আজ ৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২০শে জুন, ২০২২ ইং

সাভারে বেড়েই চলেছে কিশোর গ্যাংয়ের দৌরাত্ম

 

আনিসুর রহমান, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

সাভারের মজিদপুরের একটি বাড়িতে কিশোর গ্যাংয়ের সন্ত্রাসী হামলা, ভাংচুর ও লুটতরাজের ঘটনা ঘটেছে। বাড়ির মালিক রাকিব হোসেন এব্যাপারে সাভার মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ হতে জানা যায়, গত ২৯ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় মুন্না, মেহেদী, বিল্লাল, মিঠু, বাবু, ফয়সাল, সাদিকসহ অজ্ঞাতনামা ১৫-২০ জন পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সুপরিকল্পিতভাবে বাশের লাঠি, লোহার রড, দা, ছ্যান, চাকু নিয়ে রাকিব হোসেনের বাড়ির গেট টপকে প্রবেশ করে। এসময় তারা বাড়িতে ভাংচুর চালায় এবং আনুমানিক ১,৫০,০০০ টাকার ক্ষতি করে। বাড়ির ভাড়াটিয়া সজিব, সিরাজুল ও পেয়ারা বেগমকে মারধর ও অকথ্যভাষায় গালিগালাজ করা হয়।

অভিযোগ হতে আরো জানা যায়, পেয়ারা বেগমকে হত্যার উদ্দেশ্য মেহেদী নামের এক হামলাকারী তাকে ছ্যান দিয়ে আঘাত করে। এসময় অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান পেয়ারা বেগম। আঘাত তার মাথায় না লেগে ডান হাতের তালুতে লাগে। এসময় বাবু নামের আরেক সন্ত্রাসী পেয়ারা বেগমের গলা থেকে এক ভরি স্বর্ণের একটি চেইন ছিনিয়ে নেয়। বাবু পেয়ারা বেগমকে বস্ত্রহীন করে তার শ্লীলতাহানির চেষ্টাও করে। বাড়ির মালিকের খালা কোহিনুর বেগম সন্ত্রাসী হামলা প্রতিহত করতে গেলে তাকেও সন্ত্রাসীরা মারধর করে। পরে বাড়ির মালিক স্থানীয় লোকজন নিয়ে গেলে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে তাদের হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়। সন্ত্রাসীরা চলে গেলে স্থানীয়রা আহতদের সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসে।

একইদিনে মুন্না গ্যাং রানা আহমেদ নামের এক স্কুল ছাত্রের উপর আকস্মিক হামলা করে হাত-পা ভেঙ্গে দেয়। রানা বলেন, মুন্নাসহ ২০-২৫ জন সন্ত্রাসী শাহীবাগ চৌরাস্তায় তাকে দাড়িয়ে থাকতে দেখে হঠাৎ মারধর শুরু করে এবং রড দিয়ে পিটিয়ে তার বাম হাত ও বাম পা ভেঙ্গে দেয়।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়- ‘মুন্না’ ডগরমোড়া, শাহীবাগ এলাকার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী (ডিলার) এবং তার গ্যাংয়ের সবাই মাদকাসক্ত ও মাদক ব্যবসায়ী। দিনে দিনে এদের দৌরাত্ম্য বেড়েই চলেছে বলেও জানান।

নাজমুল ইসলাম নামের স্থানীয় এক যুবক বলেন- মুন্না গ্যাংয়ের মুন্না, মেহেদী, বাবুসহ প্রায় সব সদস্যই একাধিক মামলার আসামি। স্থানীয় এক নেতার ছত্রছায়ায় তারা দিনে দিনে বেপরোয়া হয়ে পরেছে এবং এদের ব্যাপারে কেউ কিছু বললেই মারধর করে ঐ নেতার ক্লাবে নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে সাভার মডেল থানার উপপরিদর্শক আলমগীর বলেন- সুষ্ঠু তদন্তের করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ