আজ ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে এপ্রিল, ২০২১ ইং

গোদাগাড়ীতে কৃষি অফিসের উদ্যোগে ত্রাণের সাথে সবজি বিতরণ

 

গোদাগাড়ী(রাজশাহী) উপজেলা প্রতিনিধিঃ

রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব রোধে দরিদ্র ও নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে খাদ্য নিশ্চিত করতে ত্রাণ সামগ্রীর সঙ্গে সবজি বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছে জেলা প্রশাসন ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা সবজি আবাদের জন্য পরিচিতি হলেও কৃষকরা করোনার প্রভাবে চরম বেকায়দায় রয়েছেন।
পাইকার না আসায় এবং স্থানীয় বাজারে চাহিদা কম থাকায় পানির দামেও বিক্রি হচ্ছে না উৎপাদিত সবজি। আর সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় মজুদও করতে পারছেন না চাষীরা।
তাই জেলা প্রশাসন ও কৃষি অধিদপ্তরের উদ্যোগে স্থানীয় কৃষকদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য কিনে নিয়ে দরিদ্রদের মাঝে বিতরণ করা হচ্ছে। এতে কৃষকরাও উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্য দাম পাচ্ছেন। এই কর্মসূচীর মানবিক সহায়তার অংশ হিসেবে ত্রাণের সাথে সবজি বিতরণ করা হচ্ছে।
এই কর্মসূচির আওতায় মঙ্গলবার গোগ্রামে ৪২৭ জন, দেওপাড়া ৫৪৪ জনের মাঝে লাউ, মিষ্টি কুমড়া, পটল ও আলু বিতরণ করা হয়েছে।
গতকাল মাটিকাটা ইউনিয়নে এভাবে ত্রাণ পেয়েছেন ৬২০ জন।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল ইসলাম সরকার বলেন, বাজারে ভিড় কমিয়ে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার পাশাপাশি কৃষকদের কথা ভেবে ত্রাণ সামগ্রীর পাশাপাশি সবজি কিনে বিতরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এতে কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্য মূল্য পাওয়ার পাশাপাশি দরিদ্র মানুষের পুষ্টির চাহিদা পূরণ হবে। লকডাউনে সবজি বাজারে মন্দাভাবের মধ্যে উপজেলা প্রশাসন সবজি কিনতে শুরু করায় বাজারে সবজির দাম কিছুটা বেড়েছে।
উপজেলা কৃষি অফিসার শফিকুল ইসলাম জানান, কৃষকদের পণ্যের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে কৃষকদের কাছে সরাসরি সবজি কিনে আবার সেই ইউনিয়নেই বিতরণ করা হচ্ছে।এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি জানিয়েছেন।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মতিউর রহমান জানান, ত্রাণ সহায়তার পাশাপাশি আমরা সবজি বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছি। এতে চাষিরা বিভিন্নভাবে উপকৃত হচ্ছেন। তাদের পণ্য বাজারে নিয়ে বিক্রি করতে হচ্ছে না। বাড়ি থেকেই আমরা তাদের কাছ থেকে সবজি ক্রয় করায় বাজারের চেয়ে ভালো দাম পাচ্ছেন তারা। অন্যদিকে দুস্থরাও ত্রাণের চাল ও নগদ টাকার পাশাপাশি সবজি পাচ্ছেন। এতে তাদের আর বাজারে যেতে হচ্ছে না। সামজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার পাশাপাশি সকলকে ঘরে রাখাও আমাদের এই কার্যক্রমের লক্ষ্য।
দেওপাড়া ইউনিয়নের কৃষক রতন জানান, বাজারে সবজির দাম নেই বললেই চলে। তবে গতকাল উপজেলা প্রশাসনের কাছে মিষ্টি কুমড়া, লাউ,ঝিঙা বিক্রি করে কিছু টাকা পেয়েছি।
মাটিকাটা ইউনিয়নের কৃষক তাশারুল কাছ থেকে কেনা হয়েছে আলু, বেগুন, লাউ,পটল। তিনিও এই পদক্ষেপের প্রশংসা করে বলেন, এই উদ্যোগের ফলে চরম মন্দার বাজারে কৃষক দাম পাবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ