আজ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুন, ২০২২ ইং

অবশেষে ৮৩ বছর পরে হিন্দু নারীরা উত্তরাধিকারের স্বীকৃতি পেলো

 

সুমাইয়া ইয়াসমিন
আইন বিভাগ
ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি :

যে আইন তৈরি করা হয় মানুষের অধিকার প্রতিষ্টার জন্য,সেখানে সে আইনই ছিল বিতর্কিত।

হিন্দু বিধবা মহিল্লাদের ৮৩ বছর ধরে স্বামীর কৃষি জমিতে কোনো প্রাপ্য দেওয়া হয় হতো না।এমন দাবি করে ১৯৯৬ সালে খুলনা কোর্টে মামলা করেন দেবর জ্যেতিন্দ্রনাথ মণ্ডল।

এতে নিম্ন আদালত বলেন,

“বিধবারা স্বামীর অকৃষি জমির অধিকার রাখলেও কৃষি জমির রাখেন না”

আপিল করার পর জেলা জজ তার রায়ে বলেন,

“বিধবারাও স্বামীর কৃষি জমির অংশীদার হবেন”

পরবর্তীতে আপিল করা হয় উচ্চ আদালতে। ১৯৩৭ সালে হিন্দু বিধবা সম্পত্তি আইনে, স্বামীর অকৃষি জমির অধিকার দেয়া হলেও কৃষি জমিতে বঞ্চিত করা হয় বিধবাদের।

বাংলাদেশ স্বাধীন হলেও, ব্রিটিশদের
সেই আইনটিই হুবহু চালু রাখা হয়। আইনটি নিয়ে দুপক্ষের দীর্ঘ শুনানি শেষে অ্যামিকাস কিউরির মত নেন হাইকোর্ট। পরে রায়ে জানান, হিন্দু বিধবা নারীরা অকৃষি জমির মতো স্বামীর কৃষি জমিরও মালিক হবেন।
বাংলাদেশের হিন্দু বিধবারা স্বামীর সব সম্পত্তিতে (অকৃষি-কৃষি) ভাগ পাবেন বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট।

দীর্ঘ আইনি প্রক্রিয়া শেষে আজ বুধবার এ সংক্রান্ত একটি মামলার চূড়ান্ত শুনানি শেষে এ রায় দেন হাইকোর্টের বিচারপতি মিফতাহ উদ্দিন চৌধুরীর একক বেঞ্চ।যাকে ঐতিহাসিক বলছেন আইনজীবীরা।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ