আজ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা মার্চ, ২০২১ ইং

ক্যাম্পাস নয়, একটি পরিবারের গল্প

 

লেখক – এসএম রিমেল

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি একটি ক্যাম্পাস নয় এটি হলো একটি পরিবার। আর আমরা সেই পরিবারের সন্তান।
অদ্ভুত লাগে, কম্পাসে আসার আগে কখনও উপলব্ধি
করতে পারিনি এমনকি কল্পনাও করতে পারিনি ক্যাম্পাস
লাইফটা এমন হয়।
এখানে আছে বুকে টেনে নেয়ার জন্য বড় ভাই, আছে সব সময় পাশে থাকা ক্লাস মেট আর পরিবারের অভিভাবক
শিক্ষক যারা শাসনের সময় করেন শাসন আর আদরের সময় করেন আদর।
বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়ে আমার ধারনাটা ছিল অন্য রকম। ভাবতাম মানুষগুলো অনেক গুরুগম্ভীর হয়,
কথাবার্তা কম বলেন, ছাত্রদেরথেকে একটা দুরত্ব বজায় রাখেন। কিন্তু এই ক্যাম্পাসে এসে দেখলাম সম্পূর্ণ বিপরীত।
ওনারা অনেক বন্ধুসুলব। একসাথে খেলাধুলা পর্যন্ত করেন এমনকি বার্ধক্যও ওনাদের আটকাতে পারেন না।
কিন্তু আবার শাসনের সময় হয়ে যান অন্যরকম।
সত্যি অসাধারন এই মানুষগুলো।
ক্যাম্পাসে আসার আগে সবচেয়ে বেশি ভয় পেতাম বড়ভাইদের। ভয়ে থাকতাম আর পালিয়ে বেড়াতাম তাদের থেকে।
আর এখন বুঝি কতটা বোকা ছিলাম তখন।
এখন বিপদে আপদে সব সময় যাদের পাই তারা এই বড় ভাই। ওনাদের কখনোই বলবো না আমাদের সিনিয়র ওনারা আমাদের পরিবারের বড় ভাই।
যেকোনো সময় পাশে পাওয়া যায় ওনাদের।
আসলে ওনাদের কথা বলে শেষ করাযাবে না।
একটা ক্যাম্পাসের প্রায় সবাই সবাইকে কমবেশি চেনে কেমনে এটা বললে হয়ত বিশ্বাস করার মত না।
কিন্তু সত্য এখানে প্রায় সবাই সবাইকে চেনে।
এখানে সবার প্রতি সবার রয়েছে অন্য রকম এক ভালোবাসা রয়েছে এক মধুর টান।
এখানে দিনের শুরুটা হয় টঙের আড্ডা দিয়ে আর শেষটা হয় হ্যান্ডবল গ্রাওন্ডের ফুটবল দিয়ে ।যদিও আড্ডা আর ফুটবলটা সারাদিনি চলে। অপরূপ সৌন্দর্য্য লিখে প্রকাশ করা সম্ভব না ড্যাফোডিল এর পার্মানেন্ট ক্যাম্পাস। একবার একজনকে বলতে শুনেছিলাম ” ক্যাম্পাসে প্রবেশের সময় এক কিলোর দুরত্বটা নাকি কমে যায় আর বেড়ে যায় ছেড়ে আসার সময় ।” কি আনাড়ি টাইপের কথা। আইনস্টাইনের আপেক্ষিকতারেও হার মানায় কিন্তু এখন বুঝি কথাটা আসলেই সত্যি।এই পরিবারের সদস্য সংখ্যা প্রতি বছরি বাড়ে ঠিক কিন্তু কখনোই কমেনা। আর এভাবেই শুধুই বেড়ে যাবে এই পরিবারের সদস্যসংখ্যা আর তৈরি হবে অনেকগুলো স্মৃতি ।

লেখক:
এস এম রিমেল
আইন বিভাগ
ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ