আজ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২২শে জুন, ২০২৪ ইং

সিরাজদিখানে মাত্রাতিরিক্ত ও অসহনীয় শব্দদূষণে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

মোঃ আহসানুল ইসলাম আমিন, সিরাজদিখান  প্রতিনিধি : 

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে মাইকের উচ্চশব্দে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। উপজলার ১৪টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলকায় মাত্রাতিরিক্ত ও অসহনীয় শব্দদূষণে অতিষ্ঠ স্থানিয় বাসিন্দারা। বিশেষ করে শিশু, অসুস্থ রোগীদের বেশি সমস্যা পোহাতে হচ্ছে। বিভিন্ন পণ্যের প্রচারণায় প্রতিনিয়ত উচ্চ শব্দে মাইক বাজানো হয়। ইজিবাইক, রিকশা ও পিকআপ ভ্যানে মাইক বেঁধে উচ্চশব্দে দীর্ঘ সময় ধরে বিভিন্ন পণ্যের প্রচারণা চালানো হয়। বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়গনেস্টিক সেন্টারের প্রচার, বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরিচয়, কোনো প্রতিষ্ঠানে বিশেষ ছাড়, মোবাইলের সিমকার্ড, মেলাসহ বিভিন্ন প্রচারে ব্যাবহার করা হচ্ছে উচ্চ সব্দের মাইক। এ ছাড়া প্রায় বিভিন্ন ধরনের ধর্মীয়, সাংস্কৃতিক ও গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানের নামে প্রায়ই সারা রাত উচ্চ শব্দে অ্যামপ্লিফায়ারে গান চলানো হয় ।

শব্দদূষণ নিয়ন্ত্রণ বিধিমাল ২০০৬ অনুযায়ী, এলাকাভেদে শব্দের মানমাত্রা নীরব এলাকায় দিনে ৫০ ডেসিবেল ও  রাতে ৪০ ডেসিবেল, আবাসিক এলাকায় দিনে ৫৫ ডেসিবেল, ও  রাতে ৪৫ ডেসিবেল। মিশ্র এলাকায় দিনে ৬০ ডেসিবেল ও রাতে ৫০ ডেসিবেল। বাণিজ্যিক এলাকায় দিনে ৭০ ডেসিবেল ও  রাতে ৬০ ডেসিবেল এবং শিল্প এলাকায় দিনে ৭৫ ডেসিবেল ও  রাতে ৭০ ডেসিবেল। এখানে দিন বলতে ভোর ছয়টা থেকে রাত নয়টা এবং রাত বলতে রাত নয়টা থেকে ভোর ছয়টা পর্যন্ত নির্ধারণ করা হয়েছে এবং শব্দের সর্বোচ্চ সহনীয় মাত্রার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

শব্দদূষণ (নিয়ন্ত্রণ) বিধিমালা ২০০৬ এর ১৮ ধারায় বলা আছে, কোনো ব্যক্তি বিধিমালার বিভিন্ন ধারা লঙ্ঘন করে দোষী সাব্যস্ত হলে তিনি প্রথম অপরাধের জন্য অনধিক এক মাসের কারাদণ্ড বা অনধিক পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে এবং পরবর্তী অপরাধের জন্য অনধিক ছয় মাস কারাদণ্ড বা অনধিক ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন। বিধিমালায় শব্দের মানমাত্রা অতিক্রম না করার শর্তে মাইক, অ্যামপ্লিফায়ার ব্যবহার করতে হলে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নেওয়ার বিধানও আছে, কিন্তু সিরাজদিখানে মাইকিং, অ্যামপ্লিফায়ার ব্যবহার এর ক্ষেত্রে এ বিধান মানা হয় না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মালখানগর ইউনিয়নের এক ব্যাক্তি জানান, গতকয়েক দিন আগে রাত ৮ থেকে উপজেলার মালখানগর ইউনিয়নের ফুরশাইল গ্রামে ওরশের নামে চলে মাইকে উচ্চ শব্দে বয়াতী গান। ভোর ৩ টা ৩০ মিনিটের দিকে অতিষ্ঠ হয়ে ৯৯৯ এ কল করে অভিযোগ জানালে, সিরাজদিখান থানা পুলিশ এসে ভোর ৪টায় গান বন্ধ করে দেয় । তবে একাধিক বার স্থানীয় ইউপি সদস্য হারুন আর রশিদ এর কাছে জানিয়েও কোনো কাজ হয়নি বলে জানান তিনি।

বয়রাগাদী ইউনিয়নের একাধিক ব্যাক্তি বলেন, শুক্রবার সারা রাত মজিবর দেওয়ানের বাড়িতে মাইকে উচ্চ শব্দে বয়াতি গান কান ঝালাপালা হয়ে যায়, ঘুমানো যায় না। মাথাব্যথা করে, অতিষ্ঠ হয়ে গেছি। সারাদিন কাজ শেষে রাতে একটু শান্তিতে ঘুম আসতে চাইলেও এই মাইকের শব্দে পারি না, এছাড়াও বৃহস্পতিবার হলেই আশেপাশের কোথাও না কোথাও রাতে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে সাউন্ড বক্স এ সারা রাত উচ্চ শব্দে গান বাজে, কিছু বলতে গেলেও পারিনা সবাই কইবো মিয়া বিয়ে বাড়ী আইছো ভেজাল লাগাইতে, আমরা এই যন্ত্রণার থেকে মুক্তি চাই ।

স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিরা মনে করে এসব বন্ধে প্রশাসনের পদক্ষেপ প্রয়োজন। প্রয়োজনে মোবাইল কোর্টসহ কঠোর নজরদারি না হলে এই উপদ্রব থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব নয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ ফয়েজুল ইসলাম বলেন, উচ্চমাত্রায় সব্দ স্বাস্থের জন্য ক্ষতিকর। এই ব্যপারে স্থানীয় ভাবে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। এলাকায় যদি কোথাও উচ্চ শব্দে গান বাজনা করা হয়। এবিষয়ে অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ