আজ ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৯শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

করোনা আতঙ্ককে কেন্দ্র করে পদ্মা-মেঘনায় চলছে জাটকা ও পাঙ্গাসের পোনা নিধন

 

ইব্রাহীম খলীল সবুজ – চাঁদপুর প্রতিনিধিঃ

চাঁদপুরে জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ ও সেনাবাহিনী করোনা সংক্রমণ রোধে দিবারাত্রি ব্যস্ত সময় পার করছেন।
তাইতো এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্টেটগণও নদীতে অভিযানে যেতে পারছেন না। অপরদিকে মৎস্য বিভাগ, নৌ-পুলিশ ও কোস্টগাডের্র মধ্যে সমন্বয় না থাকায় পদ্মা-মেঘনায় অভয়াশ্রমে সুযোগ নিয়ে নির্বিচারে জাটকা ও পাঙ্গাসের পোনা নিধনের মহোৎসবে মেতে ওঠেছে অসাধু জেলেরা।

অভয়াশ্রম কার্যক্রম বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট উপজেলা, জেলা জাটকা রক্ষা টাস্কফোর্স কমিটি থাকলেও করোনার ব্যস্ততায় কারোরই এদিকে খেয়াল নেই। আর এ সুযোগে জেলা সদর, মতলব উত্তর ও হাইমচর উপজেলার মেঘনা নদীর ৭০ কিলোমিটার অভয়াশ্রম অঞ্চলে জাটকা ও পাঙ্গাসের পোনা নিধনকারী অসাধু জেলে, আড়তদার ও পাইকাররা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।
মৎস্য বিভাগ ও নৌ পুলিশের সোর্সদের ম্যানেজ করে জাটকা নিধন ও পাচারের উৎসব চলছে। এছাড়া পাঙ্গাসের ৫/৬ ইঞ্চি সাইজের পোনা চাঁদপুর শহরের অলি-গলিতে রাস্তার পাশে বসে জেলেরা প্রকাশ্যে বিক্রি করছে। দিনের বেলায় অভিযান চলায় রাতের বেলা নিধনকারীদের কোনো সমস্যা হচ্ছে না।

প্রতিদিন বিকেল থেকেই চাঁদপুর সদর, মতলব উত্তর ও হাইমচর উপজেলার শত শত অসাধু জেলে নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল নিয়ে নদীতে জাটকা নিধনে নেমে পড়ে।
আবার এদের কেউ কেউ নদীর কিনারায় চাঁই পেতে পাঙ্গাস নিধন করছে। অপরদিকে কারেন্ট জাল দিয়ে মধ্যরাত পর্যন্ত জাটকা নিধন চলে। আহরিত এসব জাটকা রাতের অাঁধারেই চরাঞ্চল ও নদী পাড়ের অস্থায়ী আড়তগুলোতে মজুদ করে।
সুযোগমতো স্পীডবোটে নৌপথে কিংবা পিকআপ ভ্যানে করে সড়কযোগে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হয়।

প্রতিদিন সন্ধ্যার পর জাটকা নিধনকারী শত শত জেলে নৌকার আলোয় মেঘনা নদী আলোকিত হয়ে উঠে। এ সময় মনে হয় মেঘনা নদীতে কোনো অভয়াশ্রম নেই।
লক্ষ্যণীয় বিষয় হচ্ছে,
নৌ-থানা, নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি ও কোস্টগার্ড ক্যাম্পের পাশেই নদীতে জেলেরা যেনো বিনে বাধায় জাটকা নিধন করছে। নদীতে একপাশে নৌ-পুলিশ, কোস্টগার্ড ও মৎস্য বিভাগের লোকজনের টহল চলে অপর পাশে অসাধু জেলেরা জাটকা নিধন করছে। এ যেনো ইঁদুর-বিড়াল খেলার মতো।
যা বিগত বছর অভয়াশ্রমের সময় দেখা যায়নি।

একটি সূত্র জানায়, চাঁদপুর নৌ থানার একশ মিটারের মধ্যে অবস্থিত টিলাবাড়ি এলাকার আলী হোসেন, কামরুল ইসলাম, নূর মোহাম্মদ, জাকির মোল্লা ও সোবহান চোকদারের নেতৃত্বে অর্ধশত জেলে নৌকা প্রতিদিন জাটকা নিধন করছে। পুরাণবাজারের শাহাদাত পাটওয়ারী, লিটন গাজী, জান্না মাস্টার, রফিক শেখ, শাহজাহান গাজীর নেতৃত্বে পুরাণবাজার ফায়ার সার্ভিস, হরিসভা, গোয়ালঘর, বাবুর্চিঘাট এলাকায় শতাধিক জেলে নৌকা কারেন্টজাল দিয়ে জাটকা নিধন করে আসছে। রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের দেওয়ান বাজারে রফিকুল দেওয়ান, তাজুল দেওয়ান, হাছান দেওয়ান, ফয়সাল বেপারী, লক্ষ্মীরচরের মুকুল মেম্বার, ওচমান গাজী, সরাফত গাজী, সলেমান বকাউল, আলী বকাউল, বাশগাড়ীয়া চরের হানিফা মেম্বার, ইউসুফ বন্দুকসী, শাহজালাল বন্দুকসী, বহরিয়ায় ফরিদ মাঝি, মুতু মাঝি, মনু মাঝি, মুছা মাঝির নেতৃত্বে জাটকা নিধন করা হচ্ছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।

দেখা যাচ্ছে, ১০/১৫ হাত দৈর্ঘ্যের একটি জেলে নৌকায় ১০/১২ জন জেলে জাটকা নিধন করে।

এদিকে নদীর তীরবর্তী মতলব উত্তর, চাঁদপুর সদর, হাইমচর উপজেলা, শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ, নড়িয়া, জাজিরা, গোসাইরহাট, ডামুড্ডা উপজেলার জেলেরা এক জেলা থেকে অন্য জেলায় ও উপজেলায় গিয়ে জাটকা নিধন করায় তাদের মাধ্যমে করোনা সংক্রমণের আশঙ্কাও দেখা দিয়েছে।
গত ৪ এপ্রিল ভোর রাতে চাঁদপুর সদর উপজেলার রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের জাটকা আড়তদার রফিকুল দেওয়ানের স্পীডবোটের সাথে শরীয়তপুরের ফিরোজ খানের স্পীডবোটের শরীয়তপুরের কাছিঘাটায় পদ্মা নদীতে মুখোমুখি সংঘর্ষে ২জন স্পীডবোট কর্মচারী মারা যায়। সেই সব স্পীডবোটও জাটকা নিধনে ব্যবহার হয় বলে জানা যায়।

এ ব্যাপারে চাঁদপুর নৌ-থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জাহিদুল ইসলাম বলেন, আমরা নিয়মিত নদীতে অভিযান চালাচ্ছি।
প্রায় প্রতিদিন জাটকাসহ জাল উদ্ধার করছি। জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আসাদুল বাকি বলেন, চাঁদপুরের নদীতে নৌবাহিনী, কোস্টগার্ড ও নৌ-পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। আসলে রাতে নদীতে অসাধু জেলেদের সংখ্যা এতো বেশি এবং এরা এতো সশস্ত্র থাকে যে, অনেক সময় ঠিকমতো নদীতে অভিযান করা যায় না। এজন্যে কুমিল্লা র‌্যাবের সাথে কথা হয়েছে। র‌্যাবের একটি টীম ইতিমধ্যে চাঁদপুরে এসে দেখে গেছে। সহসাই ফোর্স বাড়িয়ে যৌথভাবে অভিযান চালানো হবে বলে তিনি জানান।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ