আজ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২২শে জুন, ২০২৪ ইং

আওয়ামী লীগের ১৭ সদস্যের দলের সাথে চীনে বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের সৌজন্য সাক্ষাৎ

চায়না প্রতিনিধি :

কমিউনিস্ট পার্টি অব চীনের (সিপিসি) আমন্ত্রণে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খানের নেতৃত্বে ১৭ সদস্যের একটি দল চীন সফরে গেছেন।

২১ মে রোববার রাত ১২টা ৫০ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে দলটির নেতারা চীনের উদ্দেশে রওনা হন।

দ্বিপক্ষীয় এই রাজনৈতিক সফরে তারা কমিউনিস্ট পার্টি অব চায়নার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন।

সেখানে বাংলাদেশ স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো উপস্থাপন করবেন। বিশেষ করে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিতে চীনকে আরও বেশি উদ্যোগী হওয়ার জন্য প্রস্তাব দেয়া হবে বলে জানা গেছে।

এ সফরে রয়েছেন আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, ধর্ম সম্পাদক সিরাজুল মোস্তফা, বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, শিক্ষা ও মানবসম্পদ সম্পাদক শামসুন নাহার চাপা,

স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, উপদফতর সম্পাদক সায়েম খান, কার্যনির্বাহী সদস্য সুফরা বেগম রুমি, পারভীন জামান কল্পনা, আনোয়ার হোসেন,

শাহাবুদ্দিন ফরাজী, আজিজুস সামাদ আজাদ ডন, গ্লোরিয়া সরকার ঝর্ণা, সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ, আন্তর্জাতিকবিষয়ক উপকমিটির সদস্য তরুণ কান্তি দাস ও এ কে ফাইজুল হক রাজু।

এ সফর করা কালীন তারা ২৯ মে, রোববার চীনের নিংশিয়া প্রদেশে সফর করেন। ওইদিন রাত ৯ টায় চীনে অধ্যায়নরত নিংশিয়া মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬ শিক্ষার্থীর একটি দল তাদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও তাদের সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেন।

উক্ত দলে ছিলেন নিংশিয়া মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঢাকা জেলা উত্তর শাখার উপ-স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক প্রিন্স ঘোষ,ছাত্রলীগ কর্মী ইমরাম খান।

তাছাড়া উপস্থিত ছিলেন একই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফাহাদ আল অভি,তিন্নি শার্মিন,নাজিউর রহমান শিশির ও হৃদয় সরকার।

উক্ত আলোচনায় তারা বিদেশে শিক্ষারত বাংলাদেশী মেডিকেল শিক্ষার্থীদের দেশে ফিরে বেসরকারি মেডিকেলে ইন্টার্নশিপ নিয়ে নতুন নিয়ম পরিবর্তন বিষয়ে কথা বলেন। তারা নতুন এ নিয়ম পরিবর্তন করে সরকারি মেডিকেলে ইন্টার্নশিপ করার সুযোগ করে দেওয়ার দাবী জানান বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগ নেতা প্রিন্স ঘোষ বলেন “আমরা আমাদের দাবী তাদের জানিয়েছি যাতে আমাদের এ দাবী প্রধানমন্ত্রী অব্দি পৌঁছায়। আমরা বলেছি আমাদের ৫ বছর মেডিকেল পড়া শেষে চীনে ইন্টার্নশিপ করা বাধ্যতামূলক।

ভাষাগত সমস্যার কারণে চীনে ইন্টার্নশিপ করেও আমরা তেমন কিছু শিখতে পারি না। নতুন নিয়ম করায় আমাদের দেশে গিয়ে লাইসেন্স পরিক্ষা দিয়ে সরকারি মেডিকেলে ইন্টার্নশিপের সুযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এখন আমাদের নির্দিষ্ট ফি দিয়ে বেসরকারি মেডিকেলে ইন্টার্নশিপ করতে হবে আর এর মাধ্যমে আমাদের শেখার জায়গাটা সংকচিত করে দেওয়া হয়েছে।”

ছাত্রলীগের ইমরান খান বলেন “আমাদের চীনে এসে ৬ মাস ভাষা শিখতে হয় তার পরে ৫ বছর এমবিবিএস পরে ১ বছর ইন্টার্নশিপ করে দেশে গিয়ে আবার ৬ মাস সময় চলে যায় লাইসেন্স পরিক্ষার জন্য।

তার পরে আবার ইন্টার্নশিপ করতে হয়। সব মিলে আমাদের প্রায় ৮ বছর প্রয়োজন হয় যা অনেক দীর্ঘ মেয়াদি। আমরা চীনে আলাদা করে ইন্টার্নশিপ করার নিয়ম পরিবর্তনের দাবী জানিয়েছি এবং দেশে গিয়ে আমরা সরকারি মেডিকেলে ইন্টার্নশিপ করার দাবিও জানিয়েছি।”

নিংশিয়া মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হৃদয় সরকার বলেন “আমরা আমাদের দাবী জানিয়েছি এবং তারাও আমাদের এ দাবীকে যুক্তিসংগত বলেছেন। তারা বলেছেন এ বিষয়ে তারা প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সাথে আলোচনা করবেন।”

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ