আজ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

সাংবাদিক সীমান্তকে প্রাণনাশের হুমকি ছাত্রলীগ নেতা শামীমের, থানায় জিডি

নিজস্ব প্রতিবেদক

 

দৈনিক আমাদের অর্থনীতি পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার সাংবাদিক খোরশেদ আলম সিমান্ত (একেএম সীমান্ত) কে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছেন আরামবাগের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আমিনুল ইসলাম শামীম ও তার সহযোগী বাহিনী। এ বিষয়ে মতিঝিল থানায় সশরীরে উপস্থিত হয়ে সাংবাদিক একেএম সীমান্ত সাধারণ ডায়েরি লিপিবদ্ধ করেছেন। মতিঝিল থানায় সাধারণ ডায়েরি নং ১৬৪৪।

ঘটনার বিবরণ থেকে জানা যায় গত ২০ ফেব্রুয়ারি একটি অনলাইন ভিত্তিক পত্রিকা রাজবাড়ী ডট কম এ ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৯ নং ওয়ার্ড তথা আরমবাগ-ফকিরাপুলের ক্লাব পড়ার চাঁদাবাজি নিয়ে, “সাইদ জামালের পর ক্লাব পাড়ার চাঁদাবাজি এখন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শামীম এর নিয়ন্ত্রণে” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। উক্ত সংবাদে আরামবাগের রাজাকার ভবনের চাবি সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শামীম এর হাতে রয়েছে বলে খবর প্রকাশ হয়। এছাড়াও আরামবাগ দিলকুশা তথা সংশ্লিষ্ট চল্লিশটি দোকানের ভাড়াও শামীমের বাহিনী বরকত, হিরা, মামুন ও সানি ওঠায়। সংবাদ প্রকাশের পরপরই সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আমিনুল ইসলাম শামীম ও তার বাহিনী উত্তেজিত হয়ে এলাকায় বসবাসকারী সাংবাদিক একেএম সীমান্ত’র বন্ধুবান্ধবদের মোবাইল নাম্বারে ০১৬১৬০৫০৩৩৫ এই নাম্বার থেকে ফোন করে “সীমান্তকে আরামবাগের যেখানে পাওয়া যাবে সেখানে সাইজ করা হবে বলে হুমকী দেয়। তবে রাজবাড়ী ডট কম এর সাথে সাংবাদিক একেএম সীমান্ত’র কোন সংশ্লিষ্টতা নেই বলে জানান তিনি।এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৩ ফেব্রুয়ারি রাত দশটায় মতিঝিল থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পরিচয়দানকারী মামুন ০১৬৭৭৪৯০৯৪৭ এই নাম্বার থেকে সাংবাদিক একেএম সীমান্তকে ফোন দিয়ে অতি দ্রুত দেখা করতে বলে। দেখা না করলে খুবই সমস্যা হবে বলে শাসায়। মামুনের হুমকীর পরেই আজ ২৪ ফেব্রুয়ারি দুপুর ৩ টায় সাংবাদিক একেএম সীমান্ত সশরীরে মতিঝিল থানায় উপস্থিত হয়ে সাধারণ ডায়েরি লিপিবদ্ধ করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ৯ নং ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি মোজাম্মেল হক এই প্রতিবেদককে বলেন, বিষয়টি আমরা জানতে পেরেছি। এ বিষয়ে থানায় জিডি হয়েছে। প্রশাসন প্রশাসনের মত কাজ করবে। সাংবাদিক একেএম সীমান্ত আমাদের দুর্দিনের ছাত্রলীগের সদস্য। তার সম্পর্কে খারাপ কোনো অভিযোগ এ যাবত পর্যন্ত আমাদের কাছে নেই। যদি তাকে মিথ্যা সন্দেহে কেউ হুমকি দিয়ে থাকে, তবে তার জীবনের নিরাপত্তার বিষয়টি প্রশাসনের পাশাপাশি আমরাও দেখবো।
উল্লেখ্য সাংবাদিক সিমান্ত কে হুমকির ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন। কোন রকম কালক্ষেপণ ছাড়াই অপরাীদের দ্রুত আইনের আওতায় নেয়ার দাবিও জানিয়েছেন সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ