আজ ১৩ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

অসহায় পরিবারটির পাশে দাঁড়াল রাজশাহী জেলা পুলিশ

 

 

মোহাম্মদ ইসহাক 

রাজশাহী জেলার নিজেস্ব প্রতিনিধিঃ
গত ১৯/০৪/২০২০ ইং তারিখ সকাল অনুমান ছয়টার দিকে রাজশাহীর বাগমারা থানাধীন ধামীন কামনগরের এক আমবাগানের মধ্যে একটি আমগাছের নীচে গলায় লাইলনের রশি পেঁচানো অবস্থায় শ্রী সুখেন কুমার সরকার, পিতা : মৃত গোবিন্দচন্দ্র সরকার , সাং ধামিন কামনগর, থানা: বাগমারা, রাজশাহী নামক এক ব্যক্তির মরদেহ পাওয়া যায়। এ বিষয়ে মৃত ব্যক্তির ভাই বাগমারা থানায় হত্যা সংক্রান্ত মামলা দায়ের করেন। বিষয়টি গুরুত্বের সাথে নিয়ে পুলিশ সুপার জনাব মো: শহিদুল্লাহ বিপিএম, পিপিএম এর দিকনির্দেশনায় তদন্তকার্যক্রম শুরু করে বাগমারা থানা পুলিশ। তদন্তের এক পর্যায়ে গোপন সূত্রে রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) জনাব সুমন দেবের নেতৃত্বে পুলিশ হত্যাকান্ডের সাথে সরাসরি জড়িত মোসা: তাহমিনা বেগম(৩৮), স্বামী : মো: আব্দুস সাত্তার, গ্রাম: ধামিন কামনগর, থানা: বাগমারা, রাজশাহীকে গ্রেফতার করা হয়। এবং ২০/০৪/২০২০ তারিখ উক্ত নারী হত্যাকান্ডের বিষয়ে বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেন।

মূলত পরকীয়া সম্পর্কের জের ও পাঁচ হাজার টাকার প্রলোভনে তাহমিনা ও পল্লব নামক এক ব্যক্তি মিলে সুখেন কুমারকে হত্যা করে এবং বর্তমানে দুইজনই কারাগারে রয়েছে।
তবে খোজ নিয়ে জানা যায়, তাহমিনা একজন গরীব ও অসহায় এবং তার সংসারে দশম শ্রেণী পড়ুয়া এক মেয়ে ও দুইটি নাবালক ছেলে রয়েছে। তার স্বামী দীর্ঘদিন ধরে ঢাকাই অবস্থান করছেন এবং পরিবারের কোন খোঁজখবর বা টাকা না পাঠাই তাহমিনা বাসায় বাসায় কাজ করে সংসার চালাত । স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তাহমিনা স্বামী ঢাকায় আরেকটি বিয়ে করে ।

করোনায় উদ্ভুত সংকটময় পরিস্থিতিতে তাহমিনা কারাগারে থাকায় তার সন্তানগুলি এক অসহায় ও মানবেতর পরিস্থিতির সম্মুখীন দেখে রাজশাহীর পুলিশ সুপার মহোদয়ের দিকনির্দেশনায় তাহমিনার অসহায় সন্তানদের সার্বিক খোঁজখবর নেন ও প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী প্রদান করেন বাগমারার অফিসার ইনচার্জ আতাউর রহমান । আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় শুধু অপরাধীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা নয়, পাশাপাশি সমাজের অসহায় মানুষদের পাশে সবসময় রয়েছে রাজশাহী জেলা পুলিশ।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ