আজ ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জানুয়ারি, ২০২১ ইং

চাঁদপুর জেলার সমস্ত প্রবেশমুখ লকডাউন করার আহ্বান জেলা পরিষদের

ইব্রাহীম খলীল সবুজ – চাঁদপুর প্রতিনিধিঃ

 

নোবেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চাঁদপুর জেলার সমস্ত (৫টি) প্রবেশমুখ লকডাউন করার জন্যে উপজেলা প্রশাসন, সেনাবাহিনী ও পুলিশ প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন চাঁদপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ ওসমান গণি পাটওয়ারী।
তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত চাঁদপুর জেলা করোনামুক্ত হলেও আশপাশের কয়েকটি জেলা বিশেষ করে নারায়ণগঞ্জ করোনায় মারাত্মকভাবে আক্রান্ত। এ অবস্থায় চাঁদপুরকে করোনামুক্ত রাখতে ও সংক্রমণ রোধ করতে জরুরি ভিত্তিতে জেলার প্রবেশমুখগুলো লকডাউন করতে হবে।
যাতে করে কেউ অন্য জেলা থেকে চাঁদপুরে প্রবেশ করতে না পারে এবং এখানকার কেউ অন্যত্র না যেতে পারে। আর অতি জরুরি ক্ষেত্রে অত্যন্ত সীমিত পরিসরে কারো কারো আসা-যাওয়ার একান্ত প্রয়োজন হলে সর্বোচ্চ সুরক্ষা নিশ্চিত করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। এক্ষেত্রে যানবাহন ও আসা-যাওয়া লোকদের জীবাণুনাশক স্প্রে করা, সংশ্লিষ্টদের মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করতে হবে।

এক বিবৃতিতে তিনি বলেন,
গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এক মাসের ব্যবধানে রোগী ও মৃত্যুর হার অনেক বেড়েছে সারাদেশে। তাছাড়া চলতি এপ্রিল মাসকে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করছেন বিশেষজ্ঞরা। আশার কথা হচ্ছে, চাঁদপুর জেলায় এখন পর্যন্ত কোনো করোনা রোগী শনাক্ত হয়নি। তবে চরম উদ্বেগ ও আশঙ্কার বিষয় হচ্ছে, চাঁদপুর জেলার পাশবর্তী শরীয়তপুর, কুমিল্লা, মুন্সীগঞ্জে স্বল্পহারে এবং অদূরবর্তী মাদারীপুর, নারায়ণগঞ্জ ও ঢাকায় ব্যাপক হারে করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে।
মারা গেছেন অনেকে। এসব জেলার সাথে চাঁদপুরের মানুষের ব্যবসা, চাকুরি, কর্মসংস্থান ও সামাজিক কারণে যাতায়াত দীর্ঘদিনের। এসব জেলার সাথে চাঁদপুরের যাতায়াত আগের মতো অব্যাহত থাকলে চাঁদপুরে করোনার ব্যাপক সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে।
সম্ভাব্য এ ঝুঁকি ও শঙ্কা এড়াতে জরুরিভিত্তিতে আশপাশের জেলাগুলোর সাথে চাঁদপুরের সড়ক ও নৌপথের যাতায়াত পুরোপুরি বন্ধ রাখা জরুরি হয়ে পড়েছে।

বিশেষ করে গত ৭ এপ্রিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চাঁদপুরকে করোনা থেকে সুরক্ষায় চাঁদপুর-শরীয়তপুর রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা এবং পাশের জেলাসমূহ থেকে লোক আসা ঠেকানোর যে নির্দেশনা দিয়েছেন তা অতিদ্রুত বাস্তবায়ন করতে চাঁদপুরের জেলা, সেনাবাহিনীর দায়িত্বরত কর্মকর্তা ও সদস্য এবং পুলিশ প্রশাসনের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী, করোনায় কর্ম হারিয়ে বেকার হওয়া রিকশা চালক, সিএনজি অটোরিকশা চালক, বাস-ট্রাকের চালক-হেলপার, অটোবাইক চালকসহ বিভিন্ন ধরনের দিনমজুরসহ অসহায় মানুষকে সঠিক তালিকা করে সরকারি সহায়তা প্রদানের আহ্বান জানিয়েছেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান।
এসব সহায়তা প্রদান ও তালিকা করার ক্ষেত্রে জেলা, উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডপর্যায়ের জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ততা ও অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, এর ফলে সরকারি সহায়তার সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত হবে। কারণ জনগণের প্রতি নির্বাচিত জনপ্রতিধিদের জবাবদিহিতা, দায়িত্ব ও দায়বদ্ধতা রয়েছে। জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ত করার মাধ্যমেই ভুক্তভোগী-সুবিধাভোগী লোক ও তালিকা প্রণয়ন সঠিক এবং সহজতর হবে। জনপ্রতিনিধিরাই জানেন স্ব-স্ব এলাকায় কারা সরকারি সামাজিক নিরাপত্তা সুবিধা ভোগ করে আসছেন।
ফলে সর্বোচ্চ সংখ্যক লোককে সরকারি সহায়তার আওতায় আনা সম্ভব হবে।

চাঁদপুর জেলাবাসীর উদ্দেশ্যে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ ওসমান গণি পাটওয়ারী আরো বলেন, নোবেল করোনা ভাইরাস থেকে নিজেকে ও পরিবারের সদস্যদের বাঁচাতে আপনারা সবাই নিজ নিজ ঘরে অবস্থান করুন।
অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কোনো অবস্থাতেই ঘরের বাইরে অবস্থান করবেন না। পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। খাদ্য সহায়তার প্রয়োজন হলে ঘরে থেকেই জনপ্রতিনিধি ও সরকারি কর্মকর্তাদের মোবাইল ফোনে অবহিত করুন। যে কোনো অসুস্থতা বা করোনার উপসর্গ দেখা দিলে ঘরে বসেই স্ব স্ব উপজেলা/জেলার সরকারি হাসপাতালের মোবাইল ফোনে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী সরকারের সাথে সংশ্লিষ্ট আমরা সবাই আপনাদের পাশে আছি, পাশে থাকবো। আসুন, আমরা সবাই করোনা মুক্ত থাকতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শনাগুলো মেনে চলি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ