আজ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭শে জুন, ২০২২ ইং

সাভারে ছাত্রদলের সাংগঠনিক থেকে যুবলীগের সভাপতি প্রার্থী

 

নিজস্ব প্রতিবেদক :

এক সময় বিএনপির ছাত্র সংগঠন ছাত্রদলের গুরুত্বপূর্ণ পদ সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে ছিলেন আমির হোসেন জয়।

পরে লেবাস পাল্টিয়ে যোগ দেন আওয়ামী লীগের যুব সংগঠন যুবলীগে। এই জায়গায় থেকে প্রতিনিয়ত বাগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছেন এই দলের ক্ষমতাসীন পদ। আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারীদের দৌরাত্ম্যে ত্যাগী নেতারা কোনঠাসা হয়ে পড়ছে।

বর্তমান বিএনপির নেতা ও অর্থ যোগানদাতা জয়ের বড় ভাই মোঃ আমানুল্লাহর ছায়ায় তিনি ছাত্রদলেরও বড়সড় পদের অধিকারী ছিলেন। ইউনিয়নের এই হাইব্রিড নেতা শুধুই যে দল কেলেঙ্কারীর রয়েছে তাই নয় তার বিরুদ্ধে রয়েছে চাঁদাবাজিসহ নানা অভিযোগও।

এতো কিছু জানা থাকলেও যুবলীগের আশুলিয়া থানা পর্যায়ের আহবায়ক কমিটি তাকে কয়েক বছর আগে শিমুলিয়া ইউনিয়নের আহবায়ক করেছেন। শেষমেশ ইউনিয়নের যুবলীগের চুড়ান্ত কমিটির সভাপতির জন্যও প্রার্থী হয়েছেন তিনি। এনিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা।

অভিযোগ উঠেছে, আমির হোসেন জয় বিএনপির আমলে ২০০৩ ও ২০০৭ সালের সাভার উপজেলা শিমুলিয়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের ছাত্রদলের কমিটিতে সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করেছেন। সেই সাথে আমির হোসেন জয়কে বিএনপির বিভিন্ন নেতা-নেত্রীর সাথে নানা প্রোগ্রামেসহ ঈদ পূর্ন মিলনী অনুষ্ঠানেও দেখা গেছে। তার বড় ভাই মোঃ আমানুল্লাহর ছায়ায় বর্তমানেও বর্তমান বিএনপির নেতা ও অর্থ যোগানদাতা।

অভিযোগ রয়েছে আমির হোসেন জয়ের ছত্রছায়ায় যুবদল কর্মী ও হত্যা মামলার আসামি সাব্বির আহমেদ ইউনিয়ন দাপিয়ে বেড়ায়।

জানা গেছে, আমির হোসেন জয় মুলতো তার নাম আমির হোসেন এলাকায় তাকে সবাই মুরগী আমির বলেই চিনেন। ছাত্রদল থেকে যুবলীগের আসার পর পরই নামের সাথে জয় সংযোন করে হয়ে যায় আমির হোসেন জয়।

বিষয়টি নিয়ে আমির হোসেন জয়ের কাছে জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হয়নি।

শিমুলিয়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের বিএনপির বর্তমানের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম  বলেন, আমাদের কমিটিতে আমির হোসেন জয়রের ভাই ও আতাউর খাঁর ছেলে আমানুল্লাহ ৩৯ নাম্বার সদস্য হিসাবে আছে। এবং সে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন প্রোগ্রামের অর্থ যোগান ও দিয়ে থাকে। জয় শুধু দল পরিবর্তন করেছে এমনটিই নয় দলের সাথে সাথে সে নামেও পরিবর্তন এনেছেন।

এ বিষয়ে সে আমলের শিমুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ২০১১ সালের শিমুলিয়া ইউনিয়নের বিএনপির সভাপতি জয়নাল আবেদীন বলেন আমি দ্বায়িত্বে থাকাকালীন জয়ের ভাই আমানুল্লাহ বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কর্মসূচিতে অর্থ যোগান দিতো। এবং তার ভাই আমির হোসেন জয় বিভিন্ন কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন।

তৎকালীন সময়ে ছাত্রদলের শিমুলিয়া ইউনিয়ন কমিটির সভাপতি ওসমান গনী আমির হোসেন জয় ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহবায়ক কবির হোসেন সরকারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমরা জেনেছি, এর জন্য কমিটি আপাতত স্থগিত করা হয়েছে৷ তবে জয় কখনো বিএনপির নেতা ছিলো না। আর তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে তা যথাযথ নয়। বিএনপির বিভিন্ন প্রোগ্রামে নেতাদের সাথে ছবির ব্যাপারে তিনি বলেন, জয় এই ছবিগুলো বিয়ে বা কোনো পারিবারিক অনুষ্ঠানে উঠতে পারে৷

ঢাকা জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জিএস মিজানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ব্যস্ত আছেন বলে জানান৷

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ