আজ ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

লালমনিরহাটে ঢাকা ফেরৎদের বাড়িতে পুলিশের অভিযান একটি বাড়ি লকডাউন

 

মজিদুল হক লালমনিরহাট (সদর)

 

বিশ্বের প্রায় সব দেশই এখন কোভিড ১৯ এর সংক্রমণে ১৬ লাখ মানুষ অাক্রান্ত। ইতোমধ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এটিকে ১৯৩০ সালের পর ভয়াবহ বৈশ্বিক স্বাস্থ্য দূর্যোগ বলে ঘোষনা দিয়েছে। যেই দেশে করোনাভাইরাসের প্রকোপ দেখা দিয়েছে সে দেশগুলোই এর পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে চিকিৎসা গত দিক থেকে হিমশিম খেয়েছে। এর ব্যতিক্রম নয় বাংলাদেশও অাছে অস্বাভাবিক স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে। তথ্যমতে রাজধানী ঢাকাতে এই রোগীর সংখ্যা দেশের জেলাগুলোর তুলনায় বেশি। এরই মধ্যে যারা ঢাকা ছাড়ছে তাদেরও রয়েছে এই ভাইরাসের ঝুঁকি। সরকারি অাদেশ অনুযায়ী গন পরিবহন বন্ধ থাকলে বিভিন্ন উপায়ে ঢাকা ছাড়ছে মানুষ।
তাদের দ্বারা যাতে এই ভাইরাস না ছড়ায় সেজন্য লালমনিরহাট জেলা প্রসাশনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে কঠোর ব্যবস্থা। সে লক্ষ্যেই নিরলস কাজ করে যাচ্ছে লালমনিরহাট জেলা পুলিশ।
অাজ লালমনিরহাট সদর উপজেলার খুনিয়াগাছ ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের (ছেকনাপাড়া) ঢাকা ফেরৎ দুজন অাসায় ঐ বাড়িতে লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে দেয় এবং ঐ বাড়িকে পুরোপুরি লকডাউন ঘোষনা লালমনিরহাট সদর থানা পুলিশ।
ঢাকা ফেরৎ ব্যক্তিরা হলেন ঐ এলাকার মৃত অাব্দুল জলিলের ছেলে স্বপন মিয়া ও তার সহধর্মিণী জান্নাতি বেগম। তবে স্থানীয়রা জানান, স্বপন মিয়ার বড়ভাই শাহীন মিয়াও ঢাকা ফেরৎ কিন্তু সে পুলিশের অাসার কথা শুনে অাত্মগোপনে চলে যায়।
এ বিষয়ে মুঠোফোনে লালমনিরহাট সদর থানার এস. অাই হালিমুর রহমান দৈনিক অাগামীর সংবাদকে বলেন, অামরা সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে ঐ এলাকায় যাই এবং ঢাকা ফেরৎ ব্যক্তিরা গতকাল এসেছিল এ বিষয়ে জানতে পারি অামরা নিয়ম অনুযায়ী ঐ বাড়িতে লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে দিয়ে লকডাউন দিয়েছি। তার বড় ভাই অাত্মগোপনে অাছে এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অামরা গিয়ে তাকে পায়নি তবে অভিযোগ যেহেতু অাছে অামরা তাকে যথাযথ নিয়মের মধ্যে নিয়ে অাসার চেষ্টা করবো।

ঐ এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় এই ঘটনার পর থেকেই এলাকায় অাতংক বিরাজ করছে।
স্থানীয়দের মধ্যে জসিম উদ্দিন নুরের সাথে কথা হলে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, প্রশাসন যতটা তৎপর থাকার কথা বলছে ততটা তারা না। কারন লালমনিরহাট জেলায় কোন যানবাহন প্রবেশ করতে পারবে না জেলা প্রশাসনের এরকম নির্দেশ থাকলেও তারা কিভাবে ঢাকা থেকে অাসতে পারে। তিনি অারো জানান গত ২৫ তারিখ থেকে সরকার কর্তৃক বিধিনিষেধ দেওয়ায় এলাকার খেটে খাওয়া মানুষের মাঝে চরম বিপর্যয় নেমে এসেছে। তিনি বলেন সরকারের দেয়া ত্রান সুবিধা যেন ঐ এলাকার মানুষ সঠিকভাবে পায় এ ব্যাপারে জেলা প্রসাশনের কর্মকর্তাদের সদয় দৃষ্টি দেওয়ার জন্য জোড়লো দাবি জানাচ্ছি।

লালমনিরহাট সদর থানার এস.অাই মিজানুর রহমানের সাথে এক অালাপচারিতায় তিনি বলেন, অাগের থেকে অামরা এসব বিষয়ে এখন অনেক কঠোর। ঢাকা থেকে যেই অাসুক না কেন অামরা কোয়ারেন্টাইনে থাকার জন্য নির্দেশনা দিয়ে অাসছি এবং সাধারন মানুষদেরকে অামরা বিভিন্নভাবে সচেতন করার কাজ করছি তাছাড়া জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে অামরা সদর থানা পুলিশ নিরলস কাজ করে যাচ্ছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ