আজ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

আশুলিয়ায় স্কুলের জমি দখলের চেষ্টার বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকার আশুলিয়ায় গকুলনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ভোগদখলে থাকা জমি দখলচেষ্টার বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছে। রবিবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে বিদ্যালয় সংলগ্ন গকুলনগর বাজারের সামনের রাস্তায় এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

সরেজমিন মানববন্ধন স্থলে গেলে যেখা যায়, বিভিন্ন ব্যানার ও ফেস্টুন নিয়ে গকুলনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং অভিভাবকসহ এলাকাবাসী শান্তিপূর্ণভাবে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেন।

এসময়, গকুলনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সদস্য আব্দুল মান্নান জানান, স্কুলের এই জমি ১৯৮৭ সাল থেকে সরকারের কাছ থেকে লিজ নিয়ে ভোগদখলে রয়েছে। একটা কুচক্রী মহল ও ভূমিদস্যু যার নেতৃত্বে রয়েছে এ্যাডভোকেট সানোয়ার, সে এবং ফেরদৌস দেওয়ান ও সাইফুল ইসলাম স্কুলের দখলে থাকা জমি দখলের পায়তারা চালাচ্ছে। এলাকার কিছু কুচক্রী মহলও তাদের সাথে রয়েছে।

বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি নাজমুল হক আলী জানান, আজকের মানববন্ধনের উদ্দেশ্য হলো, কিছু ভূমি দস্যু আমাদের এই বিদ্যালয়ের জমি দখলের পায়তারা করছে তাদের বিরুদ্ধে। তারা নানাভাবে মামলা ও জীবননাশের হুমকি দেয়া সহ বিভিন্ন ধরনের হয়রানি করার চেষ্টা করছে। আমি নিজেও এই বিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলাম, আমার ছাত্রাবস্থা থেকেই দেখে আসছি এই জমি স্কুলের দখলে।

মানববন্ধনে আসা সিনথিয়া আক্তার কেয়া জানায়, ‘আমাদের স্কুলের জমি যেসব ভূমিদস্যু ও দালালরা অন্যায়ভাবে ছিনিয়ে নেবার চেষ্টা করছে, আমরা তাদের বিচার চাই। আমরা আমাদের স্কুলের জমু তাদেরকে অন্যায়ভাবে নিতে দেবো না। এজন্যই আজ আমরা এই মানববন্ধনে এসেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট আমরা আমাদের স্কুলের জমি রক্ষা করার জন্য বিণীত আবেদন করছি।

গকুলনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইয়াদ আলী বলেন, দীর্ঘদিন যাবত বিদ্যালয়ের নামে এই জমি ভোগদখলে রয়েছে। এখানে স্কুল কেন্দ্রিক একটা সুষ্ঠু ও সুশৃংখল পরিবেশ বজায় রয়েছে। ইদানিং কতিপয় দালালচক্র বিদ্যালয়ের ভোগদখলে থাকা জমি দখল করার পায়তারা করছে। এজন্যই আজ এলাকার সকল শিক্ষানুরাগী সহ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং শিক্ষক-শিক্ষিকাবৃন্দ ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে এক হয়ে এই মানববন্ধনে সমবেত হয়েছেন।

তবে যাদের বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের জমি দখলের পায়তারা সহ অন্যান্য হুমকির অভিযোগ আনা হয়েছে, তাদের ভিতর ফেরদৌস দেওয়ান ও সাইফুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ সম্ভব না হওয়ায় এব্যাপারে তাদের বক্তব্য পাওয়া যায় নাই। তবে তৃতীয় অভিযুক্ত এ্যাডভোকেট সানোয়ার এর কাছে মুঠোফোনে বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ আমি মূলত ফেরদৌস দেওয়ান ও সাইফুল ইসলামের আইনজীবি। আর এব্যাপারে তারাই ভালো বলতে পারবেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ