আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জুন, ২০২১ ইং

করোনার ঝুঁকি এড়াতে লক্ষ্মীপুরের গ্রামে গ্রামে তরুণদের কর্মসূচি

মোঃ হৃদয় হোসেন লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

 

বিশ্ব মহামারি করোনাভাইরাসের কবল থেকে মানুষকে রক্ষা করতে লক্ষ্মীপুরের গ্রামে গ্রামে প্রতিরোধ গড়ে তুলছে তরুণরা। করোনা মোকাবেলায় তারা স্বেচ্ছায় নানা কর্মসূচির মাধ্যমে গ্রামীণ জনসাধারণকে সচেতন করে তোলার পাশাপাশি হতদরিদ্রদের মাঝে বিনামূল্যে খাদ্যসামগ্রী, মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটেশন বিতরণ করছে।

এছাড়াও হাত পরিষ্কার রাখতে গ্রামীণ মসজিদ ও বাড়ি গুলোর প্রবেশ পথে সাবান-পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে। গ্লাবস ও মাস্কসহ প্রয়োজনীয় সুরক্ষা নিয়ে তরুণদের অনেকেই গ্রামের ঘরে ঘরে গিয়ে জীবাণুনাশক ওষুধ ছিটিয়ে দিচ্ছে।

গত কয়েকদিন ধরে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার মান্দারী ইউনিয়নের সমাসপুর, রতনপুর, দক্ষিণ মান্দারী, দিঘলী ইউনিয়নের জামিরতলী, রাজাপুর, দক্ষিণ হামছাদী ইউনিয়নের কাজীর দিঘিরপাড় ও জাহানাবাদ এলাকায় তরুণদের এমন কর্মসূচি দেখা যায়। তারা বিভিন্ন সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের পক্ষ থেকে এমন কার্যক্রম চালাচ্ছেন। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন গুলোর মধ্যে উত্তরাঞ্চলীয় সংগঠন ফোরাম, মানুষ মানুষের জন্য (মামাজ), রামগঞ্জ ব্লাড ডোনার্স ক্লাব, অগ্রযাত্রা ফাউন্ডেশন, সমাসপুর যুব সমাজ ও রতনপুর তরুণ সংঘ অন্যতম।

এছাড়াও করোনা মোকাবেলায় জেলার রামগঞ্জ, রায়পুর, রামগতি ও কমলনগরসহ বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে তরুণ ও যুব সমাজের অনেকেই স্বেচ্ছায় এমন কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

সদ্য প্রবাস ও শহর ফেরত ব্যক্তিদের হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতেও তরুণদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

রামগঞ্জ ব্লাড ডোনার্স ক্লাবের সভাপতি মো. ফারুক হোসেন বলেন, নভেল করোনাভাইরাস একটি দুর্যোগ। এই দুর্যোগ মোকাবেলায় সকলেই সচেতনতা ও সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। তবে স্বেচ্ছায় তরুণদেরই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে।

এদিকে তরুণদের এমন কার্যক্রম করোনাভাইরাস মোকাবেলায় অবশ্যই ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে মনে করছেন অভিজ্ঞরা।

ট্রান্সফারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ লক্ষ্মীপুর-এর এরিয়া ম্যানেজার আবদুল মান্নান আকন্দ বলেন, ‘দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে তরুণদের যে যেখান থেকে যেভাবে এগিয়ে আসছে, তা অবশ্যই ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। তবে এই মুহূর্তে দেশের সার্বিক সংকট মোকাবেলায় যাদের খুব বেশি এগিয়ে আসা প্রয়োজন তারা এখনও পিছিয়ে আছেন। দেশের এই দীর্ঘমেয়াদি “লকডাউন” পরিস্থিতিতে শ্রমজীবী মানুষদেরকে আর্থিক সহায়তা দিতে সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার বিকল্প নেই।

তিনি মনে করেন, দেশের এই দুর্দিনে সরকারের উচিত এমপি, মন্ত্রী, আমলা ও শিল্পপতিসহ ধনাঢ্য ব্যক্তিদেরকে নিম্ন আয়ের মানুষদের সহায়তা করতে উৎসাহিত করা। সরকার এমন উদ্যোগ নিলে অবশ্যই জনগণ ইতিবাচক সাড়া দিবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।’

অন্যদিকে তরুণদের মধ্যে যারা এই দুর্যোগে দেশ ও জাতির কল্যাণে মাঠে না থেকে কেবল ভার্চুয়াল জগতে সাধু সেজে বসে আছেন এবং এখনও মাদকের নেশা ছাড়তে পারেনি, তাদের ধিক্কার জানানো হয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ