আজ ৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২১শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

কে এই প্রতারক আলমগীর

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন : সিংগাইর ও সাভার 

 

গ্রামের এক দরিদ্র পরিবারের সন্তান আলমগীর সাভারে একটি হাউজিং কোম্পানি চাকুরি নেয়। সিংগাইর থানার শায়েস্তা ইউনিয়ন লক্ষীপরের দরিদ্র মৃত আরজ মিয়ার সন্তান আলমগীর জালিয়াতির মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার পাহাড় বানিয়েছেন। সিংগাইর ও সাভারে অনুসন্ধানে বেড়িয়ে আসে ভয়ংকর সব তথ্য। সাভার সিটি সেন্টারে কয়েকটি দোকান পজিশনের মালিক, সাভার রাজাসন এলাকায় কয়েকটি বাড়ির মালিক, সিংগাইর গ্রামের বাড়িতে ফাউন্ডেশন দিয়ে বাড়ি ও বিভিন্ন জায়গায় ক্রয়কৃত জমি রয়েছে আলমগীর হোসেন এর নামে। বিগত ২০০৯ সনে সাভারে একটি হাউজিং কোম্পানিতে মার্সিক ২ হাজার টাকায় পদচলা শুরু হয়। রাজ্জাক প্লাজার পাশের ভবনের চিলা কোঠার রুমে থেকেই এমএম টাওয়ারে দায়িত্ব পালন করতেন। এমএম টাওয়ার ২০০৯ সনে বিক্রি করলে ক্রয় করে দানেশ ডালি নামের এক সৌদি প্রবাসী। দানেশ ডালি ক্রয় করে ভবনটি দেখ ভালের দায়িত্ব দেয় আলমগীর হোসেন কে। ২০১০ সনে সাভার বনপুকুর এলাকায় দানেশ ডালি ৮ শতাংশ জমি ক্রয় করে ৭ তলা ভবন নির্মাণ শুরু করলে আলমগীর এর চাকা গুরতে থাকে। আলমগীর জমি ক্রয় থেকে শুরু করে ভবন তৈরীর কাজ শেষ করেই আস্তে আস্তে টাকার মালিক হতে থাকে। ২০১১ সনে দানেশ ডালি সাভার বাজার রোডে ৬ শতাংশ জমি ক্রয় করে ৮ তলা ভবন নির্মাণ করে । ভবনটি জনতা ভবন নামেই পরিচিত হয়ে উঠে। দানেশ ডালি সৌদি প্রবাসী বছরে একবার বাংলাদেশে আসলেও অল্প কয়েক দিন থেকেই চলে যায় সৌদি আরবে। আলমগীর হোসেন সাভার, আশুলিয়ায় বিভিন্ন জায়গায় বিরোধপূন্য জমি অল্প দামে বায়না করে দানেশ ডালির নামে। ওই বিরোধপূন্য জমির দখল নিতে প্রতারক আলমগীর মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা দিয়ে হয়রানি করতেন জমির মালিকদের। কখনও থানায় আবার কখনও আদালতের মাধ্যমে। এক সময়ে মামলার আসামীরা আলমগীর কে মামলা তুলে নেওয়ার শর্তে জমি লিখে দেয়। আর জমি বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। এভাবেই ২০০৯ থেকে ২০২০ সনে চলতে থাকে আলমগীর হোসেন এর জীবন। ২০২০ সনে সকল অপকর্মের তথ্য বেড়িয়ে আসে আশুলিয়ায় নয়ারহাট বার্জার পেইন্ট এলাকায় আওলাদ হোসেনের ৪৫ শতাংশ জমি দখল নিতে আদালতের সই জাল করে কয়েকটি মিথ্যা মামলা দিয়ে ৬৬ দিন জেলখাটানোর ঘটনাটি প্রকাশ হলে। বাংলাদেশের বিভিন্ন থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন মামলার আসামী বানিয়ে ৬৬ দিন জেল খাটান আওলাদ হোসেন কে। দানেশ ডালি সৌদি আরবে বসে বিপুল পরিমান টাকায় চুক্তি করে ঢাকার এক মুহুরীর সাথে আওলাদ হোসেন কে হয়রানি করে জমি লিখে নেওয়ার জন্য। পরিকল্পনা অনুযায়ী আলমগীর হোসেন , সাভারের এক এডভোকেট সুমন ও ঢাকার এক মুহুরী মিলে আদালতের স্বাক্ষর জাল করে ভূয়া গ্রেপ্তারী পরোয়ানা পাঠিয়ে আওলাদ হোসেন কে আশুলিয়া থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ কক্সবাজার পাঠিয়ে দেয়। কক্সবাজার জেলহাজতে থাকার সময়ে বগুড়া থেকে মামলার কপি আসে সেখানে পাঠানোর জন্য। এভাবে একের পর এক জেলখানায় গুরতে থাকে আওলাদ হোসেন । গত ডিসেম্বর আওলাদ হোসেনের স্ত্রী হাইকোটে একটি রিট করলে আদালত শুনানি শেষে আওলাদ হোসেন কে জামিন প্রদান করে সিআইডিকে নির্দেশ দেয় এই প্রতারক চক্র কে আইনের আওতায় আনতে। সিআইডি পুলিশ ১১ ফেব্রুয়ারী সাভারের জনতা ব্যাংক ভবন থেকে প্রতারক আলমগীর হোসেন কে গ্রেপ্তার করে। আলমগীর এর স্বীকারোক্তিতে এডভোকেট সুমন ও মুহুরীকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়ে দিলে আদালত তাদেরকে জেলহাজতে পাঠিয়ে দেয়।৷

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ