আজ ২৬শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই মে, ২০২১ ইং

শ্রীনগরে লগডাউনের সুযোগে চলছে সরকারি খাল ভরাটের মহাউৎসব

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি :

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে লগডাউনের সুযোগে সরকারি খালের মাটি কেটে বাঁধ দিয়ে পানি নিস্কাশনে বাঁধা দেওয়া খাল ভরাটের মহাউৎসব চলছে। গত কয়েকদিনে শ্রীনগর উপজেলার বিভিন্ন স্থান ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। প্রতিটি দখলেই স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা প্রতক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।শ্রীনগর বাজারের পুলিশ প্লাজার পশ্চিম পাশের ব্রিজের জায়গাসহ টিন দিয়ে বেড়া দিয়ে সরকারি জায়গা ভরাট করে দখলের অভিযোগ উঠেছে। এই কাজে স্কেভেটর ব্যবহার করা হচ্ছে শ্রীনগর ইউনিয়ন পরিষদের নামে। সেখানে ব্রিজের নীচের ও আশ-পাশের খালের মাটি কেটে ওই স্থানটি ভরাট করা হচ্ছে। এই বিষয়ে শ্রীনগর (সদর) ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোখলেছুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, খালের পানির প্রবাহ চলমান রাখার জন্যই স্কেভেটর/ভেকু দিয়ে মাটি সরানো হচ্ছে। কিন্তু সেই মাটি দিয়ে ব্রিজের এক পাশের প্রায় অর্ধেকসহ ওই এলাকার বদন কৃষ্ণ দাসের ছেলে মিল্টন গং সরকারি জায়গা ভরাট করে সেখানে মার্কেট নির্মাণ করছে এমন অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন। তবে দখলের বিষয়টি তার জানা নেই। চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলার ২ দিনপর দেখা যায় পানি প্রবাহের জন্য পুরো মাটি না সরিয়ে শুধু মাত্র দখলের জায়গা ভরাট করে স্কেভেটরটি চলে গেছে। এব্যাপারে মিল্টন দাস সাংবাদিকদের বলেন, তারা কোন সরকারি জায়গা দখল করছেন না। তাহলে ব্রিজের অর্ধেক অংশে কেন টিন দিয়ে বেড়া দিয়েছেন এমন প্রশ্নে তিনি কোন উত্তর দিতে পারেননি।একইভাবে উপজেলার ধাইসার-বাড়লিবাগ খালের ঘোষপাড়ার সামনের অংশ মুকুল ঘোষ গং ভরাট করে দখল করে নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এক সময় খালটি শ্রীনগর থেকে আড়িয়াল বিলে প্রবেশের মাধ্যম হিসাবে ব্যবহৃত হত। খালটি ভরাট হয়ে গেলে ওই এলাকার মানুষ চরম বিপাকে পরবে বলে স্থানীয়রা জানায়। তবে ভরাটকারীরা দাবী করছেন খালটি তাদের নিজস্ব সম্পত্তি।অপরদিকে, ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ের ছনবাড়ি ব্রিজের পূর্বপাশের প্রায় ১’শত গজ উত্তরে সরকারি জায়গাসহ ভরাট করা হয়েছে। এই ভরাটে ব্যবহৃত হয়েছে ব্রিজের নিচে জমে থাকা সরকারি মাটি দিয়ে। প্রায় আড়াইশ ফুট দীর্ঘ ভরাটে ষোলঘর, পূর্ব দেউলভোগ, কল্লিগাও, হরপাড়াসহ বেশ কয়েকটি মৌজার জমির পানি প্রবাহ বন্ধ হয়ে গেছে। ভরাটের কারণে অকেজো হয়ে পরেছে একটি কালভার্ট।বেজগাঁও বাস স্ট্যান্ড থেকে ৫০’গজ দক্ষিণে বেজগাঁও-কুকুটিয়া সড়কের ব্রিজের মুখ বন্ধ করে ওই এলাকার পানি প্রবাহ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কয়েকদিনের ব্যবধানে সেখানে উঠে যাচ্ছে মার্কেট।শ্রীনগর উপজেলার খাল দখল ও পানি প্রবাহের পথ বন্ধ করার যে প্রতিযোগীতা শুরু হয়েছে তা প্রতিকারের জন্য এখনি কার্যকরি ব্যবস্থা নেওয়া না হলে এখানকার পরিবেশ হুমকির মুখে পরবে বলে স্থানীয়দের ধারনা।শ্রীনগর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কেয়া দেবনাথ সাংবাদিকদের বলেন, খবর পেয়ে আমি শ্রীনগর বাজারের পশ্চিম পাশের দখল বন্ধ করে দিয়েছিলাম। পরে আবার দখলের বিষয়টি আমার জানা নেই। বাকী দখলগুলোর বিষয়ে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ