আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২৪ ইং

হত্যার পরিকল্পনাকারী সাবেক সাংসদ গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজধানীর পল্লবীতে সন্তানের সামনে বাবাকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যাকান্ডের নির্দেশদাতা ও পরিকল্পনাকারী মোঃ আউয়ালসহ ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। র‌্যাবের অভিযানে ভৈরব, চাঁদপুর ও পটুয়াখালী হতে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এর আগে গত ১৬ মে রাজধানীর পল্লবীতে নিজ সন্তানের সামনে সাহিনুদ্দীনকে (৩৩) সন্ত্রাসীরা চাপাতি, রামদাসহ ধারালো দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করে। এঘটনায় নিহত সাহিনুদ্দীনের মাতা মোসাঃ আকলিমা বাদী হয়ে রাজধানী পল্লবী থানায় ২০ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরও ১৪-১৫ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এরই ধারাবাহিকতায় গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব সদর দপ্তর গোয়েন্দা শাখা ও র‌্যাব-৪ এর যৌথ গত ১৯ মে চাঁদপুরের হাইমচর এলাকায় অভিযান চালিয়ে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত হাসান (১৯), এবং ২০ মে ভৈরব সদর এলাকা হতে নৃশংস হত্যাকান্ডের মূলহোতা, নির্দেশদাতা ও পরিকল্পনাকারী এজাহারভুক্ত ১নং আসামী মোঃ আউয়াল (৫০), ও পটুয়াখালীর বাউফল এলাকা হতে এজাহার নামীয় ১৯ নং আসামী মোঃ জহিরুল ইসলাম বাবুকে (২৭), গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা হত্যাকান্ডের সাথে সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়।
জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায়, মূলত জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরেই হত্যাকান্ডটি সংঘটিত হয়। ঘটনার ৪/৫ দিন পূর্বে দুপুরবেলা মূল পরিকল্পনাকারী, নির্দেশদাতা ও মামলার ১নং আসামী গ্রেফতারকৃত আউয়াল এর কলাবাগান অফিসে তাহের এবং সুমনের সাথে বসে হত্যাকান্ডের চুড়ান্ত পরিকল্পনা করে। মাঠ পর্যায়ে হত্যাকান্ড বাস্তবায়নের জন্য সুমনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। সুমনের নেতৃত্বে প্রায় ১০-১২ জন সক্রিয়ভাবে কিলিং মিশনে অংশগ্রহণ করে এবং এছাড়া সহযোগী হিসেবে আরো বেশ কয়েকজন যুক্ত ছিল।
জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা আরও জানায় গত ১৫ মে ২০২১ তারিখ সুমন, বাবুসহ কিলিং মিশনে অংশগ্রহণকারী বেশ কয়েকজন শলা পরামর্শ করে। উক্ত কিলিং মিশনে অংশগ্রহণকারীরা ১৬ মে বিকালে ঘটনাস্থলে জড়ো হয়। অতঃপর ভিকটিম সাহিন সন্তানসহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। মিমাংসার অজুহাতে পূর্বেই সাহিনকে আসতে বলা হয়েছিল। প্রথমে সুমন, মনির, মানিক, হাসান, ইকবাল, এবং মুরাদসহ ১০-১২ জন এলোপাথারিভাবে ধারালো অস্ত্র দিয়ে পর্যায়ক্রমে সাহিনকে আঘাত করতে থাকে এবং শেষ পর্যায়ে শরীরের উর্ধাংশে মনির এবং হাটু ও হাত পায়ে মানিক কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে। উক্ত সময়ে বাবুসহ বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ সড়কে লুকআউট ম্যান হিসেবে নজরদারী করে। হত্যাকান্ডটি ৫/৭ মিনিটের মধ্যে সংঘটিত হয়। ঘটনা শেষে সুমন হত্যাকান্ডের মূল পরিকল্পনাকারী ১ নং আসামী মোঃ আউয়াল’কে মোবাইলে ফোন করে জানায় “স্যার ফিনিস” এবং তাদের আরো অল্প কিছুক্ষণ কথা হয়। অতঃপর হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতরা দেশের বিভিন্ন স্থানে গা ঢাকা দেয়।
র‌্যাব জানায়, গ্রেফতারকৃত মূল আসামী মোঃ আউয়াল একজন আবাসন ও জমি ব্যবসায়ী। তার ছত্রছায়ায় সুমন সন্ত্রাসী গ্রুপ দ্বারা জমিদখল ও আধিপত্য বিস্তার করত। গ্রেফতারকৃত আওয়াল হতে তারা মাস ভিত্তিক ১০/১২ হাজার টাকা মাসোয়ারা পেত এবং ক্ষেত্র বিশেষ কাজ অনুয়ায়ী অতিরিক্ত টাকা পেত। এই সন্ত্রাসী দল সুমন এলাকায় চাঁদাবাজি, ছিনতাই, রিক্সা টোকেন বাণিজ্য, মাদক, জুয়াসহ অন্যান্য অপরাধমূলক কর্মকান্ড চালাত।

নৃশংস হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ