আজ ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৪শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

গুলিবিদ্ধ রিয়াজ মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন

বিশেষ প্রতিবেদন 

চাঁদার টাকার ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে বিরোধের জেরে সন্ত্রাসীদের গুলিতে গুরুতর আহত হয়ে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন রয়েছেন চাঁদাবাজ রিয়াজ। তিনি গত দুই দিন ধরে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

গত ৮ ডিসেম্বর রাত ১১ টার দিকে আশুলিয়ার পল্লিবিদ্যুৎ এলাকার নিজ ভাড়া বাসায় যাওয়ার সময় তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে গুলি করে তারই গডফাদার। বিভিন্ন পরিবহন ও পরিবহন স্ট্যান্ডের চাদার টাকা ভাগ বাটোয়ারার জেরে তাকে গুলি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

খোজ নিয়ে জানা যায়, আশুলিয়ার ধামসোনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের ক্যাডার হিসেবে ওই এলাকায় ব্যাপক পরিচিত ক্যাডার রিয়াজ ও মাহবুব। মাহবুবের নেতৃত্বে আশুলিয়ার নবীনগর থেকে বাইপাইল পর্যন্ত বিভিন্ন পরিবহন ও পরিবহন স্ট্যান্ড থেকে চাঁদা উঠানোর কাজ করতো রিয়াজ। তারা ওই এলাকার বিভিন্ন স্থানে চেয়ারম্যান সাইফুলের ক্যাডার পরিচয়ে দাপিয়ে বেড়াতো এবং চাদা উঠাতো। সেই চাদার টাকার ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে তাদের দুই জনের মধ্যে ঝামেলা চলছিলো। এরই জেরে রিয়াজ বাড়ি ফেরার সময় সুযোগ বুঝে গতিরোধ করে মাহবুব ও তার বাহিনী। প্রথমে এলোপাথারি মারধর করলে জীবন বাঁচানোর তাগিদে রিয়াজ দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। এসময় তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে তার পেটে বিদ্ধ হয় গুলি। এসময় প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়ে অচেতন হয় রিয়াজ। পরে তাকে মৃত ভেবে ফেলে রেখে চলে যায় সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ও গুলির খোসা উদ্ধার করে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একই গ্রুপের আরেক ক্যাডার বলেন, যারা গুলি করেছে ও গুলি খেয়েছে তারা সবাই ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুলের লোক। তারা সবাই চাঁদা তোলার কাজ করতো।

সাভার উপজেলার ধামসোনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম এর কাছে জানতে চাওয়া হয় প্রশ্ন (১) এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গুলিবিদ্ধ রিয়াজ কে চিনেন? উত্তরে বলেন রিয়াজকে চিনি। প্রশ্ন (২) রিয়াজ কি আপনার কাজ করে? উত্তরে বলেন আমার স্টাফ ও না রিয়াজ। প্রশ্ন (৩) আপনি কি মাহবুব নামে কাউকে চিনেন? উত্তরে বলে না আমি চিনি না। তিনি আরও বলেন তারা আওয়ামীলীগের রাজনীতি করে এইটুকু জানি। এবং কি কারনে হামলার ঘটনা ঘটলো তা জানা নেই।

আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক রিজাউল হক দীপু বলেন, এখনো থানায় মামলা কিংবা অভিযোগ হয় নি। কি কারনে গুলি করা হয়েছে তা এখনো স্পষ্ট নয়। তবে বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে ও এর সাথে জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে। ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মারুফ হাসান সরদার জানায় গুলির ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে। দ্রুতই গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে বলে জানান তিনি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ