আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং

সাভারে ঘুরে বেড়াচ্ছে এক টাকার দোকান

নিজস্ব প্রতিবেদক :

অনেকে ত্রাণ নিতে সংকোচ বোধ করেন, এমন লোকজনের জন্য ঢাকার সাভারে ‘এক টাকার দোকান’ নামে ভ্রাম্যমাণ দোকান চালু করেছে ছবিঘর নামের একটি সংগঠন,যাদের সহযোগীতা করছেন আরো ৪ টি সংগঠন, এদের মধ্যে রয়েছে জিরো ফাউন্ডেশন, উই আর এসসিপিসসিয়ান,সাভার বন্ধুসভা ও পথে পথে পাঠ।এই দোকান থেকে পুরো রমজান মাসে কয়েক হাজার অসহায় পরিবারকে খাদ্য ও ইফতার সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হবে। আজ শুক্রবার তাদের এই এক টাকার দোকানের কার্যক্রম শুরু হয়। সাভার থানা রোডে একটি স্টল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তাদের এই কার্যক্রম শুরু হয়।স্টলের পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ ৯ টি ভ্যানের মাধ্যমে সাভারের বিভিন্ন ওয়ার্ডে এক টাকার বিনিময়ে খাবার দেওয়া হয়। এক টাকার বিনিময়ে খাবার এটা এখন প্রায় অসম্ভব। মুঘল আমলে সুবেদার সায়েস্তা খার আমলে এক টাকায় চাল পাওয়া যেত বলে কথা প্রচলিত আছে কিন্তু এই সময়ে এক টাকার বিনিময়ে খাবার পাওয়া যাবে এটা অসম্ভব ব্যপার হলেও তা সম্ভব করেছে একদল তরুন। দিনে প্রায় ৫০০ মানুষের কাছে এক টাকার বিনিময়ে ইফতার পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে তারা। ঈদের আগে ঈদ বস্ত্র দেওয়া হবে বলেও জানান তারা। এক টাকার দোকান আগে এক টাকায় এক বেলা ইচ্ছে পূরণ নামে চালানো হলেও তা ২০২০ সালে নাম পরিবর্তন করে এক টাকার দোকান করা হয়। সহমর্মিতায় রোজা পালনের পরিকল্পনা নিয়েই তারা এই কাজ শুরু করেছে।
করোনা মহামারীর জন্য তারা সব ধরনের সতর্কতা নিয়ে কাজ করছে তারা।সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করা সহ সবাইকে সেনিটাইজ করে খাবার দেওয়া হচ্ছে।

ছবিঘরের শুরু ২০১৮ সালে। এর প্রতিষ্ঠাতা সাভার পৌর এলাকার ব্যাংককলোনীর কলেজছাত্র প্রিন্স ঘোষ ও তাঁর চার বন্ধু। শুরু থেকে ছবি নিয়ে কাজ করলেও দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার পর থেকে প্রতিষ্ঠানটি অসহায় মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। নিজেদের হাত খরচ বাঁচানো অর্থসহ পরিবার ও প্রবাসে থাকা স্বজনদের চাঁদায় অসহায় ও কর্মহীন মানুষকে এক টাকার বিনিময়ে তাঁরা এক মাস ধরে খাদ্যসহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন।

ছবিঘরের সভাপতি হাসিবুল হাসান ইমু বলেন, অনেকেই ত্রাণ নিতে সংকোচ বোধ করেন। তাই উপকারভোগীরা যাতে মনে করেন ত্রাণ নয়, টাকার বিনিময়ে তাঁরা পণ্য কিনে নিচ্ছেন-এই ধারণা থেকে এক টাকার দোকান নামে ভ্রাম্যমাণ দোকান চালু করা হয়। যে কেউ ওই দোকান থেকে এক টাকার বিনিময়ে চারজনের একটি পরিবারের জন্য এক সপ্তাহের খাদ্য ও ইফতার সামগ্রী কিনে নিতে পারতেন। তিনি বলেন, ঈদের দিনে মহল্লায় মহল্লায় ঘুরে ছিন্নমূল ও অসহায় পরিবারের মাঝে এক টাকার বিনিময়ে রান্না করা খাবার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। করোনার প্রভাব যত দিন থাকবে তত দিন এই সহায়তা চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার ইচ্ছে পোষণ করেন তিনি।

জিরো ফাউন্ডেশন এর সভাপতি অজয় আচার্য জানান তারা ভাল কাজের সাথে সব সময় আছেন।একসাথে অনেক মানুষকে সাহায্য করা যাবে এই ভেবেই তারা ছবিঘরের এক টাকার দোকানের সাথে সামিল হয়েছে।

উই আর এসসিপিএসসিয়ান এর সদস্য তালহা জানায় তারা ছবিঘরের এক টাকার দোকা এর সাথে থেকে এই মহৎ উদ্যোগকে সফল করতে পারায় তারা খুশি এবং এভাবেই তারা সবার পাশে দাড়াতে চায়। আর করোনা মহামারীর জন্য অনেকে কাজ হারিয়েছে তাই তাদের এই সময়ে এই সাহাস্য অনেক বেশি দরকার।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ