আজ ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১২ই এপ্রিল, ২০২৪ ইং

মঠবাড়ীয়ায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন।

হাসিবুল হাসান ইমু

 

করোনা ভাইরাস সংক্রমনের প্রভাবে সারা দেশব্যাপী সীমিত আকারে মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস উদযাপন করা হচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় মঠবাড়ীয়ায় উদযাপিত হল “মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস “। মঠবাড়িয়া উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০২০ কুচকাওয়াজ, ডিসপ্লে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মঠবাড়িয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ সহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।
২৬ র্মাচ বাংলাদেশের ইতিহাসে এক রক্তাক্ত আনন্দের নাম। ২৬ মার্চ বিশ্বের বুকে লাল সবুজের পতাকা ওড়ানোর দিন। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ মধ্যরাতে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ঘুমন্ত নিরস্ত্র বাঙালির ওপর আধুনিক যুদ্ধাস্ত্র নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। বাঙালির স্বাধীকার আন্দোলন, এমনকি জাতীয় নির্বাচনের ফলাফলে প্রাপ্ত আইনসঙ্গত অধিকারকেও রক্তের বন্যায় ডুবিয়ে দিতে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী শুরু করেছিল সারাদেশে গণহত্যা। সেইরাতে হানাদাররা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল, ইকবাল হল, রোকেয়া হল, শিক্ষকদের বাসা, পিলখানার ইপিআর সদরদপ্তর, রাজারবাগ পুলিশ লাইনে একযোগে নৃশংস হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে হত্যা করে অগণিত নিরস্ত্র দেশপ্রেমিক ও দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের। ২৫ মার্চ রাতেই পুলিশ, ইপিআর ও সেনাবাহিনীর বাঙালি সদস্যরা শুরু করে প্রতিরোধ যুদ্ধ, সঙ্গে যোগ দেয় সাধারণ মানুষ। মহান সেই স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবেসে অগনিত শহীদ ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জানাই গভীর শ্রদ্ধা ও আন্তরিক অভিনন্দন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ