আজ ১১ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

স্বাস্থ্যকর্মীর পরিবারকে ইটভাটাই থাকতে বললেন চেয়ারম্যান

 

নিজস্ব প্রতিবেদক:

 

ঢাকার ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক কর্মীর পরিবারকে বাড়ি ছাড়তে বলে ইটভাটাই থাকার নির্দেশ দিয়েছেন স্থানীয় চেয়ারম্যান।

সোমবার (২০ এপ্রিল) বেলা ১২ টার দিকে জানান ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার নূর রিফফাত আরা। ঘটনাটি ঘটেছে ধামরাইয়ের বালিয়া ইউনিয়নের মাদারপুর এলাকায়।

ভুক্তভোগী স্বাস্থ্যকর্মী বলেন, আমি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কাজ করি বিধায় এলাকা চেয়ারম্যান আহম্মদ হোসেন আমাকে এলাকায় ঢুকতে দেয় না। গতকাল রোববার (১৯ এপ্রিল) বাড়িতে যাওয়ার পর এলকার লোকজন দিয়ে আমাকে বাড়ি থেকে বের হতে দেয় না। চেয়ারম্যান বলে আমি সহ আমার পরিবার যেনো ইটভাটাই গিয়ে থাকি।

কান্না জড়িত কন্ঠে তিনি বলেন, আমার ঘরে বা ও মা দুজনেই হার্টের রোগী। সব সময় ওষুধ লাগে তাদের। এ অবস্থায় কাউকে জরুরী প্রয়োজনে বাড়ী থেকে বের হতে দিচ্ছে না। বর্তমানে আমার পরিবারকে খুব চাপের মুখে রেখেছে তারা।

ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার নূর রিফফাত আরা জানান, ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গার্ডেনার (মালি) সে দীর্ঘ দিন যাবৎ তাদের এখানে কাজ করেন। হাসপাতালে কাজ করে বিধায় এলাকার চেয়ারম্যান-মেম্বার তাকে বাড়ি ছাড়তে বলে তার পরিবারকে আবদ্ধ করে বাড়িতে লা পতাকা দিয়ে রেখেছিলো কয়েকদিন ধরে৷ কিন্তু আজ সেই স্টাফকে এলাকায় থাকতে দিবে না বলে তার পরিবারকে ইটেরভাটায় থাকার জন্য তারা নির্দেশ দেন তারা।

তিনি আরও বলেন, এ খবর পেয়ে আমি আমার স্টাফকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসি। কিন্তু তার পরিবার এখনো অবরুদ্ধ করে রেখেছে জনপ্রতিনিধিরা।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান এই কর্মকর্তা আরও বলেন, আমার সেই স্টাফের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে তার করোনা নেগেটিভ এসেছে। তবুও কিভাবে উপজেলার নির্দেশ ছাড়া চেয়ারম্যানরা এভাবে একজনের বাড়ী অবরুদ্ধ করে রাখে। বিষয়টি খুব দুঃক্ষজনক।

বিষয়টি অস্বীকার করে ধামরাই উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আহম্মদ হোসেন বলেন, আমি আসলে সে ভাবে কিছু বলি নাই। আজাহারের পরিবারসহ এলাকাবাসীর সুরক্ষার জন্য তাকে আলাদা ঘর অথবা অন্য কোথাও থাকার জন্য বলা হয়েছে৷

ধামরাই থানার পরিদর্শক (ওসি) দিপক চন্দ্র সাহার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান বিষয়টি শুনে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ