আজ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

মধ্যবিত্তদের পাশে ছবিঘর

 

প্রিন্স ঘোষ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকায় উন্নত অনেক দেশ এখন পুরোপুরি লকডাউন এ রয়েছে। ব্যতিক্রম হয়নি বাংলাদেশেও । বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বাড়ায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। দেশের প্রায় সব প্রতিষ্ঠান ও দোকান বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এতে থমকে গেছে জন জীবন। সবচাইতে বেশি ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে নিম্ন আয়ের মানুষদের। সরকারি এবং বেসরকারি ভাবে অনেক প্রতিষ্ঠান তাদের এই দূর্দিনে হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। কিন্তু তাছাড়াও সমাজের অনেক মধ্যবিত্ত পরিবার রয়েছে যাদের জীবন এখন থমকে গেছে , অনেকেই লোক লজ্জার ভয়ে হাত পাততে পারচ্ছেন না মানুষের কাছে। পাচ্ছেন না কোন সাহায্য সহযোগিতা। তাই দায়িত্বটা নিজেদের কাধে নিল কিছু তরুণ। এই অবস্থায় আর্থিক সমস্যায় পরা কিছু মধ্যবিত্ত্ব পরিবারের হাতে ছবিঘর সংগঠন্ তুলে দেয় নিত্য প্রয়োজনীয় কিছু দ্রব্য। করোনাভাইরস থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য তারা প্রতিটা পরিবারকে মাস্ক ও সাবানও দিয়েছেন। পাশাপাশি তারা পথ শিশুদের জন্য রান্না করা খাবারো দিয়েছেন । শহরকে জীবাণুমুক্ত রাখতে তারা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন স্থামে জীবাণু নাশক স্প্রে করেছে। সাধারণ মানুষকে টিসু পেপার দিয়ে একবার ব্যবহার্য মাস্ক বানানো ও সঠিকভাবে হাত ধুঁয়ার প্রশিক্ক্ষণ দিয়েছে। এই ব্যপারে ছবিঘরের একজন সদস্য সাকিব বলেন, ‘’দেশের এই পরিস্থিতিতে সবাইকে এক সাথে কাজ করতে হবে। এক জন আরেক জনের পাশে দাঁড়াতে হবে এবং ভালবাসার এক দৃষ্টান্ত তৈরি করতে হবে তবেই সৃষ্টিকর্তা আমাদের করোনাভাইরাস নামের এই বিপদ থেকে রক্ষা করবে’’। তিনি আরো জানান, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে হাত ধোঁয়ার অভ্যাস তৈরি করা জরুরী তাই তারা সবাইকে একটি করে সাবান দিয়েছেন। ত্রান পাওয়া একজন রিকশাচালক কার্তিক জানান,করোনাভাইরাসের কারনে সব কিছু বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তাদের আয় রোজগার অনেক কমে গিয়েছে , যা ইনকাম করে তাতে সংসার চালানো প্রায় অসম্ভব।গত তিন মাসে আগে তাদের এক প্রতিবেশি আগুনে পুরে যায় তিন মাসে আগে কিন্তু তার কোন আত্মীয়স্বজন না থাকায় আমাকেই তার খরচ চালাতে হয়। তাই এই ত্রান পাওয়াতে তাদের অনেক উপকার হয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ