আজ ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১২ই এপ্রিল, ২০২৪ ইং

ধামরাইয়ে করোনার কারনে বিবর্ণ বৈশাখ-১৪২৭ বঙ্গাব্দ

 

রনজিত কুমার পাল (বাবু)
নিজস্ব প্রতিবেদক:

করোনা ভাইরাস( কোভিড-১৯) প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী সামাজিক দূরত্ব বজায় কারনে ধামরাইয়ের সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সারা দেশের মতো শুভ বাংলা নববর্ষ উৎসব পালিত হয়নি।
সকল বৈশাখী অনুষ্ঠান সহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। ধামরাই বড় বাজার সুপ্রাচীন কাল থেকে পহেলা বৈশাখ দিগম্বরী মেলা বসে। এবার ঐতিহাসিক এ’মেলাও বন্ধ রয়েছে। শুধুমাত্র মা জশাই অঙ্গনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে পূজা-অর্চনা করে ভক্তরা বাড়ি চলে গেছে।
অপর দিকে ঐতিহ্যবাহী শ্রীশ্রী যশোমাধব মন্দিরে ভক্তবৃন্দ নতুন পোশাক পরে মন্দিরে গিয়ে দেববিগ্রহে প্রণাম করে সকল ভক্তরা জড়ো হয়ে এক আনন্দঘন পরিবেশের সৃষ্টি হতো এবার করোনার কারণে তার চিত্র ভিন্ন মনে হলো এবার বিবর্ণ এক বৈশাখ পেলাম। মন্দিরে হাতে গুনা কয়েকজন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিল। তারা সবার সাথে মোবাইলের মাধ্যমে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছে। উক্ত মন্দির পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি শ্রী দেবেশ রায় মৌলিক জানান করোনার প্রাদুর্ভাব এর কারণে ফোন করেই সভাপতি মেজর জেনারেল (অবঃ) জীবন কানাই দাসের সাথে শুভ নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময় করলাম। আমাদের আরাধ্য দেবতা যশোমাধব এর কাছে প্রার্থনা জানাই করোনার প্রাদুর্ভাব থেকে মুক্তি দিক, সবাইকে এ” মহামারীর প্রকোপ থেকে উদ্ধার করুক ভগবান এই হোক সকল মানুষের সম্মিলিত চাওয়া। কেউ কেউ প্রতিবারের মতন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বছর শেষে ধুলা আর্বজনা পরিস্কার করে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে কয়েক মিনিটের জন্য সামান্য খুলে আচার ধর্মীয় রীতি নীতি অনুষ্ঠান পালন শেষে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিয়ে চলে যান নিজ বাড়িতে।
এতে সকল শ্রেণীর ব্যবসায়ীদের ব্যাপক আর্থিক ক্ষতির সম্মুখিন হতে হয়েছে।এ ক্ষতি কিভাবে পুষাবে সে নিয়ে চিন্তায় সকল ব্যবসায়ীরা।

ধামরাইয়ের অল্প সময়ের জন্য নতুন হিসাব খাতা শুরু ও অনুষ্ঠান করতে সামান্য সময়ের জন্য ব্যবসায়িরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে যার যার ব্যবসায়ি প্রতিষ্ঠানেে এসে সুদীর্ঘ কালের ঐতিহ্য ও ধর্মীয় রীতি নীতি আচার অনুষ্ঠাদি পালন শেষে তারা জানান সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী আমরা এখনই বন্ধ করে দিবো। সারা বছরের অনেক বাকি রয়েছে ক্রেতাদের কাছে পহেলা বৈশাখ মিষ্টি মুখের মাধ্যমে বকেয়া টাকা পাওয়া যেত। এবার সম্পূর্ণ বন্ধ।এতে ব্যবসায়ীদের বিরাট ক্ষতির সম্মুখিন হতে হয়েছে।

ধামরাই পৌর সভার ১নং ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি মিষ্টি ব্যবসায়ী প্রাণ গোপাল পাল বলেন বিরাট ক্ষতির মধ্যে পড়েছি। পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে সবচেয়ে মিষ্টি বিক্রি বেশী হয়। এতে সারা বছরের রুটি-রোজীর বেশী অংশ আয় হয়। এবার অর্ডারতো দুরের কথা সব বন্ধ। এইতো দোকান খুলে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান করলাম। কয়েক মিনিটের মধ্যেই বন্ধ করে চলে যাবো বাড়ি।প্রার্থনা করলাম দেশের সকলেই যেন সুস্থ্য ও ভালো থাকি। এই মহামারী থেকে ঈশ্বর যেনো আমাদের মুক্তি দেন বলেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ