আজ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ইং

করোনা পরিস্থিতিতে ধামরাইয়ের নান্নার ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে স্বাস্থ্য সেবা প্রদান

 

রনজিত কুমার পাল (বাবু)
নিজস্ব প্রতিবেদক:

বৃহষ্পতিবার (২৩শে এপ্রিল২০২০ ইং) পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা ৩,৪১৬টি।
নতুন শনাক্ত ৪১৪ জন। সর্বমোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪,১৮৬ জন।
নতুন মৃত্যুবরণ করেছে ৭ জন। সর্বমোট মৃত্যুবরণ করেছে ১২৭ জন।
সুস্থ হয়েছে ১৬ জন। সর্বমোট সুস্থ হয়ে উঠেছে ১০৮ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর করোনা এখন কমিউনিটি ট্রান্সমিশন ফেজে গেছে বলে এরই মধ্যে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে। এর মানে কী? একেকটা দিন না, এখন একেকটা সেকেন্ড আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। লকডাউন, মানে ‘কমপ্লিট লকডাউন’ করা প্রয়োজন। সরকার নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সম্ভাব্য রোগীদের নমুনা সংগ্রহ করছে তাদের বাসা থেকে। এর মাধ্যমে আক্রান্ত রোগী অন্যকে ছড়ানোর আশঙ্কা কমে আসবে। শুরুর দিকে পরীক্ষাসামগ্রীর পরিমাণ ও নির্ভরযোগ্যতা নিয়ে সমস্যার সম্মুখীন হয়েছিল। এখন বড় মেডিকেল কলেজ ও বিভাগীয় হাসপাতালে কোভিড-১৯ এর ড্রাইভ-থ্রু পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে, যাতে পেশাদার স্বাস্থ্যকর্মীরা প্রয়োজনীয় সতর্কতা মেনে নমুনা সংগ্রহ করে অনেক দ্রুত ও ব্যাপকভাবে পরীক্ষা সম্পন্ন করতে পারেন।

কোভিড-১৯ কিন্তু ঢাল-তলোয়ারহীন চিকিৎসকদেরও মাফ দেবে না। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চারজন চিকিৎসক কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। অ্যাপোলো হাসপাতালে অস্বাভাবিক নিউমোনিয়ায় ভুগে রুগীর মৃত্যুর পর পাঁচ চিকিৎসক কোয়েরেন্টিনে আছেন। এভাবে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সরঞ্জামের (PPE) অভাবে চিকিৎসকগণ অসুস্থ হতে থাকলে বা মারা গেলে বা কোয়ারেন্টিনে যেতে বাধ্য হলে দেশের স্বাস্থ্যসেবায় কী ধস নামবে চিন্তা করুন।

সরকার সাধ্যমতো চেষ্টা করছেন করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধজয়ের জন্য। পরিস্থিতি মোকাবেলা করার জন্য বাংলাদেশের মতো রাষ্ট্রের পক্ষে সত্যিই এক কঠিন যুদ্ধ। তবে আমাদের রাষ্ট্রের প্রতিটি জ্ঞানকে কাজে লাগাতে হবে। সাধারণ মানুষ যেহেতু স্বাস্থ্য সম্পর্কে খুব একটা সচেতন না। তাদের সচেতন করার জন্য ইউনিয়ন পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোকে কার্যকরী সেল হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। যেন কোন ভাইরাসের সংক্রমনের প্রাথমিক পর্যায়ে থেকে পর্যাপ্ত চিকিৎসা দানের মাধ্যমে থামিয়ে দেয়া যায়। একটি শক্তিশালী হওয়ার আগেই যদি পর্যাপ্ত চিকিৎসা দেয়া যায় তাহলে হয়ত বড় ধরনের ঝুঁকি এড়িয়ে চলা সম্ভব হবে। প্রাথমিক চিকিৎসা কেন্দ্র হিসেবে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ব্যবহার করা যেতে পারে। এখানকার সমস্ত ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীদের কে সময় ‌ উপযোগী প্রশিক্ষণ প্রদান করার মাধ্যমে তাদের দক্ষ করে তুলতে ।ইমেজ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অবকাঠামোগুলো আধুনিক স্বাস্থ্য পরিচর্যা কেন্দ্রে রূপান্তর ব্যবস্থা করতে হবে। এতে করে শহরে অবস্থিত স্বাস্থ্য কেন্দ্র গুলোর উপর চাপ কমবে। যেমন—

১. প্রতি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে করোনা আক্রান্তদের প্রাথমিক চিকিৎসা দানের
সরঞ্জামাদি থাকা দরকার—

২. পর্যাপ্ত কক্ষের ব্যবস্থা থাকবে-

• একটি রোগীদের জন্য, যেখানে থাকতে হবে শয্যা, দিতে হবে নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহ।
• একটি চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য সেবাদানকারী লোকেদের জন্য। কারণ, এই সময়ে তাঁদের পরিবার ছেড়ে আলাদাই থাকতে হবে।
• একটি ল্যাব ও প্রয়োজনীয় রসদ সংক্রান্ত কাজের জন্য।

২. ডাক্তারদের জন্য পি পিই সহ পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকতে হবে।

৩. পরিস্থিতি মোকাবিলায় তহবিল তৈরি করতে হবে।

৪. সর্বোপরি স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে আধুনিকায়ন করার মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবাকে বিকেন্দ্রীকরণ করা গেলে শহরের স্বাস্থ্যসেবা গুলোতে চাপ কমবে।

৫. আরো বেশি সংখ্যাক চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।

৬. উপযুক্ত প্রশিক্ষণ দানের মাধ্যমে আরো বেশিসংখ্যক স্বাস্থ্য সহযোগী তৈরি করতে হবে।

সবশেষে, আসুন সবাই সরকার ঘোষিত নিয়মগুলো মেনে চলি, নিজে সুস্থ থাকি ও অন্যকেও সংক্রমণের থেকে সুরক্ষায় সহায়তা করি।

বৃহস্পতিবার ২৩শে এপ্রিল ২০২০ নান্নার ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সেবা ধানের প্রাণকেন্দ্র “নান্নার ইউনিয়ন স্বাস্হ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে” আগত রোগীদের চিকিৎসা ও পরামর্শ সেবা দিচ্ছেন-ডা: আব্দুল্লাহ আল – মামুন- উ,স,ক, মেডিকেল অফিসার, ধামরাই, ঢাকা।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ