আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং

ধামরাইয়ে ‘পদ্মা সেতু’ বানানো স্কুলছাত্র সোহাগকে এসডিআইয়ের নগদ অর্থ  প্রদান

রনজিত কুমার পাল (বাবু)
নিজস্ব প্রতিবেদক :

ঢাকার ধামরাইয়ের সুতিপাড়া গ্রামের স্কুলছাত্র সোহাগ আহম্মেদ মাটি, বাঁশ, সিমেন্ট ও রঙ দিয়ে পদ্মা সেতুর আদলে সেতু বানিয়ে তাক লাগিয়ে আলোড়ন সৃষ্টিকারী ধামরাইয়ের সুতিপাড়া গ্রামের সেই স্কুলছাত্র সোহাগ আহম্মেদকে নগদ ১০ হাজার টাকা উপহার দিলেন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা এসডিআইয়ের নির্বাহী পরিচালক সামছুল হক।রোববার(১৮ এপ্রিল) দুপুরে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা এসডিআইয়ের নির্বাহী পরিচালক সামছুল হক সোহাগ আহম্মেদের বাড়ির আঙিনায় তৈরি পদ্মা সেতুটি পরিদর্শন করে তাকে উৎসাহ দেন এবং ভবিষ্যতে যাতে সোহাগ আহম্মেদ ভালো একজন ইঞ্জিনিয়ার হতে পারে তার জন্য সকল সহযোগিতা করারও আশ্বাস দেন। সামছুল হক বলেন, গত ১১ এপ্রিল পত্রিকা পড়ে স্কুলছাত্র সোহাগ আহম্মেদের বানানো পদ্মা সেতুর সংবাদ পড়ে আজ দেখতে আসলাম। সত্যিকারেই পদ্মা সেতুর আদলে সেতু বানিয়ে সে তাক লাগিয়ে দেওয়ার মতই কাজ করেছে। বঙ্গবন্ধুর সোনার দেশে এমন প্রতিভাবানদের প্রতিভা বিকাশে আমি সব ধরনের সহযোগিতা করব। স্কুলছাত্র সোহাগ আহম্মেদ বলেন, পদ্মা সেতুর প্রথম স্প্যান বসানোর দিনই সিদ্ধান্ত নিই আমি একটি সেতু বানাবো। কিন্তু কোনো ধরনের নকশা ও পর্যাপ্ত অর্থ আমার কাছে ছিল না। এজন্য পর পর দুটি সেতু তৈরি করলেও তা ভেঙে যায়। পরে ইন্টারনেট থেকে নকশা সংগ্রহ করে হাত খরচের টাকা দিয়ে সিমেন্ট ও বাঁশ সংগ্রহ করি। এরপর পাঁচ মাস ধরে ধীরে ধীরে সেতুটি তৈরি করি। প্রথম দিকে বাবা-মা অনেক বকাঝকা করতো। আশপাশের মানুষও কটু কথা বলতো। কিন্তু আমি আমার মত কাজ করেছি। এখন দেশের দুরদূরান্ত থেকে আমার সেতুটি দেখার জন্য মানুষ ভিড় করছে। এতেই বাবা-মা অনেক খুশি। আমারও ভালো লাগছে। তবে আরও ভালো কিছু করতে চাই। আমি বড় হয়ে একজন ভালোমানের ইঞ্জিনিয়ার হতে চাই। দেশে আর কোনো সেতু তৈরিতে যেন বিদেশিদের সহযোগিতা প্রয়োজন না হয়, সেজন্য আমি প্রস্তুত হতে চাই।বাড়ির আঙিনায় সেতুটি তৈরিতে মাটি, বাঁশ, সিমেন্ট, মোবাইলে ব্যবহার করা ছোট বাতি ও সাদা-কালো রঙ ব্যবহার করেছে সোহাগ। সেতুটিতে চারটি লেন করা হয়েছে। স্থাপন করা হয়েছে বাতি। নিচ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে রেললাইন। নিচে মাটি খুঁড়ে রূপ দেওয়া হয়েছে পদ্মা নদীর। দুই লেনের মাঝখানে ফুলের চারাসহ এক প্রান্তে রয়েছে চেকপোস্ট। এক কথায় প্রাণবন্ত একটি পদ্মা সেতু। দেখে মন ভরে যায় দর্শনার্থীদের। প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত পদ্মা সেতু দেখতে দুর-দুরান্ত থেকে তার বাড়িতে মানুষ ভিড় করছেন।স্কুলছাত্র সোহাগ আরো বলেন, আমি বড় হয়ে একজন ভালোমানের ইঞ্জিনিয়ার হতে চাই। দেশে আর কোনো সেতু তৈরিতে যেন বিদেশিদের সহযোগিতা প্রয়োজন না হয়, সেজন্য আমি প্রস্তুত হতে চাই। দেশসহ বিদেশে গিয়ে কাজ করতে পারি এমন একজন দক্ষ ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন আমার।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ