আজ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ ইং

সাভারে ১৫, ধামরাইয়ে ৬জন রাজাকারের নাম প্রকাশ

বিশেষ প্রতিনিধি   

বাঙ্গালী জাতি স্বাধীনতা পেয়েছে তার বিনিময়ে দিতে হয়েছে ৩০ লাখ প্রাণ ও ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রম। স্বাধীনতার দোষররা কখনই চায়নি দেশ স্বাধীন হোক। তাই বাঙ্গালীর চোখে মুখে ফুটে ওঠা যে স্বপ্ন তা নষ্যাৎ করতে এ দেশেই গড়ে ওঠে বিশ্বাস ঘাতক, গড়ে ওঠে রাজাকার, আলশামস, আলবদর বাহিনী মহান বিজয় দিবসের আগের দিন আনন্দঘন মহুর্তে এই স্বাধীনতার দোষরদের নাম প্রকাশ করা হয়। বিতর্ক থাকলেও প্রথম দফায় গত রোববার (১৫ ডিসেম্বর) ১০ হাজার ৭৮৯ রাজাকারের তালিকা প্রকাশ করেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। যার মধ্যে সাভারে ১৫ ও ধামরাইয়ের ৬ জন রাজাকারের নাম প্রকাশ করা হয়েছে।
তালিকায় থাকা সাভারের রাজাকররা হলেন- ভারারি গ্রামের সাবেব খানের ছেলে লাল মোহাম্মদ খান, কুন্ডা গ্রামের ওয়ারেস মোল্লার ছেলে আব্দুস সুবহান মোল্লা, বড়দেশী গ্রামে তনু মিয়ার ছেলে ফয়েজ উদ্দিন আহমেদ, কাশেমপুর গ্রামের সফেদার খানের ছেলে আব্দুল মজিদ খান, লালের টেক শিমুলিয়া গ্রামের প্রহাল কুর সরকারের ছেলে সন্তোষ কুর সরকার, রুস্তমপুর গ্রামের আমিন উদ্দিনের ছেলে মুক্তার হোসেন, সাভার গ্রামের মৌলভী দুদু মিয়ার ছেলে কামাল উদ্দিন আহমেদ, হরিণধরা গ্রামের আব্দুল লতিফের ছেলে আব্দুল জব্বার, ফুলবাড়িয়া গ্রামের আব্দুল হাইয়ের ছেলে আলী মোল্লা, গাছুবাড়ি গ্রামের আবদুল মান্নানের ছেলে রুহুল আমিন, হারান নগর গ্রামের আকবর আলির ছেলে আসকার আলী, পার্বতী নগর গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছেলে নুরুল ইসলাম খান, সাভারের ইউসুফ আলী মাদবরের ছেলে তোতা মিয়া, শিমুলিয়া গ্রামের আবদুল হাকিমের ছেলে আজগর আলী, জাদুর চর গ্রামের ওহব আলীর ছেলে হজরত আলী ।
তালিকায় থাকা ধামরাইয়ের রাজাকররা হলেন, জয়দেবপুর গ্রামের জতীন্দ্র বিশ্বাসের ছেলে কার্তিক চৌধুরী বিশ্বাস, হাতকড়া গ্রামের মৃত পাছু খানের ছেলে মহান, চাপিল গ্রামের আব্দুল হামিদর ছেলে মোজাম্মেলহক, ভবনহাটির ইংরাজ আলীর ছেলে চাঁদ মিয়া, শিমুলিয়ার গা্মইচাবাবাড়ির মুন্সি হাকিম আলী ব্যাপারীর মো: আব্দুল মান্নান, দেলিয়া পাড়া গ্রামের মৃত আব্বাস আলীর ছেলে মো: আকরাম হোসাইন।
এব্যাপারে সাভার মুক্তিবাহীনির কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার মোহাম্মদ হামিদ রঞ্জু বলেন, আমি সাভার মুক্তিবাহিনীর কমান্ডার হিসাবে রণাঙ্গনে যুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়েছি। রাজাকার ও মুক্তিযোদ্ধা কারা তা আমি জানি। এই রাজাকারের তালিকা কিভাবে করা হলো তা বুঝতে পারছি না। রাজাকারের তালিকা মুক্তিযোদ্ধাদের কাছ থেকে সংগ্রহ করলে হয় তো সঠিক রাজাকারের তালিকা প্রকাশ হতো।
রাজাকারের তালিকা আমার কাছে কেউ চায় নি। একইভাবে মুক্তি যোদ্ধার তালিকাও মুক্তিযোদ্ধারা করে নাই। এই তালিকা করেছিলো আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। রাজাকারের তালিকাটা রাজাকার করছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমি মুক্তিবাহিনীর কমান্ডার হয়েও রাজাকারের তালিকায় আমার নাম আছে কিনা এ নিয়ে ভয়ে আছি।

শুনেছি মানবতা বিরোধী কোর্টের যে আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট গোলাম আরিফ টিপু সাহেব, ওনার নামও নাকি রাজাকারের তালিকায় আছে। তবে সাভারে কোন মুক্তিযোদ্ধার কাছে রাজাকারের তথ্য কেউ চেয়েছে এমন কোন তথ্য আমার জানা নাই। একজন মুক্তিবাহিনীর কমান্ডার হিসাবে এই এলাকার কে মুক্তিযোদ্ধা আর কে রাজাকার এটা শুধু আমিই না, সকল এলাকার সকল মুক্তিযোদ্ধারা জানেন।

খন্দকার মোহাম্মদ হামিদ রঞ্জু বলেন, আমি এশিয়াটিক সোসাইটির গবেষক  ছিলাম, এই এশিয়াটিক সোসাইটিতে আমি সব রাজাকারের তথ্য দিয়েছি। সেখানে যোগাযোগ করলে সব পাওয়া যাবে।এছাড়াও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠা হওয়ার পরেই আমি লিখিতভাবে মন্ত্রণালয়ে রাজাকারের তথ্য দিয়েছি। মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা সিল ছাপ্পড় দিয়ে সেগুলো গ্রহণ করেছে। আর যে রাজাকারদের তথ্য আমি দিয়েছি এখন তারা সাভারের গ্রেট আওয়ামীলীগ নেতা। এখানে মুক্তিযুদ্ধে অংশ না নিয়েও অনেকে মুক্তিযোদ্ধা হয়েছেন। এদের সবার তথ্য আমি মন্ত্রণালয়ে লিখিতভাবে জমা দিয়েছি। তাদের বিরুদ্ধে এখনো কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয় নাই। কেনই বা ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না সেটা আমার বোধগম্য নয়।

সঠিক উপায়ে আরো নির্ভূল মুক্তিযোদ্ধা ও রাজাকারের তালিকা প্রস্তুত করা হবে এমটাই প্রত্যাশা আশা এই এলাকার মুক্তিযোদ্ধা ও সাধারন মানুষের।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ