আজ ২৭শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১০ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

ধামরাইয়ে হোম কোয়ারেন্টাইন মানছেন না নান্নার ইউনিয়নবাসী

রনজিত কুমার পাল ( বাবু) নিজস্ব প্রতিবেদক:

নভেন করোনা ভাইরাস (কোভিড- ১৯) প্রকোপ বিশ্বব্যাপী একটি আতঙ্ক হিসেবে দেখা দিয়েছে। মৃত্যুর মিছিলে প্রতিদিন শামিল হচ্ছে হাজারো মানুষ। অদৃশ্য এ মরণ ঘাতকটি মানুষের আরামের ঘুম হারাম করে দিয়েছে। এখনো পর্যন্ত বিজ্ঞানীরা এর প্রতিষেধক আবিষ্কার করতে পারেনি। করোনা ভাইরাস একটি সংক্রমণ ব্যাধি। তাই এটি বিস্তারের অন্যতম মাধ্যম হল পারস্পারিক সংস্পর্শ। এই মরণব্যাধির কোন ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে মুক্তির পৃথিবীর একমাত্র উপায় হল লকডাউন ও হোম কোয়ারেন্টাইন।
সে পথ ধরেই বাংলাদেশ সরকার পুরো দেশব্যাপী লকডাউন ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশের মানুষ আইন-কানুন ও নিয়ম নীতি মানতে খুব একটা অভ্যস্ত নয়। অপরদিকে জনসংখ্যার বিরাট অংশ দারিদ্র্য সীমার নিচে বাস করে বিদায় তাঁদের জীবনধারণের জন্য বিভিন্ন পেশার কারণে রাস্তায় বের হওয়ার প্রয়োজন পড়ে। সব মিলিয়ে লকডাউন খুব একটা মানা হচ্ছেনা বাংলাদেশের মানুষদের জন্য। ফলে ঘাতকব্যাধিটির বিস্তারের পথ থেকেই যাচ্ছে।
সময়ের ব্যবধানে লকডাউন মানার জন্য গত ২৬ শে মার্চ ২০২০ ইং থেকে সেনাবাহিনী মাঠে নামানো হয়। যার ফলে লকডাউন টা অনেক অংশেই আত্মস্থ হতে যাচ্ছে। সে হিসেবে গতকাল ৬ই এপ্রিল ধামরাই উপজেলার জনবহুল এলাকা বিশেষ করে ধামরাই বাজার, কালামপুর বাজার ইত্যাদি স্থানগুলো অনেকাংশেই লকডাউন এর প্রতিচ্ছবি ফুটে উঠেছে। পার্শ্ববর্তী সূয়াপূর ইউনিয়নে চেয়ারম্যানের হস্তক্ষেপে লকডাউন পূর্বে থেকেই সতর্কতার সহিত মানা ইউনিয়নবাসীর বেপরোয়া ভাবের প্রতিচ্ছবি ফুটে। নান্নার বাজারের অবস্থা দেখে বলা যায় ধামরাই উপজেলার মধ্যে নান্নার ইউনিয়ন আইন অমান্য ও অসচেতার দিক দিয়ে সর্বোচ্চ স্থানে থাকবে বলে মনে হয়। ব্যাপক জনসমাগম রোখতে 4 নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য জনাব মরতুজ আলী চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। ব্যস্ত হয়ে তিনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা কামনা করেন। তারপরও কিছুতেই যেন তা নিয়ন্ত্রণে আসছে না। নান্নার বাজারের দৃশ্য অবলোকন করে বোঝার উপায় নেই যে দেশে লকডাউন চলছে। পূর্বের বাজারের দৃশ্য ও বর্তমান বাজারের দৃশ্য যেন কোন তফাৎ নেই।

অপরদিকে জলসীন বাজারে আইন অমান্য করে ব্যাপক মানুষের সমাগম লক্ষ্য করা যায়। জলসীন বাজার সম্পর্কে আশঙ্কার কথা আজকে ফেসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে জানিয়েছেন অত্র এলাকার বাসিন্দা বিশিষ্ট কবি সাদ্দাম মির্জা এমবিএ। এসব তথ্য পর্যালোচনা করে বলা যায় নান্নার ইউনিয়নবাসী করোনা ভাইরাস সম্পর্কে অনেকাংশেই অসচেতন ও বেপরোয়া । তরুণ সাংবাদিক জাকির হোসেনের ক্যামেরায় নান্নার ইউনিয়নের রতনদা বাজারের জনগণ দৃশ্যটাও উঠে আসে। তাই দেশের স্বার্থে এই এলাকাটি বিশেষ নজরদারি করার দাবী রাখেন উপজেলা প্রশাসনের নিকট।

সব মিলিয়ে সার্বিক পর্যালোচনায় নান্নার ইউনিয়ন কে নিয়ে আশঙ্কার কারণ হয়ে উঠেছে। তাই প্রয়োজন সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত। প্রয়োজনে আইনের কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া একান্ত জরুরি বলে মনে এলাকার সচেতন মহল।
বার্তাপ্রেরক- রনজিত কুমার পাল বাবু

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ