আজ ২৭শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১০ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

করোনা ভ্যাকসিন দেশে তৈরির প্রস্তুতি শুরু হচ্ছে, স্বাস্থ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক :

পরিবার পরিকল্পনা ও স্বাস্থ্য মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, বাংলাদেশ নভেল করোনা ভ্যাকসিন তৈরির প্রস্তুতি শুরু হতে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে সহযোগীতা করবেন।

বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) সাভারের জিরাবোতে ইনসেপ্টা ভ্যাকসিন-এর বাল্ক ফ্যাসিলিটি, আর এন্ড ডি ফ্যাসিলিটি, প্রোডাকশন ফ্যাসিলিটি ও এনিম্যাল হাউস পরিদর্শনকালে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, করোনা ভ্যাকসিন তৈরিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদিত ল্যাব (পরিক্ষাগার) প্রয়োজন। যা বাংলাদেশে তৈরি করা শুরু হয়েছে। এই ল্যাবের একটা অংশ (কেমিক্যাল) আমাদের অনুমোদন দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। বাকি অংশ অনুমোদন নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে। এসংক্রান্ত বিভিন্ন চিঠি আমাদের পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

জাহিদ মালেক বলেন, আমাদের দেশ বিভিন্ন খাতে স্বয়ংসম্পূর্ণ। ওষুধ খাতে আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে বিদেশেও রপ্তানি করছে। আমাদের দেশের বিভিন্ন ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানে ভ্যাকসিন তৈরি করছে। করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করতে স্বয়ংসম্পূর্ণ প্রতিষ্ঠানকে আমরা পর্যাপ্ত সহযোগিতা করবো।

তিনি আরও বলেন, ভ্যাকসিন তৈরিতে সীড প্রয়োজন অথবা বাল্কেও আমরা ভ্যাকসিন তৈরি করতে পারি। তবে এসব আমাদের বাহির থেকে সংগ্রহ করতে হবে। তবে এসব ভ্যাকসিন তৈরি হওয়ার পর সেটি কতটা কার্যকর তাও পরিক্ষা করা হবে।

তিনি বলেন, আমরা দেশীভাবে ভ্যাকসিন তৈরি করতে পারলে দেশবাসীর মাঝে খুব সহজেই সরবরাহ করতে পারবো। আমাদের ওষুধ কোম্পানি গুলো কোভিডের সব ওষুধ তৈরি করছে। দেশেই আমরা এসব ওষুধ পাচ্ছি। আমাদের কোম্পানি গুলো ভ্যাক্সিনও যদি তৈরি করে সেগুলোও আমরা নেবো। এছাড়া প্রাথমিকভাবে আমরা ভারত থেকে ভ্যাকসিন নিয়েছি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকেও আমাদের ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা রয়েছে। এই ভ্যাকসিন পেলে ৪০ থেকে ২২ বছর পর্যন্ত আমরা ভ্যাকসিন সরবরাহ করতে পারবো।

ইনসেপটা ফারর্মাসিটিক্যাল সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ইনসেপ্টার প্রতিবছরে ১৮০ মিলিয়ন ডোজেস ভ্যাকসিন উৎপাদনের সক্ষমতা রয়েছে। এটি আমাদের সবার জন্য বড় সুখবর। এক্ষেত্রে সারাবিশ্বে যখন করোনা ভ্যাকসিনের বিপুল চাহিদা তৈরি হবে তখন ওয়ার্ল্ড কমিউনিটি এই ফ্যাসিলিটিস ব্যবহার করবে বলে আমরা আশাবাদী।

স্বাস্থ্য মন্ত্রী বলেন, ইনসেপ্টা ভ্যাকসিন লি. বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জিএমপি নীতিমালা অনুযায়ী ভ্যাকসিন বাল্ক ম্যানুফেকচারিং ফ্যাসিলিটি স্থাপন করেছে, যা ব্যাকটেরিয়াল এবং ভাইরাল উভয় বাল্ক অ্যান্টিজেন উৎপাদন করতে পারে। এর ফলে বাংলাদেশ এখন ভ্যাকসিন উৎপাদন ও বাজারজাত করনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে অনেকটা এগিয়ে আছে। এর অত্যাধুনিক এবং স্বয়ংসম্পূর্ণ ফ্যাসিলিটিতে টেকনোলোজি ট্রান্সফারের মাধ্যমে যেকোন ভ্যাকসিন এর বাল্ক ম্যানুফেকচারিং করা সম্ভব অথবা বাল্ক আমদানি করে দেশে ফিল-ফিনিশিং করা সম্ভব।

এসময় ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যালসের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল মুক্তাদির বলেন, ইনসেপ্টা ভ্যাকসিন লি. যা ইতিমধ্যেই দেশ ও দেশের বাইরে বিপুল আস্থা ও প্রশংসা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এই কোম্পানির প্রধান উদ্দেশ্য হল সাশ্রয়ী মূল্যে বাংলাদেশের সুবিশাল জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি উন্নয়নশীল বিশ্বকে বিভিন্ন সংক্রামক রোগ থেকে রক্ষা করা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, ধামরাই আসনের সাংসদ বেনজীর আহমেদ এমপি, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ-এর সচিব, মো. আব্দুল মান্নান, ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ