আজ ২৫শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৮ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

কারখানায় প্রবেশ করতে হলে হাত ধোয়াসহ শরীরের তাপমাত্রা মাপাতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

 

করোনাভাইরাস সারা বিশ্বকে বুঝিয়ে দিয়েছে যে এটি মানুষের জন্য কতটা বিপদজনক ও ভয়ঙ্কর। ২০১৯ সালের শেষের দিকে সৃষ্টি হওয়া এই ভাইরাস এখন পর্যন্ত প্রায় কয়েকশ মানুষের প্রান নিয়েছে।

বাংলাদেশেও এই ভাইরাসের প্রভাব পরেছে। এ কারণে ভাইরাসটির পাদুর্ভাব বন্ধ করার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিনোদনকেন্দ্র, সভা-সমাবেশ বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের রপ্তানী আয়ের প্রধান চাঁকা পোশাক শিল্প কারখানা বন্ধ করা হয়নি। পোশাক কারখানা বন্ধ ঘোষণা করলে কর্মবীহীন হয়ে পরবে প্রায় ৪০ লাখ মানুষ। এবং বন্ধ হয়ে যাবে রপ্তানীর প্রধান চাঁকা।

তাই পোশাক কারখানাগুলো বন্ধ না করে শ্রমিকদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করা চেষ্টা করছে কারখানার কর্তৃপক্ষ ও সংশ্লিষ্ট দফতর। সাভারের বিভিন্ন পোশাক কারখানায় শ্রমিকদের নানা ভাবে সচেতন করে করোনা প্রতিরোধের উপায় সম্পর্কে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

এমনই একটি পোশাক কারখানা সাভারের আশুলিয়ার কাঠগড়ার এ আর জিন্স প্রোডিউসার লিমিটেড। যেখানে করোনার আভাস পেতেই কারখানায় নেওয়া হয়েছে বাড়তি সতর্কতা। হাত ধোয়ার জন্য সু ব্যবস্থা, বিনামুল্যে প্রতি সপ্তাহে দুটি করে মাস্ক বিতরণসহ প্রতিদিন কারখানায় প্রবেশের সময় শ্রমিকদের শরীরের তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে কারখানাটিতে।

সরজমিনে শনিবার (২১ মার্চ) সকাল ৭টার দিকে কারখানার সামনে গিয়ে দেখা গেছে, কারখানা থেকে বিতরণ করা মাস্ক পড়ে সকালে আসেন তারা। পরে একের পর এক সিরিয়াল ধরে কারখানার বাইরে থেকে হাত ধুইয়া শেষে হাত মুছে শরীরের তাপমাত্রা মেপে প্রবেশ করছেন শ্রমিকরা। এর পাশাপাশি কারখানার কর্মকর্তারা হাতে হ্যান্ড মাইক নিয়ে কারখানার সামনে শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে সচেতনতার বার্তা জানিয়ে দিচ্ছেন। এছাড়া কারখানার প্রবেশ পথ ও ভেতরে পথে নানা রকম ব্যানার-ফ্যাস্টুন টানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

কারখানাটির শ্রমিক কুলসুম, সকালে মেয়ে রিমাকে নিয়ে এসে তার সাথে হাত ধুয়ে শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপ করে কারখানায় ঢুকেন কুলসুম। তিনি বলেন, রিমা জন্ম নেওয়ার পর থেকে আমাদের কারখানার চাইল্ড কেয়ারে রেখে রেখে কাজ করছি। সারাদেশে যেভাবে করোনা প্রভাব পরেছে এতে করে আমাদের কারখানা যে উদ্যােগ নিয়েছে তা আমাদের জন্য ভালো। হাত ধুয়ে, মাস্ক পরে, শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপ করে কারখানায় ঢুকতে হচ্ছে এটি অামাদের জন্য ভালো। আমরা সুস্থ থাকলে কাজ করতে পারবো নয়তো কারখানা বন্ধ হয়ে যাবে।

রাকিব নামের আরেক শ্রমিক বলেন, এ বিষয়টি করাতে আমরা অনেক খুশি।।এভাবে যদি কারখানা পরিচালনা করা হয় তাহলে কারখানা বন্ধ হবে না। আর যদি কারখানা করোনার কারণে বন্ধ হয়ে পরে আমাদের শ্রমিকদের অনেক ক্ষতি হয়ে যাবে।

এ আর জিন্সের এডমিন এন্ড এইচআর ডিপার্টমেন্টের ম্যানেজার মো: রিয়াজুল ইসলাম বলেন, গত (১৭ মার্চ) মঙ্গলবার থেকে আমরা এটি শুরু করেছি। প্রতিদিন তিনজন মেডিকেল অফিসার প্রতিনিয়ত শ্রমিকদের স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করছেন। থার্মাল স্ক্যানার পাচঁটি মেশিন দিয়ে শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপ করা হয়। প্রতি এক ঘন্টা পর পর আমরা শ্রমিকদের খোজঁ নিচ্ছি।

কারখানটির জেনারেল ম্যানেজার র‍্যাক লিটন বলেন, করোনার পাদূর্ভাপ রোখতে আমাদের কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো: নাজমুল কবির স্যার আগে থেকই সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। এবং তিনি নিজেই কারখানায় সকল শ্রমিকদের উদ্দেশ্য করোনাভাইরাস সম্পর্কে সচেতন থাকার জন্য বক্তব্য পেশ করেন। এছাড়াও প্রায় ২৭০০ শ্রমিককে নিজস্ব ভাবে তৈরিকৃত মাস্ক প্রদান করা হয়েছে। আমরা প্রতিটি শ্রমিকের সাথে সব সময় যোগাযোগ রাখছি কারো কোনো অসুবিধা হলে ছুটির ব্যবস্থা করছি।

বিষয়টিকে সাধুবাদ জানিয়ে স্বধীন বাংলা গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশন সভাপতি আল কামরান বলেন, সম্প্রতি সারা বিশ্ব যে আতঙ্ক শুরু হয়েছে তা ঠেকাতে বাংলাদেশকেও সচেতন হতে হবে। পোশাক কারখানাগুলোতে সাধারণত মানুষের সমাগম বেশি থাকে। তাই সচেতনতা বৃদ্ধি করলে করোনার পাদূর্ভাব ঘটবে না। আর কারখানাও বন্ধ করার প্রয়োজন হবে না।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ