আজ ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৯শে মে, ২০২৪ ইং

সাভারে রাস্তা উন্নয়নের অর্থ আত্মসাৎ এর অভিযোগ

 

উজ্জ্বল হোসাইনঃ নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকারি প্রকল্পে দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে সাভার উপজেলাধীন বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের ১,২ এবং ৩নং ওয়ার্ড সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার রেহেনা খাতুনের বিরুদ্ধে। ২০১৯-২০ অর্থবছরে গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ টি,আর-নগত অর্থ/খাদ্যশস্য কর্মসূচী (বিশেষ) প্রকল্পের আওতায় ৭টি রাস্তা মাটি দ্বারা উন্নয়নের জন্য সর্বমোট ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়।প্রকল্পটি বাস্তবায়ন না করেই বরাদ্দকৃত টাকা সোনালী ব্যাংক সাভার শাখা থেকে উত্তোলন করা হয় বলে জানা যায়। এ বিষয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির কোন কোন সদস্য সচিব নিজেরাই অবগত নয়। প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটিতে থাকা ব্যক্তির নাম ও ভূয়া স্বাক্ষর ব্যবহার করাও অভিযোগ রয়েছে মহিলা ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে।

এলাকাবাসী জানান বনগাঁও ইউনিয়নের ১,২ ও ৩নং ওয়ার্ডের সাধাপুর, নিকরাইল,
কাজিপাড়া, গোপেরবাড়ি এলাকায় ৭টি প্রকল্পের মধ্যে একটিও বাস্তবায়ন হয়নি। তারা দাবী করেন কয়েক বছরের মধ্যে রাস্তা গুলোর কোন উন্নয়ন মূলক কাজ করেনি মহিলা ইউপি সদস্য রেহেনা খাতুন। তিনি ভূয়া প্রকল্প দেখিয়ে জনগনের সাথে প্রতারণা করার চেষ্টা করছেন।সরকারি প্রকল্পের দূর্নীতি ও অনিয়মকারীর বিরুদ্ধে শাস্তির দাবী করেন তারা।

প্রকল্পের বাস্তবায়ন কমিটির এক সদস্য সচিব মো:আতাউর রহমান জানান, প্রকল্পটি সম্পর্কে তিনি কিছুই জানেন না। তার নাম, পিতার নাম এবং ভূয়া স্বাক্ষর দিয়ে প্রকল্পের অর্থ উত্তোলন করেন মহিলা ইউপি সদস্য রেহেনা খাতুন। কমিটিতে যে স্বাক্ষর দেয়া হয়েছে তা তার নয় বলে তিনি দাবী করেন।

সরকারি প্রকল্পের দূর্নীতি ও অনিয়ম সম্পর্কে
বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রকল্পটি ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে বরাদ্দ হয়নি। সরকারের বিশেষ বরাদ্দ থেকে প্রকল্পটি এসেছে। এ বিষয়টি সম্পর্কে তিনি আগে অবগত ছিলেন না। গত কয়েক দিন পূর্বে বিষয়টি তিনি জানতে পারেন। অভিযোগ সত্যি হলে দূর্নীতি ও অনিয়মকারীর বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন তিনি।

মহিলা ইউপি সদস্য রেহেনা খাতুনের দাবী প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি হিসেবে তিনি নিজেই প্রকল্পের বরাদ্দকৃত অর্থ উত্তোলন করেন।৭টি প্রকল্পের মধ্যে আংশিক কাজ করার দাবী করলেও সরেজমিনে তার উল্টো চিত্র চোখে পড়ে। বাকি কাজ গুলো কিছুদিনের মধ্যে করে দিবে বললেও এলাকাবাসী বলছে তার ভিন্ন কথা। প্রকল্পের বরাদ্দকৃত অর্থ উত্তোলন করে সাবেক মেম্বার আরিফ এর কাছে দিয়েছেন বলে তিনি দাবী করেন। তবে এ বিষয়ে সাবেক মেম্বার আরিফ এর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তা সম্ভব হয়নি।

সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম আরা নীপা বলেন, একাধিক ব্যক্তি এব্যাপারে তাকে ফোন করে জানিয়েছেন, তবে অভিযোগটি লিখিত আকারে দিলে তদন্ত সাপেক্ষে
সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে দূর্নীতিকারির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ