আজ ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৮ই মে, ২০২১ ইং

পুলিশ বাহিনীর টহলের সঙ্গে যেন চোর-পুলিশ খেলা খেলছেন তারা

 

খান ইমরান , বরিশাল 

বরিশালে প্রথমে দুই জনের করোনা পরীক্ষার পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়ার পরই একটি জরুরি সভা ডেকে গত রোববার (১২ এপ্রিল) সন্ধ্যায় বরিশাল জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করেন জেলা প্রশাসন ।
এসময় সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ আইন অনুযায়ী জেলা প্রশাসক এস এম অজিয়র রহমান গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে লকডাউন ঘোষণা করেন। তার পরে প্রশাসন ঘোষিত লকডাউনের পর থেকেই সকালে হাঁট বাজারগুলোতে অস্বাভাবিক ভিড় ও জনসমাগম দেখা যায়। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার প্রবণতা নেই বললেই চলে। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ভিড় থাকলেও দুপুরের পর থেকে হাট বাজার ও রাস্তাঘাট একেবারেই ফাঁকা হয়ে আসে।

এক কথায় বলা যায় বরিশাল শহরে সকালে এক রূপ আর বিকালে অন্য রূপ। তবে প্রশাসন কঠোর হতে শুরু করলে দুপুরের পর ফাঁকা হয়ে যায় রাস্তাঘাট, বন্ধ হয় দোকানপাট, আড্ডা ছেড়ে মানুষজন বাড়িতে অবস্থান করে। কিন্তু নগরের বাজার রোর্ডসহ বিভিন্ন পাড়া-মহল্লার ভিতরে চা পান এবং অযথা আড্ডা দেখে সেসব আলোচনার বিষয় হয়ে ওঠে।

এরপর বেলা গড়াতেই নগরের বিভিন্ন বাজার ও মোড়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তৎপরতা শুরু করলে ফাঁকা হয়ে যায় সেসব জায়গা। ফলে সকালে ভিড় জমালেও দুপুরে ফাঁকা হয়ে যাওয়ায় দৃশ্যপট পাল্টে যায়। এছাড়াও কয়েক দিন ধরে লক্ষ্য করা গেছে বরিশালে একের পর এক করোনা রোগী শনাক্ত হচ্ছে। তবে প্রশাসনের দাবি আমারা দিন রাত মাঠে কাজ করে যাচ্ছি। মানুষকে সচেতন করতে। তার পরও মানুষ বিনা কারনে রাস্তা বের হচ্ছে নানা অজুহাতে।

তারা আরো বলেন,আমরা জীবনকে বাজি রেখে কাজ করছি। করোনা ভাইরাজ থেকে মুক্ত রাখার জন্য মানুষ তা বুঝতে পারছেনা। বরিশাল প্রেস ক্লাবের সাধারন সম্পাদক এস এম জাকির হোসেন বলেন, বরিশাল শহরকে লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছে। কিন্তু সকালে রাস্তায় বের হলে মনে হয় মানুষের মেলা। রাস্তায় দেখা যায় রিক্সা থেকে শুরু করে মোটা মুটি সব ধরনের গাড়ি।

তবে বিকালে রাস্তায় বের হলে মনে হয় বরিশাল শহর ফাঁকা। লকডাউন করা হয়েছে। অন্যদিকে নগরীর পলাশপুর এলাকায় দেখা গেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর টহলের সঙ্গে যেন চোর-পুলিশ খেলা খেলছেন তারা। এলাকায় পুলিশ এলেই সবাই দ্রুত দোকানপাট বন্ধ করছে। রাস্তায় থাকা মানুষ বাসায় ঢুকছেন। পুলিশ চলে গেলেই আবার জমজমাট হয়ে উঠছে রাস্তা-অলিগলি।

বরিশালের অধিকাংশ পাড়া-মহল্লার চিত্র এমনই। এদের অনেকেরই বাইরে বের হওয়ার কারণ খুবই তুচ্ছ- বাসায় বসে থাকতে ভালো লাগছে না, ধূমপান বা বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা। সকালে নগরের অনেক এলাকা ঘুরে দেখা যায়- এলাকার রাস্তায় অনেক লোকের ভিড়। একটু পর পরই দুজন-চারজন মিলে দাঁড়িয়ে গল্প করছেন। জানতে চাইলে এমন আড্ডার একজন বললেন, বাসায় থাকতে থাকতে বিরক্ত হয়ে গেছি। তাই একটু বের হলাম।

আমরা কিন্তু তিন ফুট দূরত্ব বজায় রেখেই দাঁড়িয়েছি। পলাশপুরের কয়েকটি দোকানের সামনে আড্ডা ও ধূমপান করতে দেখা গেছে। আবার খেটে খাওয়া মানুষদের রাস্তার মোড়ে মোড়ে বসে থাকতে দেখা গেছে। স্থানীয়রা বলছেন, এলাকায় পুলিশ এলে সবাই বাসায় চলে যায়। কিছুক্ষণ পর আবারও বের হয়। এলাকায় বিকাল হলেই চায়ের দোকানে আড্ডা জমে। বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ (বিএমপির) মুখপাত্র নরেশ কর্মকার বলেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলতে ও বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের না হওয়ার জন্য নগরের সকল মহল্লায় ঘুরে মাইকিং করা হয়েছে। তাছাড়া পুলিশের পক্ষ থেকে বিভিন্ন সড়কে জীবাণুনাশক ছিটানো হয়েছে।

বর্তমানে সিটি করপোরের্শনের পক্ষ থেকে প্রতিদিনই জীবাণুনাশক ছিটানো হচ্ছে। কোতয়ালী মডেল থানার ওসি নুরুল ইসলাম জানান, নগরের বাজার গুলো,বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে আমাদের পুলিশ সদস্যরা টহলে রয়েছে। যদি কেউ লকডাউন অমান্য করে তার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

বরিশাল জেলায় বর্তমানে করোনায় মোট ২০ জনের দেহে করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে। মারা গেছে ৪ জন। এর মধ্যে সুস্থ্যর সংখ্যা নেই বললেই চলে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ