আজ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

চোখ হারিয়েও থেমে নেই সেই সন্ত্রাসী সাইফুলের অপতৎপরতা

খ.ম. নাজাকাত হোসেন সবুজ বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধিঃ

বাগেরহাট জেলাধীন শরণখোলার খোন্তাকাটা ইউনিয়নবাসী ১৭ মামলার আসামী সেই দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী সাইফুল মোল্লার অপতৎপরতা ও নিরীহদের নামে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন। রবিবার সকাল ১১টার দিকে ওই ইউনিয়নের রাজৈর এলাকায় এই কর্মসূচীতে স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রী এবং নির্যাতিত নারী-পুরুষসহ অসংখ্য সাধারণ মানুষ অংশগ্রহন করেন। তারা প্লাকার্ড হাতে নিয়ে সন্ত্রাসী, ছিনতাইকারী, ধর্ষক সাইফুলের আরো কঠিন শাস্তি দাবি করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।

রাজৈর খেয়াঘাট থেকে শরণখোলা সরকারি কলেজ মোড় পর্যন্ত প্রায় আধা কিলোমিটার সড়কের দুই পাশে দাড়িয়ে মানববন্ধন করেন শত শত ক্ষুব্ধ জনতা। এসময় বক্তরা বরেন, জনতার হাতে চোখ হারিয়েও থেমে নেই সন্ত্রাসী সাইফুল। রাতের অন্ধকারে কে বা কারা চোখ নষ্ট করেছে দিয়েছে তার। অথচ, ১৭ মামলা মাথায় নিয়েও মিডিয়ার সামনে এখন নিজেকে নির্দোষ দাবি করে মিথ্যা তথ্য দিচ্ছে। হাসপাতালের বেডে শুয়ে তার এই পরিণতির জন্য নিরীহ মানুষকে দায়ী করছে। ১০জনের নামে মিথ্যা মামলা দারে করেছে তার পরিবার। প্রায় একযুগ ধরে খোন্তাকাটাসহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার শত শত পরিবার তার কাছে জিম্মি ছিল। তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে অনেকে এলাকা ছেড়ে চলে যায়। এখন তারা কিছুটা হলেও স্বস্তি ফিরে পেয়েছে।

শরণখোলা সরকারি কলেজের এইচ এস সি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী রূপালী আক্তার বলেন, কলেজে যাওয়া-আসার পথে সাইফুল আমাকে উত্ত্যক্ত করতো। এখন আমার মতো অনেক ছাত্রীই নিরাপদ মনে করছে। কলেজ ছাত্র মিজানুর রহমান মামুন বলেন, ৭-৮ মাস আগে কলেজ থেকে বাড়ি যাওয়ার পথে সাইফুল আমার মোবাইল ফোন ও টাকা ছিনিয়ে নেয়। রায়েন্দা সরকারি পাইলট হাই স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ইমি আক্তার বলে, বাসা থেকে বের হলেই সাইফুল পথে বেরিকড দিত। সব সময় ভয়ে ভয়ে স্কুলে যেতে হতো। সাইফুলের চোখ নষ্ট হওয়ায় আমি ও আমার পরিবার খুশি হয়েছি।

রাজৈর গ্রামের মোশারেফ মোল্লা বলেন, সাইফুলের ভয়ে আমার মৃত ভাইয়ের স্ত্রী (ভাবী) বাড়ি ছেড়ে মোংলায় তার বাবার বাড়িতে গিয়ে বসবাস করছে। সাইফুলের চোখ নষ্ট হওয়ার খবর শুনে তিনি প্রায় দুই বছর পরে গত দুদিন আগে বাড়িতে ফিরেছেন। এভাবে অসংখ্য মানুষ সাইফুলের কাছে জিম্মি ছিল। এতোদিন তার বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে সাহস পায়নি। এখন সবাই সোচ্ছার হয়ে উঠেছে। তার অপকর্মের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে শুরু করেছে নিরীহ মানুষ। নির্যাতিত শত শত নারী, পুরুষ রাস্তায় নেমে এসে তার আরো কঠিন শাস্তি দাবি করছে।

নির্যাতিত জনতার এই কর্মসূচীতে একাত্বতা প্রকাশ করে প্রশাসনের কাছে সন্ত্রাসী, ডাকাত সাইফুল ও তার পরিবারের ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদ, তার অপকর্মের দৃষ্টান্তমূলক বিচার এবং পেছন থেকে কলকাঠি নাড়ানো এর গডফাদারকে খুঁজে বের করার দাবি জানিয়ে বক্তৃতা করেন উপজেলা আওয়ামীলীগের নাবেক সাধারণ সম্পাদক এম সাইফুল ইসলাম খোকন, শ্রমিকলীগের সভাপতি মেজবাহ উদ্দিন খোকন, খোন্তাকাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাকির হোসেন খান মহিউদ্দিন, রাজৈর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. আ. রহিম হাওলাদার, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. আসাদুজ্জামান আসাদ প্রমুখ।

শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইদুর রহমান জানান, শনিবার রাতে সাইফুলের বাবা মো. নূরুল ইসলাম মোল্লা বাদী হয়ে ১০জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ৭-৮জনের নামে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এব্যাপারে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ