আজ ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২শে এপ্রিল, ২০২১ ইং

মানবিক জনপ্রতিনিধি মুরাদ মেম্বার

 

রাশিম মোল্লা:

 

কেরানীগঞ্জ উপজেলার তিন নম্বর ওয়ার্ড। এই এলাকায় রয়েছে খেটে খাওয়া হাজারো মানুষ। মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে গত ১৫ দিন ধরে এসব দিনমজুর আর নিম্নআয়ের মানুষ কাজে যেতে পারছে না। যানবাহন চালক যানবাহন নিয়ে বের হতে পারছেন না। নিম্নআয়ের মানুষ কাজে যোগদান করতে পারছে না। এমতাবস্থায় এসব মানুষের মধ্যে দেখা দেয় চরম খাদ্য সংকট। পরিবারের ছোট্ট শিশুদের মধ্যে লেগে গিয়েছে খাবারের হাহাকার। জনগণের এসব কষ্টের কথা বুঝতে পেরে করোনা ভাইরাসের শুরুতেই ভাড়াটিয়াদের প্রায় ৪ লাখ টাকা ভাড়া মওকুফের ঘোষণা দেন তিনি। নিমিষেই পুরো এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে তার এই ঘোষণা। এই ঘোষণা এলাকায় ব্যাপক সাড়া পড়ে। এলাকার অন্য ভাড়াটিয়াদের মধ্যে কৌতুহল জাগে, কে এই মহান ব্যক্তি? তিনি হচ্ছেন একজন ওয়ার্ড মেম্বার। তিনি শুভাঢ্যা ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। নাম তার হাজী মো. মুরাদ হোসেন। তিনি জানান, সরকারি কোনো সহযোগিতা পাননি তিনি। তাতে কি? বসে থাকা তো আর যায় না। কর্মহীন, দুস্থ, মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে চার হাজার ৫‌শ পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি। আর এসব খাবার মিলবে শুধু একটি ফোন কলেই। যেই কথা সেই কাজ। মধ্যবিত্ত অস্বচ্ছল পরিবারের যারা ফোন দিচ্ছেন তাদেরকে রাতের অন্ধকারে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে এসব খাদ্যসামগ্রী। এছাড়া প্রতিদিন ১৫০টি পরিবার মাঝে বিতরণ করছেন খাদ্যসামগ্রী। এসব খাদ্যসামগ্রীতে রয়েছে এক কেজি আটা, আধা কেজি পেঁয়াজ, আধা কেজি মশুরের ডাল, এক কেজি আলু ও দুই কেজি চাল। মাসব্যাপী চলবে তার এই কার্যক্রম।
শুধু খাদ্যসামগ্রী নয়। এর আগে তিনি ২৫ মার্চ তার সকল ভাড়াটিয়াদের একমাসের ভাড়া (৪ লাখ টাকা) মওকুফের ঘোষণা দেন। এরইমধ্যে করোনায় মৃত্যুবরণ করা লাশের জানাজা ও দাফন করার জন্য ৫০ সদস্যের একটি স্বেচ্ছাসেবী টিম গঠন করা হয়েছে। তাদের জন্য সংগ্রহ করা হয়েছে পিপিই। এই ঘোষণার পর থেকেই স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন ও সাধারণ মানুষের প্রশংসায় ভাসছেন এই জনপ্রতিনিধি। এ ব্যাপারে কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) কামরুল হাসান সোহেল বলেন, দেশের এই জরুরি মুহূর্তে কেরানীগঞ্জের বিত্তবানদের তার মতো অন্যদেরকেও এগিয়ে আসতে হবে। সরকারের পাশাপাশি যারা সমাজের উন্নয়নে নিজ উদ্যোগে ভূমিকা রাখেন, তারা যদি বর্তমান সময়ে এগিয়ে আসেন তাহলে দুঃখী মানুষের অনেক উপকার হবে।
এ ব্যাপারে কথা হয় মুরাদ মেম্বারের সাথে। তিনি বলেন, দেশের বর্তমান অবস্থার কথা বিবেচনা করে আমার যে বাড়ি ভাড়া সেটা একমাসের জন্য মওকুফ করে দিয়েছি। আমি আশা করি আমাকে দেখে অন্য আরো অনেক বাড়িওয়ালাও তাদের ভাড়াটিয়াদের ভাড়া মওকুফের জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন। তিনি বলেন, আমার এই ৩নং ওয়ার্ডে ২৬ হাজার ভোটার আছে। এর মধ্যে দিনমজুর পরিবারের সংখ্যাই বেশি। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য আমার ওয়ার্ডের মানুষের জন্য আমি কোনো সরকারি-বেসরকারি সাহায্য সহযোগিতা কিংবা ত্রান পাইনি। তাই প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু ভাই ও উপজেলা শাহিন আহমেদ ভাইয়ের দিক-নির্দেশনায় নিজস্ব অর্থায়নে প্রাথমিকভাবে মাসব্যাপী মোট সাড়ে ৪ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করার উদ্যোগ নিয়েছি। আমার ওয়ার্ডের কেউ খাদ্যাভাবে পড়লে সংকোচ না করে, আমাদের ফোন দিলে আমরা গোপনে তার বাসায় খাবার পৌঁছে দিবো। আমার ওয়ার্ডের প্রতিটি মসজিদে নাম্বার দেওয়া আছে এবং একদল সেচ্ছাসেবী কাজ করছে মাঠ পর্যায়।
তিনি আরো বলেন, জনগণ প্রথমবার ভোট দিয়ে আমায় নির্বাচিত করেছেন এবং তাদের ভালোবাসায় আমি দ্বিতীয়বার বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় পাস করেছি। তাই আমি দায়িত্ববোধ থেকে আমার ওয়ার্ডের জনগণের পাশে এই দুর্যোগের সময়ও থাকতে চাই। আর মাসব্যাপী দেয়ার পরেও যদি প্রয়োজন হয় তাহলে এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

কেরানীগঞ্জের সকল মেম্বারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি আহ্বান জানান, আমরা যদি আমাদের সকল মেম্বারের আগামী ৬ মাসের বেতন সরকারের কোষাগারে দিয়ে দেই, তাহলে সেই অনুদান দিয়ে অনেক অসহায় মানুষের খাবার যোগান দিতে পারবে। আমি আমার আগামী ৬ মাসের বেতন সরকারের কোষাগারে দিয়ে দিবো এবং কেরানীগঞ্জের সকল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের কাছে অনুরোধ করছি আপনারা ও আপনাদের বেতন সরকারের কোষাগারে দিয়ে দেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ