আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং

আশুলিয়ায় রাস্তা বন্ধ করে দোকান নির্মান, নাগরিকদের ভোগান্তি

নিজস্বপ্রতিবেদক :

সাভারের আশুলিয়ায় ইয়ারপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৯নং ওয়ার্ডের অন্তর্গত তৈয়বপুর এলাকায় চলাচলের সরকারী রাস্তা দখল করে দোকান নির্মান এবং বাঁশের বেড়া দিয়ে সাধারন মানুষের যাতায়াত বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে মোতালেব নামে এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে। এঘটনায় স্থানীয় মেম্বার মোহাম্মদ আলী বিষয়টি জানিয়ে আশুলিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইউনুস মিয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেন
লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, আশুলিয়া থানাধীন ইয়ারপুর ইউনিয়নের অন্তর্গত জিরাবো হইতে তৈয়বপুর গামী কাঁচা রাস্তা গত ৫/৬ মাস আগে পাশ হলে ঐ সময় রাস্তাটিতে মাটি ফেলা হয়। বর্তমানে ওই রাস্তাটিতে ইট সলিংয়ের কাজ অনুমোদ হলে গত ২৭ এপ্রিল হতে ইটের সলিংয়ের কাজ শুরু হয়। এমতাবস্থায় স্থানীয় আব্দুল মোতালেব (৫০), মোঃ খোরশেদ আলম (৫০), মোঃ জিল্লুর রহমান ডিলা (৫৮) উক্ত রাস্তার কাজে বাঁধা দেয়ার পায়তারা করতে থাকে। জনস্বার্থে রাস্তার কাজ চলাকালীন সময়ে উক্ত ব্যক্তিগনসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৫/৬ গত ২৮ এপ্রিল দুপুরে আবারও রাস্তায় কর্মরত শ্রমিকদের ভয়-ভীতি দেখিয়ে তাড়াইয়া দিয়া রাস্তার কাজ বন্ধ করে দেয়।
অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয় রাস্তা বন্ধ করে দেয়ার বিষয়টি জানতে পেরে এলাকার গণ্যমান্য লোকজন নিয়ে পুনরায় রাস্তার কাজ শুরু করতে গেলে উপরোক্ত ব্যক্তিরা ইউপি মেম্বার মোহাম্মদ আলীকে বিভিন্ন প্রকার ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে এবং রাস্তার কাজ শুরু করলে তাহার জানমালের বড় ধরনের ক্ষতি করার হুমকি প্রদান করে। বর্তমানে রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়ায় জনগনের চলাচলে বিগ্ন ঘটায় এলাকার গণ্যমান ব্যক্তিবর্গের সাথে আলোচনা করে ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করে আশুলিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগকারী ইউপি মেম্বার মোহাম্মদ আলী বলেন, জনগনের চলাচলের সরাকরী রাস্তা বন্ধ করে দোকান নির্মানের ঘটনায় আশুলিয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি। এঘটনায় আশুলিয়া থানার পরিদর্শক আব্দুর রশিদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ।
ওই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী পথচারীরা জানায়, দীর্ঘদিন ধরে এখান দিয়ে যাতায়াত করলেও স্থানীয় মোতালেব মিয়া রাতের আধাঁরে হঠাৎ করে রাস্তাটি বন্ধ করে দিয়েছে। যে কারনে এখন আমাদেরকে অনেক কষ্ট করে বেড়ার ফাঁক দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পাশের একজন কারখানার কর্মকর্তা বলেন, আমাদের কারখানায় প্রায়ই কাভারভ্যান দিয়ে মালামাল আনা-নেয়া করা হয়। কিন্তু রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়ায় এখন প্রধান সড়কে গাড়ি রেখে লেবার দিয়ে খরচ দিয়ে এবং মালামাল আনা-নেয়া করতে হচ্ছে।
অভিযুক্ত আব্দুল মোতালেব বলেন, আমি যে রাস্তা বন্ধ করে দোকান নির্মান করেছি সেটা আমার জমি। সেখান দিয়ে জোর করে রাস্তা নির্মানের চেষ্টা করলে আমিও থানায় জিডি করেছি। এটা এখন পুলিশ বুঝবে, আপনার মাথা ঘামানোর কোন দরকার নাই।
ইয়ারপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সৈয়দ আহম্মেদ মাস্টার বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নং ওয়ার্ডের জিরাবো হইতে তৈয়বপুর গামী কাঁচা রাস্তাটি সরকারী অর্থায়নে সংস্কার কাজের জন্য নির্মান সামগ্রী নেয়া হয়। কিন্তু জমি নিয়ে বিরোধ থাকায় ব্যবসায়ী মোতালেব রাতের আধাঁরে রাস্তাটি দখল করে দোকান নির্মান করে। এঘটনায় ইউপি সদস্য বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিলেও কোন প্রতিকার মেলেনি।
জানতে চাইলে লিখিত অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইউনুস মিয়া বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জানতে পারি অভিযুক্ত মোতালেবও থানায় জিডি করেছেন এবং সেটির তদন্ত করেন আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক আব্দুর রশিদ। এঘটনায় অভিযোগকারীকে আদালতে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ