আজ ১লা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জানুয়ারি, ২০২১ ইং

আশুলিয়ায় হাটবাজারে গুটি কয়েক ব্যবসায়ী প্রশাসনের নির্দেশে মানছে না

 

নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনা পরিস্থিতির কারণে সড়কের পাশের সকল হাটবাজারগুলি জেলা প্রশাসন উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে নিকটস্থ স্কুলের মাঠে অস্থায়ীভাবে সরিয়ে আনার নির্দেশনা দিয়েছেন। এই নির্দেশনা মেনে ঢাকা জেলার সাভার উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারগুলি নিজ নিজ এলাকার স্কুল কিংবা কলেজ মাঠে স্থানান্তরিত হয়েছে।

এরই ধারাবাহিকতায় আশুলিয়া হাটবাজারটিও আশুলিয়া স্কুল ও কলেজ মাঠে ইতোমধ্যে স্থানান্তরিত হয়েছে। মূল স্থায়ী বাজারের পাঁচশো’ দোকানদার ওই মাঠে তাদের দোকান সরিয়ে আনলেও দশ-বারোজন দোকান মালিক মহাসড়কের পাশ থেকে তাদের দোকান সরিয়ে অস্থায়ী বাজারে আনতে চাচ্ছেন না বলে জানালেন এই বাজারের নতুন ইজারাদার জসিমউদদীন পিন্টু মোল্লা।

তিনি জানান, গত ১৪ এপ্রিল সরকারী নির্দেশনা মেনে আশুলিয়া স্কুল ও কলেজ মাঠে আমার ইজারাভুক্ত হাটবাজারটি স্থানান্তরিত করেছি। এখানে নির্দিষ্ট সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ইতোমধ্যে বাজারটিকে একটি আদর্শিক বাজারে রুপ দিয়েছি। তবে আমার ইজারাধীন মূল স্থায়ী বাজারের কতিপয় ব্যবসায়ী তাদের দোকান ওখান থেকে সরিয়ে আনতে চাচ্ছেন না এবং এবিষয়ে সরকারী নির্দেশনা মানতেও তারা অনীহা প্রকাশ করছেন। পাশাপাশি একটি অদৃশ্য মহলের ইশারায় তারা বাজারটিকে কেন্দ্র করে বিশৃংখল পরিস্থিতি তৈরী করতে চাচ্ছে।

এব্যাপারে তিনি আরও জানান যে, ইতোমধ্যে সাভার উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশুলিয়া রাজস্ব সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ এবং ঢাকা জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সাভার সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তাহমিদুল ইসলাম কয়েকদফা অস্থায়ী বাজার পরিদর্শনে এসে বাজারের সামগ্রিক ব্যবস্থাপনায় সন্তোষ প্রকাশ করে গেছেন। এই অবস্থায় মাত্র কয়েকজন দোকান মালিক সরকারী নির্দেশনার বাইরে গিয়ে অসহযোগিতা করে চলায় ইজারাদার হিসেবে বাজারটির সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনায় আমাদের বেগ পেতে হচ্ছে। এব্যাপারে উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

বিষয়টি মুঠোফোনে আশুলিয়া রাজস্ব সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ এর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী সড়কের পাশের সকল হাটবাজার নিকটস্থ স্কুল ও কলেজের মাঠে সরিয়ে আনার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এখন এই নির্দেশ যদি কেউ না মানতে চায় তবে সরকারি বিধি মোতাবেক তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আরও জানান যে, সরেজমিন বিষয়টি দেখতে তিনি শীঘ্রই আশুলিয়া হাটবাজার এলাকায় যাবেন এবং যারা নির্দেশনা মানতে চাইছেন না তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত ১৪ এপ্রিল, ২০০০ ইং তারিখে, দেশে চলমান করোনা মহামারি এড়িয়ে চলার জন্য সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজুর রহমান স্বাক্ষরিত এক গণবিজ্ঞপ্তি (স্মারক নং ০৫.৪১.২৬৭২.০০১.২২.০৩৭.২০-৩০৪) দ্বারা আশুলিয়া হাটবাজারটিকে সাময়িকভাবে আশুলিয়া স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে বসানোর অনুমতি প্রদান করেন।

এছাড়াও, ঢাকা জেলা পুলিশ সুপারের আদেশক্রমে একটি নোটিশের মাধ্যমে জানানো হয় যে, ১৩ এপ্রিল, ২০০০ ইং তারিখ হতে রাস্তার পাশে কোনো হাটবাজার ও ফুটপাত বসবে না। ওই নোটিশে পাঁচটি বাজারের নাম উল্লেখ করে সেগুলো কোথায় বসবে সেটাও উল্লেখ করে দেয়া হয়। সেই অনুযায়ী নোটিশে উল্লেখিত বাজারের তালিকার ২নং ক্রমিকে উল্লেখ রয়েছে, আশুলিয়া বাজার আশুলিয়া স্কুল মাঠে বসবে।

এভাবে সরকারী নির্দেশনা অমান্য করে একটি বিশেষ গোষ্ঠির প্ররোচনায় আশুলিয়া হাটবাজারের কতিপয় দোকানদার বিশৃংখলা সৃষ্টির যে চেষ্টা করছেন তাতে করে আশুলিয়ার স্থানীয় সচেতন মানুষ উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ