আজ ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুলাই, ২০২১ ইং

মানুষিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েছে রাব্বির মা,পরিবারের চলছে শোকের মাতম

 

খুলনা ব্যুরো প্রধান
জিয়াউল ইসলাম:

যশোর শিশু উন্নায়ন কেন্দ্রে নির্মম নির্যাতনে নিহত তিন জনের একজন পারভেজ হাসান রাব্বি(১৬)’র এমন মৃত্যু হবে যেন আগেই জানতে পেরেছিল রাব্বি। তাই মৃত্যুর সাত দিন আগে ফোনে পরিবারকে বলেছিল বাবা আমি আর এখানে থাকতে চাইনা আমার জন্মনিবন্ধন সংশোধন করে প্রাপ্ত বয়স্ক দেখিয়ে আমাকে এখান থেকে নিয়ে যাও। আমি সারা জীবন জেলখানাতে থাকবো তবু এখানে থাকবো না। সন্তানের কথা শুনে বাবা রোকা মিয়া যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্র থেকে ছেলেকে অন্যত্র নিতে রাব্বির জন্মনিবন্ধন সংশোধনের চেষ্টা করে ব্যার্থ হয়। রোকা মিয়া সন্তানকে শান্তনা দেয় আমি তোমাকে দ্রæত ছাড়িয়ে নিয়ে যাব একটু অপেক্ষা কর। অপেক্ষার পালা শেষে করে বাড়ীতে এলো পারভেজ হাসান রাব্বির নিথর দেহ লাশ। এমন মৃত্যুতে খুলনার দৌলতপুর থানার পশ্চিম সেনপাড়া এলাকায় চলছে শোকের মাতম। পরিবারের একমাত্র পুত্র সন্তানকে হারিয়ে মা পারভীন বেগম মানুষিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েছে। নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে থেকে নির্মম এমন মৃত যেন পরিবারসহ এলাকাবাসী কোন ভাবেই মেনে নিতে পারছে না।
দৌলতপুর থানাধীন পাশ্চিম সেনপাড়ার বাসিন্দা খুলনা বিভাগীয় ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের নেতা মো. রোকা মিয়ার একমাত্র পুত্র মো. পারভেজ হাসান রাব্বি বন্ধু মহলের বিরোধে গত বছরের ৩১ আগস্ট একই এলাকার মোস্তফা ফরাজীর পুত্র মো. জনী ফরাজী(১৮) হত্যা মামলার চার্জশীট ভুক্ত আসামী । জনি ফরাজী হত্যায় তার পিতা মোস্তফা ফরাজী বাদী হয়ে দৌলতপুর থানায় হত্যা মামলা করেন(মামলা নং ১৮, তাং ৩১/৮/১৯)। মামলায় নিহত পারভেজ হাসান রাব্বি, মো. জনি ও মো. মামুনুর রশিদ লিমনকে আসামী করা হয়। আসামীরা সকলে অপ্রাপ্ত বয়স্ক কিশোর হওয়ায় আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে ৮/৯ মাস আগে যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানো হয়। পরবর্তিতে নিহত পারভেজ হাসান রাব্বি মাঝে মধ্যে পরিবারকে এখানের খাওয়া দাওয়া সহ বিভিন্ন বিষয়ে অবহিত করতেন। সর্বশেষ রাব্বি গত বৃহস্পতিবার সকালে পরিবারকে ফোন করে জানায় এখানে সমস্যা হচ্ছে তাকে যেন নিয়ে যায়।
নিহত পারভেজ হাসান রাব্বির পিতা রোকা মিয়া জানায়, তার পুত্র রাব্বি ফোনে জানায় এখানে ঠিকমত খেতে দেয়না খাবার চাইলে কারনে অকারনে নির্যাতন করা হয়। গত দুই সপ্তাহ আগে শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে খাবার নিয়ে কর্তৃপক্ষের সাথে কথা কাটাকটি হয়েছে রাব্বি সহ কয়েকজন বন্দির সাথে। এখানকার কর্মকর্তাদের মদদপুষ্ট কিছু বন্দিরা একজোট হয়ে তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন করছে। রাব্বি আরো বলেছিল এখানকার যাদের ফোনে কথা বলি তারা পাশে দাড়িয়ে থাকে তাই কিছু বললে পরে শাস্তি দিবে। রোকা মিয়া বলে কেদে কেদে আমার ছেলে আমাকে বলে বাবা আমি আর যশোর কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে থাকতে চাইনা আমাকে এখান থেকে নিয়ে যাও। আমি ছেলেকে বলেছিলাম অপ্রাপ্ত বয়স্ক কিশোররা এখানে থাকে। রাব্বি আমাকে বলে বাবা আমি আর অপ্রাপ্ত বয়স্ক থাকতে চাই না আমার জন্মনিবন্ধন সংশোধন করে আমাকে এখান থেকে নিয়ে যাও আমি সারা জীবন জেলখানাতে থাকবো তবু এখানে থাকবো না। আমি জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের চেস্টা করে ব্যার্থ হই। তিনি বলেন সর্বশেষ রাব্বি বৃহস্পতিবার সকালে ফোন করে আমাদেরকে জানায় এখানে ঝামেলা হচ্ছে তোমরা আমাকে নিয়ে যাও। পরে ঐ দিন খবর আসে আমার ছেলের মৃত্যুর।


রাব্বির পিতা রোকা মিয়া অশ্রæশিক্ত কন্ঠে বলেন আমি আমার ছেলের লাশ আনতে গিয়ে আহত বন্দি সহ অনেকের কাছে নির্মম নির্যাতনের কথা শুনেছি । ২/৩ দিন যাবত না খাওয়া আমার ছেলে সহ কিশোর বন্দিদেরকে প্রতিষ্ঠানের কিছু কর্মকর্তা, কর্মচারী ও তাদের মদদপুষ্ট বন্দি মিলে অডিটরিয়ামের সিড়ি ঘরের নিচে নিয়ে গ্রীলের সাথে হ্যান্ডকাপ দিয়ে বেধে মুখে গামছা ঢুকিয়ে লোহার রড, ক্রিকেটের স্টাম্প, পাইপ, কাঠের ও বাশের লাঠি দিয়ে শরিরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ী ভাবে মারপিট করে। মুমুর্ষ অবস্থায় তাদেরকে চিকিৎসা না করে অডিটরিয়ামের মেঝেতে ফেলে রাখে। পানি চাইলেও তাদেরকে পানি দেওয়া হয়নি। পরবর্তিতে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়লে আমার ছেলেসহ আহতদেরকে হাসপাতালে নেয় কিন্তু তার আগে আমার ছেলে রাব্বি সহ নাঈম হোসেন ও রাসেল ওরফে সুজন মারা যায়। শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে থাকা একই এলাকার মো. আলমগীরের পুত্র মো. জনী গুরুতর আহত অবস্থায় যশোর সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। শনিবার নিহত রাব্বির লাশের সকল আইনি প্রক্রিয়া শেষে দুপুর ১২টায় মানিকতলা খাদ্য গুদাম সংলগ্ন মসজিদের সামনে জানাযা শেষে মহেশ^রপাশা কবরস্থানে দাফন করা হয়।
এদিকে গতকাল নিহত রাব্বির দৌলতপুর থানার পশ্চিম সেনপাড়া এলাকায় গিয়ে দেখা যায় সেখানে চলছে শোকের মাতম। পরিবারের একমাত্র পুত্র সন্তানকে হারিয়ে মা পারভীন বেগম মানুষিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েছে। নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে থেকে নির্মমভাবে এমন মৃত যেন পরিবারসহ এলাকাবাসী কোন ভাবেই মেনে নিতে পারছে না। এলাকাবাসী এই ঘটনার সুষ্ট তদন্তপূর্বক অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন।
যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের ঘটনায় নিহত পারভেজ হাসান রাব্বির পিতা রোকা মিয়া বাদী হয়ে যশোর মডেল থাকায় যশোর পুলেরহাটের শিশু কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রর কর্মরত অজ্ঞাতনামা কর্মকর্তা,কর্মচারী ও সিনিয়র কিশোর নিবাসীদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ