আজ ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৮ই মে, ২০২১ ইং

লকডাউনের পরেও ঢাকা- নারায়ণগঞ্জ থেকে চাঁদপুরে পালিয়ে এসেছে ৫৯৪ জন

 

ইব্রাহীম খলীল সবুজ – চাঁদপুর প্রতিনিধিঃ

 

চাঁদপুর জেলাকে এখন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত জেলা হিসেবে চিহ্নিত করা যেতে পারে।
কারণ, মতলব উত্তর উপজেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত একজন রোগী শনাক্ত হয়েছে। তবে সংখ্যার বিবেচনায় এটিকে স্বাভাবিকভাবে দেখলে হবে না। এখানে মূল বিষয় হচ্ছে- লোকটি নারায়ণগঞ্জ থেকে এসেছে। আর ঢাকা এবং নারায়ণগঞ্জ হচ্ছে করোনায় আক্রান্তের দিক দিয়ে দেশের শীর্ষে। এটিই হচ্ছে আতঙ্কের কারণ। নারায়ণগঞ্জের অবস্থা খারাপ দেখে মতলব উত্তরের জামাই ওই যুবকসহ প্রচুর লোক চাঁদপুর ঢুকে পড়েছে।
সরকারি হিসেবে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ থেকে এ পর্যন্ত পালিয়ে চাঁদপুরে ঢুকেছে এমন লোকের সংখ্যা হচ্ছে ৫শ’ ৯৪ জন। আর হিসেবের বাইরে তো রয়েছে আরো অনেক।

চাঁদপুর জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে গতকাল সর্বশেষ পাওয়া তথ্য হচ্ছে- গত ক’দিনে চাঁদপুরে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ থেকে পালিয়ে এসেছে ৫শ’ ৯৪ জন। যেহেতু এরা করোনা আক্রান্ত জেলা থেকে এসেছে এবং অনেকে লকডাউন থেকে পালিয়ে এসেছে তাই এদের সবাইকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। কিন্তু, এই লোকগুলো যে
হোম- কোয়ারেন্টাইনে থাকবে এ বিষয়টি নিশ্চিত করার কোনো ব্যবস্থা লক্ষ্য করা যায় নি।

উপজেলা ভিত্তিক এই ৫শ’ ৯৪ জন হচ্ছে, চাঁদপুর সদর ১২৫, হাইমচর ৪৮, মতলব উত্তর ১১৮, মতলব দক্ষিণ ২১, ফরিদগঞ্জ ৩৩, হাজীগঞ্জ ৬৯, কচুয়া ৪৬ ও শাহরাস্তি ১৩৪ জন।

এদিকে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ থেকে এতো বিপুল পরিমাণ মানুষ পালিয়ে চাঁদপুরে চলে আসাটা নৌ পুলিশের গাফিলতিই অনেকটা দায়ী। এসব মানুষের ৯০ ভাগই এসেছে নদী পথে ট্রলারসহ অন্যান্য ছোট ছোট নৌ যানে করে। কারণ, ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের কাছাকাছি এবং সহজ ও কম সময়ের পথ হচ্ছে চাঁদপুর। তাই মানুষগুলো চাঁদপুরের দিকেই আসছে।
অথচ এই নদী পথকে যদি কড়া পাহারায় রাখা হতো তাহলে অবশ্যই এই মানুষগুলোর প্রবেশ ঠেকানো যেতো।
এ বিষয়ে জেলা প্রশসন থেকে গুরুত্ব দিলেও কিন্তু এটি তেমন একটা আমলে নেয়নি নৌ পুলিশসহ প্রশাসন।
তখন মাত্র ২/৪ জন করে নারায়ণগঞ্জ থেকে আসা শুরু করেছে।
এদিকে তারও আগে চাঁদপুর পুলিশ সুপার কার্যালয়ের বিশেষ শাখা থেকে লিখিত এবং মৌখিকভাবে নৌ পুলিশ সুপারকে নদী পথে সতর্ক দৃষ্টি নেয়ার জন্যে গুরুত্বের সাথে বলা হয়।
জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান নিজেও নৌ পুলিশ সুপারকে এ বিষয়ে একাধিকবার সতর্ক করেছেন। কিন্তু তিনি এ বিষয়টি তেমন একটা আমলে নেন নি।
যার কারণে করোনাপ্রবণ জেলার এতো সংখ্যক মানুষকে নিয়ে চাঁদপুর জেলাই এখন ঝুঁকির মুখে পড়ে আছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ