনাবিল সুখ প্রশান্তির রেশ ছড়িয়ে দেয়। মা শব্দটি উচ্চারিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের হৃদয়ের মানসপটে ভেসে উঠে অসীম, চিরন্তন, আত্মত্যাগ, ভালবাসার প্রতিচ্ছবি, এক মমতাময়ী প্রতিমূর্তি। আজ বিশ্ব মা দিবস। এদিন মাতৃ অন্তঃপ্রাণ সন্তানেরা ‘জননী আমার তুমি, পৃথিবী আমার, মধুর আমার মায়ের হাসি চাঁদের মুখে ঝরে’-এই কথাটুকু প্রমাণে সারা বিশ্বেই নানা আয়োজনে সন্তানরা উদযাপন করেন মা দিবস। মা শব্দটি ছোট হলেও এর পরিধি বিশাল।
যে ভাষায় তাঁকে সম্বোধন করা হোক না কেন, সর্বকালে সর্বক্ষেত্রে সৃষ্টির আদিলগ্ন থেকে দেশ ও কালের সীমানা অতিক্রম করেও মায়ের আত্মত্যাগের ভালবাসার রূপ অনেকটা অভিন্ন। মায়ের অনুগ্রহ ছাড়া কোন প্রাণীরই প্রাণধারণ করা অসম্ভব। মায়ের দেহে নিউট্রোপেট্রিক রাসায়নিক পদার্থ থাকায় মায়ের মনের মাঝে সন্তানের জন্য জন্ম নেয় মমতা।

মায়ের ভালোবাসার ক্ষমতা বিজ্ঞানের মাপকাঠিতেও নির্ণয় করা সম্ভব নয়। পৃথিবীর সব দেশেই এই মা শব্দটিই কেবল সর্বজনীন। মাকে ঘিরেই পরিবারের স্বাভাবিক বিকাশ সাধিত হয়। পরিবারে মা হচ্ছেন এক স্বর্গীয় বিস্ময়কর প্রতিষ্ঠান। মহিয়সী মায়ের তত্ত্বাবধানেই শিশুকাল থেকে ছেলে-মেয়েরা সুসন্তান হিসেবে গড়ে ওঠে। মা প্রথম কথা বলা শেখান বলেই মায়ের ভাষা হয় মাতৃভাষা। মা হচ্ছেন মমতা-নিরাপত্তা-অস্তিত্ব, নিশ্চয়তা ও আশ্রয়। মা সন্তানের অভিভাবক, পরিচালক, দার্শনিক, শ্রেষ্ঠ শিক্ষক ও বড় বন্ধু। নিষ্ঠা সহকারে দায়িত্ব পালনে মায়েরা থাকেন সন্তানদের কাছে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। সন্তানদের সুশৃঙ্খল, শিষ্ট ও সর্বক্ষেত্রে যোগ্য হয়ে গড়ে উঠার পেছনে থাকে একমাত্র মায়েদের অক্লান্ত অবদান। সুমাতার সাহচর্যে গড়ে ওঠা সন্তানই সমাজ ও রাষ্ট্রের সুনাগরিক হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হন।

ইসলামে মায়ের মর্যাদা অসীম। মাকে সমাসীন করেছেন অভাবনীয় মর্যাদার আসনে। মহান আল্লাহ তা’য়ালা স্বীয় রাসুলে পাক (সা.)-এর পরে মাকে সর্বোচ্চ আসন দিয়েছেন। বলা হয়েছে, মায়ের পায়ের নিচে সন্তানের বেহেশত। বুখারী শরীফের হাদিসে আছে নবী করিম (সা.)-এর কাছে এক সাহাবি জিজ্ঞাসা করলেন- আমার উপর সবচেয়ে বেশি অধিকার কার? রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন- তোমার মায়ের। এভাবে তিনবার প্রশ্ন করলে তিনবারই তিনি উচ্চারণ করেন মা। চতুর্থবার রাসুলুল্লাহ (সা.) উচ্চারণ করেন বাবা। উপনিষদে বর্ণনা করা হয়েছে- ‘মাতৃ দেব ভব’? অর্থাৎ মা দেবী স্বরূপিনী, জীবন্ত ঈশ্বরী? হিন্দুধর্মে মহাশক্তি, আদিশক্তি, রক্ষাকর্ত্রীর ভূমিকায় যারা চিত্রিত হয়েছেন প্রত্যেকেই মাতৃরূপে। মাকে স্মরণ করে জগদ্বিখ্যাত মনীষী আব্রাহাম লিংকন বলেছিলেন- ‘আমি যা কিছু পেয়েছি, যা কিছু হয়েছি, অথবা যা হতে আশাকরি, তার জন্য আমি আমার মায়ের কাছে ঋণী’। নেপোলিয়নের সেই সর্বজনীন কথাটি খুব প্রসিদ্ধ- ‘আমাকে একজন ভাল মা দাও, আমি তোমাদের একটি ভাল জাতি উপহার দেব।’ মাকে শ্রদ্ধা ও ভালবাসা জানানোর নির্দিষ্ট কোন দিনক্ষণ নেই। মায়ের প্রতি ভালবাসা প্রতি মুহূর্তের। তারপরও বিশ্বের সকল মানুষ যাতে একসঙ্গে মায়ের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পারে সে জন্য পালন করা হয় আন্তর্জাতিক মা দিবস। তবে এখনো বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন তারিখে পালিত হয় মা দিবস।

কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায় লিখেছেন- ‘আমি ভীষণ ভালবাসতাম আমার মা-কে/কখনও মুখ ফুটে বলিনি/টিফিনের পয়সা বাঁচিয়ে/কখনও কখনও কিনে আনতাম কমলালেবু/শুয়ে শুয়ে মা-র চোখ জলে ভরে উঠত’। অধিকাংশ বাঙালি ছেলে-মেয়ের গল্পটাই বোধ হয় এমন। আমরা মাকে যতই ভালোবাসি না কেন, কিছুতেই কেন জানি মুখ ফুটে তাকে সে কথা বলতে পারিনা। বলতে পারিনা, মায়ের মুখটা আমাদের কত প্রিয়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ