আজ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ ইং

সোমভাগ ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক: রনজিদ পাল :

ঢাকা জেলার ধামরাই থানাধীন সোমভাগ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আওলাদ হোসেনের অনৈতিক কার্যকলাপ, নারী শ্লীলতাহানী,সম্ভ্রম হানী,চাঁদা দাবী ও নারী

নির্যাতনকারী সহ একাধিক অনৈতিক কার্যকলাপের সুনির্দিষ্ট অভিযোগ এনে ধামরাই উপজেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন সুরাইয়া আক্তার।

শুক্রবার (৫ই আগষ্ট) সকাল দশটার দিকে মোকামটোলাস্থ ধামরাই উপজেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে সুরাইয়া আক্তার বলেন- আমি ঢাকা জেলার ধামরাই থানাধীন সোমভাগ ইউনিয়নের বাসিন্দা, আমি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতি বিশ্বাস করি।

আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সক্রিয় সদস্য একই সাথে ধামরাই আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সদস্য।

তৃণমূল আওয়ামী রাজনীতির সাথে অতোপ্রতো ভাবে জড়িত। আমি পৈত্রিক ওয়ারিশ সূত্রে গাওয়াল মৌজায় ০৮ শতাংশ জমির মালিক।

আমি ও আমার পরিবারের সদস্যরা উক্ত জমিতে উন্নয়ন মূলক কাজ যেমন- একতলা ছাদ বিশিষ্ট বিল্ডিং করতে যাই তখন চেয়ারম্যানের লোকজন ও বখাটে সন্ত্রাসী বাহিনীদ্বারা আমার উন্নয়ন মূলক কাজ মৌখিক ভাবে বন্ধ করার নির্দেশ দিয়ে যায় সেই সাথে অসৎ উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য ইউনিয়ন পরিষদ বন্ধ থাকা সত্ত্বেও ইউনিয়ন পরিষদে যাওয়ার জন্য বলে যায়।

আমার ব্যক্তিগত মোবাইল ০১৭১৫১২৪৬৬৮ নাম্বারে চেয়ারম্যান তাহার মোবাইল  নাম্বার থেকে আমাকে কল করে।

আমি সরল বিশ্বাসে সরকারি ছুটির দিন তাহার ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয়ে যাই।কার্যালয়ের গোপন জানালা বন্ধ থাকা অবস্থায় আমার প্রতি কুনজর দেয় এবং অনৈতিক কার্যকলাপের কুপ্রস্তাব দেয়।

আমি তাহার কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সে আমার উপর তার অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য ঝাপিয়ে পরে এবং তিনি চেয়ার থেকে উঠে হাত টান দেয় ও আমাকে হেনস্তা করে।

আমি আত্মরক্ষার্থে তার বাম হাতে কামড় দেই এবং নিজের সম্মান বাচানোর জন্য চিৎকার দিলে আমার ছেলে সহ অন্যান্যরা আগাইয়ার আসিলে দুশ্চরিত্রবান চেয়ারম্যান আওলাদ হোসেন আমাকে ছেড়ে দিয়ে ভবিষ্যতে আমাকে দেখাইয়া দিবে বলিয়া শাষিয়ে দেয়।

বর্তমানে ভূমিদস্যু,চাঁদাবাজ,নারী নির্যাতনকারী আওলাদ চেয়ারম্যানের কারণে আমি চরম নিরাপত্তা হীনতায় দিন যাপন করিতেছি।

বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য স্বরজমিনে তদন্ত পূর্বক প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের বিচারের জন্য জোর দাবী জানাচ্ছি এবং তাকে তার সংশ্লিষ্ট দাপ্তরিক ও প্রশাসনিক কাজ থেকে বিরত রাখার জন্য বিনীত প্রার্থনা করিতেছি।

অতএব প্রার্থনা, বিচারের স্বার্থে উপরোক্ত ঘটনার সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত পূর্বক চেয়ারম্যান আওলাদ এর বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা পূর্বক দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী শাস্তি প্রদান দাবী করেন সেই সাথে সাংবাদিকবৃন্দের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন সুরাইয়া আক্তার।

এ’সময় ধামরাই উপজেলা প্রেসক্লাবের প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় বিভিন্ন সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ