আজ ৩০শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই অক্টোবর, ২০২১ ইং

ডেলিভারি না করে বাজারে বিক্রি ইভ্যালীর মোবাইল সেট

ডেস্ক রিপোর্ট :

ইভ্যালীর সিইও ও এমডি গ্রেফতারের পর ওই রাতেই ইভ্যালীর ওয়্যারহাউজ থেকে বিপুল পরিমাণ মোবাইল ফোনসহ বেশ কিছু মালামাল সড়িয়ে ফেলে ইভ্যালীর কয়েক কর্মচারী।

ঢাকার সাভারের হেমায়েতপুরের পূর্বহাটি এলাকায় শ্বশুর বাড়িতে পণ্যগুলো এনে জমা করে ইভ্যালীর প্যাকেজিং সেকশনের দায়িত্বে থাকা মোজাম্মেল। এই পণ্যগুলোর আনুমানিক মূল্য কয়েক কোটি টাকা বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

শুক্রবার(১৭ সেপ্টেম্বর) রাতে ইভ্যালীর গুটি কয়েক গ্রাহক সেই বাসার সন্ধান পেলে সেখানে নিজেদের অর্ডারকৃত পন্য বুঝে পাওয়ার জন্য হুমড়ি খেয়ে পরে তারা।

সেখান থেকে তাদের দাবিকৃত পণ্য বুঝিয়ে দিতে একদিন সময় চায় মোজাম্মেল। সময় পার হয়ে যাওয়ার পর থেকেই বন্ধ রয়েছে মোজাম্মেলের মোবাইল ফোন।

হেমায়েতপুরে মোজাম্মেল এর শ্বশুর বাড়িতে আনুমানিক ৪০ থেকে ৫০ কার্টন ভর্তি পণ্যের খোঁজ পান স্থানীয়রা ও কয়েকজন সাংবাদিক । গ্রাহক সেজে অন্য গ্রাহকদের সাথে ঐ বাসায় যান কয়েকজন সাংবাদিক ।

ঐ বাসায় ঘরভর্তি পণ্যের কার্টন দেখতে পান তিনি। কার্টন খুলে দেখতে চাইলে দুটি কার্টন ভর্তি আইফোন ও রিয়েলমি ব্রান্ডের মোবাইল দেখতে পান আহাদ নামে একজন গ্রাহক। মোজাম্মেল স্বীকার করেন বাকি কার্টনগুলো ভর্তি মোবাইল ও মোবাইল এক্সেসরিজ রয়েছে।

রবিবার(১৯ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যার পর সাভারের হেমায়েতপুর এলাকার পূর্বহাটি গ্রামে মোজাম্মেলের শ্বশুর এজাজ এর বাড়িতে কয়েকজন সাংবাদিক। সেসময় বাড়ির আশেপাশে ইভ্যালীর কাছে পাওনা দাবিকৃত কিছু গ্রাহকদেরও উপস্থিতি দেখা যায়।

রবিবার মোজাম্মেলের স্ত্রীর বড় বোন(নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) বলেন, যেইদিন রাসেল গ্রেফতার হয় ওইদিন(১৬ সেপ্টেম্বর) রাত ২ টার দিকে একটি হাইএইচ মাইক্রোবাস ও একটি লেগুনা গাড়িতে করে পণ্যগুলো তাদের বাড়িতে আনা হয়।

মানুষ ঝামেলা করতে পারে তাই মালগুলো রাত্রে আনছে তারা। পরবর্তীতে শনিবার(১৮ সেপ্টেম্বর) বিকাল ৩ টার দিকে পণ্যগুলো সরিয়ে নেয়া হয়। তার দাবি এ পণ্য ইভ্যালীর ওয়্যারহাউজেই আবার নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পণ্যগুলো বাসায় আনার পর কোন গেট পাশ বা স্লিপ বা ক্যাশ মেমো অথবা এই জাতীয় কোন কাগজই দেখাতে পারেননি তিনি।

তিনি আরো বলেন, ইভ্যালীর মালিকের বড়ভাই ও ওয়্যারহাউজের কর্মকর্তা বা কর্মচারীরা এসে বাসায় মালগুলো দিয়ে যায়। তারা বলেছিল এইখান থেকে মালগুলো সেল দিবে। পরে শনিবার বিকেলে বাড়ির ৩ ভাড়াটিয়ার সহযোগীতায় আবারও মালগুলো গাড়িতে তুলে দেয়া হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সাভারে মোবাইল ব্যবসার সাথে জড়িত এক যুবক বলেন, শনিবার ৩০০ পিস ও রবিবার ২০০ পিস রিয়েলমি ৮ ৫জি মডেলের ফোন সাভারের বাজারে ছোট হোলসেলারদের কাছে বিক্রি করা হয়েছে ১৯৭০০ টাকা করে।

হেমায়েতপুর মোজাম্মেল এর শ্বশুড় বাড়ির এলাকা পূর্বহাটি থেকেই এ ফোন গুলো ডেলিভারি করা হয়। তবে ফোনগুলো কে ডেলিভারি করেছে তা জানাতে পারেননি তিনি।

ইভ্যালি ছাড়া এই মডেলের মোবাইল ফোনটি এত কম দামে অন্য কেউ আর বাজারে ছাড়েনি। সাধারণত এই ফোনটির পাইকারি মুল্য ২০ হাজার টাকার ওপরে।

তিনি বলেন, আমি তো শুধু ৫০০ পিসের সন্ধান পেয়েছি। প্রায় ২০ হাজার টাকা করে যদি ৫০০ মোবাইল বিক্রি করে দেয়া হয় তাহলে ইতিমধ্যে কোটি টাকার মোবাইল বিক্রি হয়েছে। এভাবে হয়ত আরো অনেক মোবাইল বাজারে বিক্রি করেছে মোজাম্মেল ও তার সহযোগী জাহাঙ্গীর।

তিনি নিজেও ইভ্যালীতে ৪ লক্ষাধিক টাকার পণ্য কেনার জন্য টাকা জমা দিয়েছেন। সেই টাকার আশায় ঘুরছেন তিনি।

শুক্রবার রাতে সেই বাসায় মানুষের উপস্থিতি দেখে ভরকে যান মোজাম্মেল। তখন তিনি একদিন সময় চেয়ে নেন গ্রাহকদের কাছ থেকে। পরের দিন মোজাম্মেল ইভ্যালির এক গ্রাহককে জাহাঙ্গীর নামে একজনের মোবাইল নাম্বার দিয়ে জানান ইনি তার সিনিয়র কর্মকর্তা । মোজাম্মেল বলেন জাহাঙ্গীরের সাথে যোগাযোগ করলে ওই গ্রাহকের পন্য পেয়ে যাবেন।

ইভ্যালির ওই গ্রাহক আহাদ আহাম্মেদ জাহাঙ্গীর কে ফোন করলে তিনি বিভিন্নভাবে সময় পার করেন। শনিবার সন্ধ্যার পরে ইভ্যালির সাভারের ওয়্যারহাউজ এর গেটের বাহিরে প্রতিষ্ঠানটির এইচ আর বিভাগের সহকারী ব্যবস্থাপক মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে দেখা করিয়ে দেন। পরে সেখানে মোস্তাফিজুর ওই গ্রাহকের কাছ থেকে আরো একদিন সময় চান।

১৯ সেপ্টেম্বর মোজাম্মেল এর বাসায় গ্রাহকরা আবার হানা দিলে মোজাম্মেলকে আর পাওয়া যায়নি। কিন্তু খানিক বাদেই হাজির হন জাহাঙ্গীর। পাল্টে যায় জাহাঙ্গীরের দাবার গুটি। বড় কর্মকর্তা সেজে যিনি হম্বিতম্বি করছিলেন দুদিন ধরে, তিনি তখন স্বীকার করেন যে তিনি ইভ্যালীর সাথে সংশ্লিষ্ট কেউ নন। মোজাম্মেল তার বোনের জামাই।

তবে কেন সেদিন গ্রাহকদের মাল ফিরিয়ে দেয়ার ব্যাপারে কথা বলেছিলেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, মোজাম্মেল তার বোন জামাই। বোন জামাই কোন বিপদে যেন না পরে তাই তিনি গ্রাহকের সাথে কথা বলেছিলেন। আরো কিছু জিজ্ঞেস করার আগেই তিনি সেখান থেকে পালিয়ে যান।

জাহাঙ্গীর সাভারের হেমায়েতপুরের শ্যামপুর এলাকার বাসিন্দা। তার ফেসবুক আইডিতে দেখা যায় ইভ্যালি নিয়ে নিয়মিত পোস্ট করেন তিনি এবং তার প্রোফাইল ছবিতেও ইভ্যালির অন্য কর্মীদের মত ইভ্যালী ফ্রেম দেয়া ছিলো।

ইভ্যালির গ্রাহক আহাদ আহাম্মেদ জানান, গত শনিবারে জানতে পারি ইভ্যালির সাভারের ওয়্যারহাউজ থেকে প্রচুর পরিমাণ মালামাল কয়েকজন কর্মকর্তারা সরিয়ে তাদের বাসায় এনে রেখেছে। পরে মোজাম্মেল নামের এক কর্মচারীর শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে দেখি তার এক রুমে অনেকগুলো কার্টন রয়েছে।

আরেক রুমের এক পাশে প্রায় অর্ধশতাধিক কার্টন। পরে আমরা কয়েকজন জোরপূর্বক দুটি কার্টন খুলে দেখি মোবাইল ফোন। একটিতে রিয়েলমি অন্যটিতে আইফোন। এবং বাকি সব কার্টনেই মোবাইল ফোন আছে বলে জানায় মোজাম্মেল।

তিনি আরো বলেন, তখন আমার সাথে আরো ১০ থেকে ১৫ জন গ্রহক ছিলো। আমরা আমাদের পণ্য চাইলে মোজাম্মেল আমাদের বলে যে আগামীকাল পর্যন্ত সময় দেন আমার সিনিয়র কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে আপনাদের ব্যবস্থা করবো।

তার পরদিন বিকেল থেকে মোজাম্মেলের মোবাইল বন্ধ রয়েছে। পরে রবিবার আবার মোজাম্মেলের শ্বশুর বাড়িতে এসে দেখি সে এবং তার শ্বশুর এজাজ বাসায় নেই এবং ঘর ভর্তি সেই মোবাইল ফোনের কার্টন ও নেই।

এই বাসায় পণ্যগুলো কি ইভ্যালির অফিসিয়াল সিদ্ধান্তেই এসেছিল নাকি মোজাম্মেল, জাহাঙ্গীর ও মোস্তাফিজুর রহমান মালগুলো পরিকল্পিত ভাবে চুরি করে এনে বিক্রি করেছেন এ বিষয়ে ইভ্যালির সংশ্লিষ্ট কারো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

রবিবার রাতে মোজাম্মেলের বাসা থেকে বেড়িয়ে এইচ আর সহকারী ব্যবস্থাপক মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন তিনিই মোজাম্মেল এর শ্বশুর বাড়িতে রাখতে বলা হয়ে ছিলো তিনি আরও বলেন মোবাইল সেটগুলি এখন আবার ওয়্যারহাউজে আনা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গ্রাহকদের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে গুলশান থানায় দায়ের করা মামলায় গত বৃহস্পতিবার ইভ্যালির সিইও মো. রাসেল ও চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনকে গ্রেফতার করা হয়। ইতোমধ্যে সেলারদের রেগুলার বিল দিতে না পারায় ‘ইভ্যালি টি-টেন’ অফারের অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) রাত ১টা ১৮ মিনিটে ইভ্যালির ফেসবুক পেজে এক জরুরি নোটিশে এ তথ্য জানানো হয়েছে। নোটিশে ইভ্যালি জানায়, ‘১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১-এর টি-টেন-এ আপনাদের রেসপন্সে আমরা অভিভূত। আমাদের পাশে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

আমাদের প্রধান দুজন সিগনেটরি- সিইও এবং চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতিতে, আমাদের সেলারদের রেগুলার বিল দিতে পারছি না। এজন্য আমাদের স্বাভাবিক ডেলিভারি কার্যক্রম বিলম্বিত হচ্ছে।

তাই আপনাদের করা ১৭ সেপ্টেম্বরের টি-টেন-এর সব অর্ডার আপাতত রিকোয়েস্ট হিসেবে জমা থাকবে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়া মাত্রই আপনাদের টি-টেন-এর সব অর্ডার কনফার্ম করা হবে। অর্ডার কনফার্ম হলেই আপনারা পেমেন্ট সম্পন্ন করতে পারবেন।’

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ