আজ ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৭ই মে, ২০২১ ইং

ধামরাইয়ে অকারণে ঘোরাফেরার কারণে আটজনকে জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত

 

রনজিত কুমার পাল (বাবু)
নিজস্ব প্রতিবেদক

শনিবার (১১ই এপ্রিল) ধামরাইয়ের বাজার গুলোতে মোবাইল কোর্টের অভিযানে কেনাকাটার অজুহাতে ঘুরাফেরার কারনে আট জনকে দুই হাজার দুই শত টাকা জড়িমানা করেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) অন্তরা হালদার। সেইসাথে সবাইকে সতর্ক করা হয়েছে সরকারী নির্দেশনা অমান্য করে বের হলেই জরিমানা মুদি ও কাচা বাজার দুইটা পর্যন্ত খোলা রাখার পরিবতে স্থানীয় প্রশাসনের নিদের্শে সকাল এগারটা পর্যন্ত খোলা রাখার কথা বলেন।

করোনা ভাইরাস নিয়ে ধামরাইয়ে সাধারন মানুষের মাঝে কোনো প্রভাব পড়ছে না।সারাদেশে যখন চরম আতংক ও করোনা বিষয়ে সরকার ব্যাপক প্রচার করে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে সর্তকতা অবলম্বন করছেন,তখন ঢাকার পাশে ধামরাই সদর সহ আশপাশে মানুষ ও যানবাহন চলছে অবাদে। সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখছে না।

ধামরাই পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব গোলাম কবীর বলেন করোনা সংক্রান্ত বিষয়ে জনগনকে সচেতন করতে প্রতিদিন ব্যাপক প্রচার ও কারোনার কারনে বেকার হয়ে পড়া মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরন থেকে শুরু করে মাক্স, হ্যান্ড ওয়াশ এলাকায় জিবানু নাশক স্প্রে করছিএরপরও মানুষ ধামরাইয়ের বিভিন্ন স্থানে অস্বাভাবিক ভীড় করছে।

ধামরাই পৌর বাজারের প্রধান সড়কের উপর বিশাল বাজার বসে বহু বছর ধরে। সরকারী কঠোর নির্দেশনা ও উপজেলা ,পৌর সভা কর্তৃপক্ষ ও থানা প্রশাসনের উদ্যোগে চলছে করোনা বিষয়ে নিরাপত্তা মুলক প্রচার প্রচারনা ও মাইকিং। পাশাপাশি এই উদ্যোগ অমান্য করে শিক্ষিত বা অশিক্ষিত সকল শ্রেণীর মানুষ তা অমান্য করে দিন থেকে দুপুর অবদি ঘর থেকে বের হয়ে বাজারে চলাচল করছেন।
ধামরাই বাজার যেন ক্রেতাদের উৎসব। এমন পরিস্থিতির দ্রুত আরো প্রযোজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন জরুরী।ধামরাইয়ের মেয়র গোলাম কবীর নির্দেশ অমান্য করে গাড়ি চালালে তাকে সচেতন করেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ