আজ ২৩শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই মার্চ, ২০২১ ইং

বাংলাদেশ স্কুল মাস্কাট ও দূতাবাস ওমানে যথাযথ মর্যাদায় ভাষা শহীদদের স্মরণ

এইচ এম হুমায়ুন কবির,মাস্কাট

 

যাদের বুকের তাজা রক্তে ভিজেছিল রাজপথ, যারা ভাষার জন্য উৎসর্গ করেছিলেন নিজের জীবন , যাদের আত্মত্যাগ আর জীবন বিসর্জনের মাধ্যমে বাঙালি পেয়েছে বাংলায় কথা বলার স্বাধীনতা,সেই সব বীর শহীদদের স্মরণে বাংলাদেশের সাথে মিল রেখে বিশ্বের অন্যান্য দেশেও যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা আর ভালোবাসার নিদর্শন স্বরূপ দেশের প্রতিটি শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ ভরে ওঠে ফুলে ফুলে। ব্যতিক্রম ঘটেনি প্রায় ৮ লক্ষ বাংলাদেশির বসবাস মধ্যপ্রাচ্যের তেলসমৃদ্ধ দেশ ওমানেও।

দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশ দূতাবাস ওমান দিনের কর্মসূচির শুরুতে দূতাবাস প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ,ভাষা শহীদদের স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন ও সকল ভাষা শহীদসহ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।

সন্ধ্যায় দূতাবাসের হলরুমে আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানের মূল অংশে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়। এ সময় অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মান্যবর রাষ্ট্রদূত গোলাম সারওয়ার ছাড়াও দূতাবাসের সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ সহ বাংলাদেশ সোশ্যাল ক্লাব, ওমান আওয়ামী লীগ, চট্টগ্রাম সমিতি ওমান, ঢাকা সমিতি ওমান সহ উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
অনুষ্ঠানে বক্তারা মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট নিয়ে বিশদ আলোচনা করেন এবং ভাষা শহীদদের গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।

সমাপনী বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত গোলাম সারোয়ার বলেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যুগান্তকারী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ভাষা আন্দোলনের পটভূমি রচিত হয়। এসময় তিনি বঙ্গবন্ধুসহ সকল ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগকে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে যথাযথ কর্তৃপক্ষ সহ দেশের সকল সচেতন নাগরিকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

অন্যদিকে বাংলাদেশ স্কুল মাস্কাট দিবসটি উপলক্ষে ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান জানিয়ে ২১ ফেব্রুয়ারি সকাল ৭ ঘটিকায় ভাষা শহীদদের স্মরণে সঙ্গীত পরিবেশন ও সকাল ৯ ঘটিকায় বাংলাদেশ দূতাবাসের মান্যবর রাষ্ট্রদূত, বাংলাদেশ স্কুলের বোর্ড অফ দিরেক্টরস, অধ্যক্ষ,বাংলাদেশ কমিউনিটির অভিভাবকবৃন্দ, ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ, শিক্ষক শিক্ষিকাবৃন্দ কর্তৃক শহীদ মিনারে পুষ্প মাল্য অর্পণ করে শহীদদের শ্রদ্ধা জানানো হয়।

মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়ে বাংলা ভাষাকে ছিনিয়ে আনা বীর শহীদদের স্মরণে বাংলাদেশ স্কুল মাস্কাটের ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণে বাংলা হাতের লেখা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতাও অনুষ্ঠিত হয়।

সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বাংলাদেশ স্কুলের অধ্যক্ষা ফারজানা করিম বীর শহীদদের স্মরণ করে বলেন – তাজা প্রাণ আর বুকের টকটকে লাল রক্ত ঢেলে দিয়ে অর্জিত প্রিয় মাতৃভাষাকে আগামী প্রজন্ম যেন হৃদয়ে লালন করেন এবং ভাষার জন্য ত্যাগ স্বীকার করে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করে যাওয়া মহান শহীদদের শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন,সেজন্য কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রী সহ গোটা বাংলা ভাষাভাষী মানুষদের সামনে বাংলা ভাষার গুরুত্ব এবং ঐতিহ্য ও এই ভাষা ছিনিয়ে আনতে গিয়ে শহীদ হওয়া বীরদের আত্মত্যাগকে যথাযথভাবে তুলে ধরতে হবে। এ সময় তিনি বাংলা ভাষাকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি এবং দেশের সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন স্তরে বাংলা ভাষা ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ