আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং

কালিয়াকৈরে চিটায় পরিণত হয়েছে কৃষকের স্বপ্নের ধান

মো. ইলিয়াস চৌধুরী, কালিয়াকৈর প্রতিনিধি :

দেশের বিভিন্ন স্থানে গত রোববার কালবৈশাখীর সঙ্গে বয়ে যাওয়া তপ্ত বাতাসে কৃষকরা ভয়ানক ক্ষতির মুখে পড়েছে। এ পরিস্থিতিতে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার সূত্রাপুর এলাকার ফয়েজুল্লাপুর, কাতলমারা, আড়াইবিল, বগাবাড়ি বিলের ধান হিট শকে চিটা হয়ে গেছে। আচমকা এ দূর্যোগে পড়ে চোখে অন্ধকার দেখছেন কৃষকরা। নিজেরা খাবেন কি এবং ঋণ পরিশোধ করবেন কি দিয়ে- সেই চিন্তায় দিশেহারা চাষীরা।

শনিবার (১০ এপ্রিল) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, গরম বাতাসের কারণে গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর উপজেলায় প্রায় একশত হেক্টর জমির বোরো ধান চিটা হয়ে গেছে।

স্থানীয় কৃষি অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী জানা যায়, উপজেলায় এবার ১০ হাজার ১ শত ২০বিশ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। উপজেলা ও সূত্রাপুর ইউনিয়নের ফয়েজুল্লাপুরে কৃষকরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এরমধ্যে উপজেলায় সূত্রাপুর ইউনিয়ন ও ঢালজোড়া ইউনিয়নের প্রায় ১০০ হেক্টর জমির বোরো আবাদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

উপজেলার সূত্রাপুর ইউনিয়নের ফয়েজুল্লাপুরের কৃষক আনোয়ার হোসেন ও চাঁন মিয়া জানান, কালবৈশাখী ঝড় বা শিলাবৃষ্টিতে ফসলের ক্ষতি হয় জানি। কিন্তু গরম বাতাসে ধানের এমন ক্ষতি হয় তা আগে কখনো দেখিনি বা শুনিনি। সকালে খেতে গিয়ে দেখি থোড় শুকিয়ে ধান চিটা হয়ে আছে। পরিবার পরিজন নিয়ে আমরা কি খাব? ঋণ করে ধান ক্ষেত করেছি কিভাবে যে এ ঋণ পরিশোধ করবো তা একমাত্র আল্লাহ তাআ’লা জানেন?
এ সময় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা সরকারের কাছে সহযোগীতার আকুল আবেদন জানান।

কালিয়াকৈর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম জানান, ইতিমধ্যে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের হিট শকে আক্রান্ত ধান খেতে পানি রাখার জন্য পরামর্শ দিয়েছি। তবে এখন চাষি ভাইদের জন্য করণীয় হচ্ছে, খেতে পানি ধরে রাখা। ক্ষতি যা হওয়ার হয়ে গেছে, এখন প্রয়োজন জমিতে দুই থেকে তিন ইঞ্চি পানি রাখা। এতে করে হিট শক কিছুটা এডজাস্ট করা যাবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ