আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং

মহালয়ার মধ্য দিয়ে দুর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা শুরু

রনজিত কুমার পাল( বাবু),নিজস্ব প্রতিবেদক:

পিতৃপক্ষের অবসান, দেবীপক্ষের সূচনার সন্ধিক্ষণই মহালয়া।
শুভ মহালয়া
মহালয়া কি?
পিতৃপক্ষের অবসান, দেবীপক্ষের সূচনার সন্ধিক্ষণই মহালয়া।

এই দিন পূর্ব পুরুষের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর দিন। শ্রী রামচন্দ্র লঙ্কাজয়ের আগে এমনটা করেছিলেন।সেখান থেকেই আসে তর্পণের ভাবনা। সাত দিনের মাথায় অকাল বোধন।
“আশ্বিনের শারদপ্রাতে বেজে উঠেছে আলোক মঞ্জীর; ধরণীর বহিরাকাশে অন্তরিত মেঘমাল।

আশ্বিন মাসে কৃষ্ণপক্ষের অবসান ও দেবীপক্ষের সূচনায় যে অমাবস্যা আসে তাই মহালয়া—পিতৃপূজা ও মাতৃপূজার সন্ধিলগ্ন।
পিতৃপক্ষের অবসানে, অমাবস্যার সীমানা ডিঙিয়ে আমরা যখন আলোকময় দেবীপক্ষের আগমনকে প্রত্যক্ষ করি, তখনই সেই মহালগ্নটি আমাদের জীবনে মহালয়ার বার্তা বহন করে আনে।

এক্ষেত্রে স্বয়ং দেবীই হচ্ছেন সেই মহান আশ্রয়, তাই উত্তরণের লগ্নটির নাম মহালয়া। একটি অর্থ অনুসারে মহান আলয়টি হচ্ছে পিতৃলোক। আশ্বিন মাসে কৃষ্ণপক্ষের অবসান ও দেবীপক্ষের সূচনায় যে অমাবস্যাকে আমরা মহালয়া হিসাবে চিহ্নিত করি, সেই দিনটি হচ্ছে পিতৃপূজা ও মাতৃপূজার সন্ধিলগ্ন। পিতৃপূজা ও মাতৃপূজার মাধ্যমে এই দিনটিতে আমরা আমাদের এই মানব জীবনকে মহান করে তুলতে প্রয়াসী হই বলেই এই পূণ্যলগ্নটিকে মহালয়া বলা হয়।

মহালয়াই তাদের লক্ষ্য। কারণ, তর্পণ-শ্রাদ্ধের প্রশস্ত দিনটি তাে এদিনই। তর্পণ হলাে— “‘তৃপ্যান্তি পিতরাে য়েন তৎপণয়।” অর্থাৎ পিতৃপুরুষ যে বস্তু প্রদানে প্রসন্ন হন তাকে তর্পণ বলে। সামান্য তিল জলেই পরিতৃপ্তি। যজূর্বেদ অনুসারে অঞ্জলি দানের মন্ত্রটি এই রকম “ ওঁ উর্জং বহন্তীরমৃতং ঘৃতং পয়ঃ কীলালাং প্ররিশ্রতং, স্বধাস্থ তর্পয়ত মে পিতৃণ্। তৃপ্যতামেতৎ সতিলােদকং তস্মৈ স্বধা..।
তর্পণকারী মন্ত্রোচ্চারণ করেন।

এবার স্বতিল জল প্রদান—”ওঁ আগচ্ছন্তু মে পিতর ইমং গৃহ্ণত্ত্ব পােহঞ্জলিং।” আমার পিতৃগণ, আসুন এই অঞ্জলি পরিমিত জল গ্রহণ করুন। দিন পূর্ব পুরুষের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর দিন। শ্রী রামচন্দ্র লঙ্কাজয়ের আগে এমনটা করেছিলেন।সেখান থেকেই আসে তর্পণের ভাবনা। সাত দিনের মাথায় অকাল বোধন।

“আশ্বিনের শারদপ্রাতে বেজে উঠেছে আলোক মঞ্জীর; ধরণীর বহিরাকাশে অন্তরিত মেঘমালা…”
আশ্বিন মাসে কৃষ্ণপক্ষের অবসান ও দেবীপক্ষের সূচনায় যে অমাবস্যা আসে তাই মহালয়া—পিতৃপূজা ও মাতৃপূজার সন্ধিলগ্ন।
পিতৃপক্ষের অবসানে, অমাবস্যার সীমানা ডিঙিয়ে আমরা যখন আলোকময় দেবীপক্ষের আগমনকে প্রত্যক্ষ করি, তখনই সেই মহালগ্নটি আমাদের জীবনে মহালয়ার বার্তা বহন করে আনে।

এক্ষেত্রে স্বয়ং দেবীই হচ্ছেন সেই মহান আশ্রয়, তাই উত্তরণের লগ্নটির নাম মহালয়া। একটি অর্থ অনুসারে মহান আলয়টি হচ্ছে পিতৃলোক। আশ্বিন মাসে কৃষ্ণপক্ষের অবসান ও দেবীপক্ষের সূচনায় যে অমাবস্যাকে আমরা মহালয়া হিসাবে চিহ্নিত করি, সেই দিনটি হচ্ছে পিতৃপূজা ও মাতৃপূজার সন্ধিলগ্ন। পিতৃপূজা ও মাতৃপূজার মাধ্যমে এই দিনটিতে আমরা আমাদের এই মানব জীবনকে মহান করে তুলতে প্রয়াসী হই বলেই এই পূণ্যলগ্নটিকে মহালয়া বলা হয়।

মহালয়াই তাদের লক্ষ্য। কারণ, তর্পণ-শ্রাদ্ধের প্রশস্ত দিনটি তাে এদিনই। তর্পণ হলাে— “‘তৃপ্যান্তি পিতরাে য়েন তৎপণয়।” অর্থাৎ পিতৃপুরুষ যে বস্তু প্রদানে প্রসন্ন হন তাকে তর্পণ বলে। সামান্য তিল জলেই পরিতৃপ্তি। যজূর্বেদ অনুসারে অঞ্জলি দানের মন্ত্রটি এই রকম “ ওঁ উর্জং বহন্তীরমৃতং ঘৃতং পয়ঃ কীলালাং প্ররিশ্রতং, স্বধাস্থ তর্পয়ত মে পিতৃণ্। তৃপ্যতামেতৎ সতিলােদকং তস্মৈ স্বধা..।
তর্পণকারী মন্ত্রোচ্চারণ করেন। এবার স্বতিল জল প্রদান—”ওঁ আগচ্ছন্তু মে পিতর ইমং গৃহ্ণত্ত্ব পােহঞ্জলিং।” আমার পিতৃগণ, আসুন এই অঞ্জলি পরিমিত জল গ্রহণ করুন।

বছর ঘুরে আবার এসেছে বাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বী
হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় শ্রীশ্রী দুর্গা পূজা।
বুধবার (৬ অক্টোবর) ভোরে পূর্ণ্যলগ্নে শুভ মহালয়ার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে শারদীয় দুর্গোৎসব -২০২১ এর আনুষ্ঠানিকতা
ধামরাইয়ে ঐতিহাসিক শ্রীশ্রী যশোমাধব মন্দিরে মহালয়ার শুরুতে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা শ্রীশ্রী চন্ডী পাঠের মধ্য দিয়ে দেবী দুর্গাকে মর্ত্যলোকে আগমণের আহবান জানান।

শারদীয় দুর্গাপূজার গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ মহালয়া। তাই ঐদিন ভোরে দেবীর আবাহনেই শুরু হয় দুর্গাপূজার ক্ষনগননা।মহালয়ার পাঁচদিন পরই শুরু হবে দেবীর ষষ্ঠী পূজা।
পঞ্জিকা অনুযায়ী দেবী দুর্গা এবার আসবেন ঘোড়ায় চড়ে,বিদায় নিবেন দোলায় চড়ে।
১১ই অক্টোবর বোধনের মধ্য দিয়ে ষষ্ঠী পূজা পালিত হবে।পর্যায়ক্রমে ১২ই অক্টোবর মহা সপ্তমী, ১৩ই অক্টোবর মহাষ্টমী, ১৪ই অক্টোবর মহা নবমী ও ১৫ই অক্টোবর বিজয়া দশমী।
এবার ধামরাই উপজেলার ১৬টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় ১৯২টি পূজা মন্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপন করার সার্বিক প্রস্তুতি চলছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ